পদ্মা সেতুর টোল অর্থ আয়ের কৌশল: ন্যাপ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪১ এএম, ২০ মে ২০২২
ফাইল ছবি

পদ্মা সেতু পারাপারের জন্য সরকার ঘোষিত টোল জনগণের ‘গ্রহণযোগ্য’ নয় বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া। তারা টোল পুনর্বিবেচনার আহ্বান জানান।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানান তারা।

ন্যাপের এই নেতারা বলেন, ভয়ঙ্কর মুদ্রাস্ফীতি, বেকারত্ব, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের আকাশছোঁয়া ঊর্ধ্বগতির পরিপ্রেক্ষিতে পদ্মা সেতুর টোল সাধারণ মানুষের যাতায়াত ও পণ্য পরিবহনের খরচ বাড়িয়ে দেবে।

তারা বলেন, নিজেদের টাকায় পদ্মা সেতু তৈরি হয়েছে। সেখানে টোলের হার কেন এত বেশি হবে? দেখা যায়, ব্রিজ হলে ফেরিতে যে টোল থাকে, ব্রিজেও সেটাই ঠিক করা হয়। কিন্তু পদ্মা সেতুতে শুরুতেই এত বেশি টোল ধরা হচ্ছে কেন? জনগণের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণের পর আবার মাত্রাতিরিক্ত টোল নির্ধারণ কোনোভাবেই দেশের আর্থসামাজিক বাস্তবতার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।

নেতৃদ্বয় বলেন, পদ্মা সেতুতে ফেরির তুলনায় পৌনে দুই গুণ টোল প্রস্তাব করা হয়েছে, যা জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। উচ্চ টোলের কারণে পদ্মা সেতু থেকে মানুষ যেসব আর্থিক সুবিধা এবং সাশ্রয়ের উপযোগ পাওয়ার কথা ছিল, সেটা পুরোপুরি না পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে।

তারা বলেন, পদ্মা সেতুর উচ্চ টোল দক্ষিণাঞ্চলের কৃষিশিল্প পণ্য ও সেবার মূল্য বেশি হবে, এতে এই অঞ্চলের শিল্প বিকাশ বিঘ্নিত হবে। দিন শেষে দক্ষিণের মানুষের পকেট কাটার উপকরণ হয়ে উঠবে সেতুর টোল।

কেএইচ/জেডএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]