বন্যার্তদের জন্য সরকার কী করেছে, প্রশ্ন ফখরুলের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ২২ জুন ২০২২

সরকার বন্যার্তদের জন্য কী করছেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী কালকে সিলেটে গিয়েছেন। ভালো কথা। তিনি মিটিং করেছে। সেখানে তিনি সিলেটের মেয়র আরিফ সাহেবকে (আরিফুল হক চৌধুরী) বলেছেন, কোথায় তোমাদের বিএনপি.., কত দিয়েছে তোমাকে। বিএনপির তো দায়িত্ব না এটা। এই বন্যা পরিস্থিতি দেখভাল করার সব দায়িত্ব সরকারের। যখন তিনি এই কথা বলেন। তখন তার (প্রধানমন্ত্রী) তো নিজের দিকেও একটু তাকানো দরকার যে, তারা কী করছে এখন পর্যন্ত? কত দিচ্ছেন বরাদ্দ? আজকে একটা পত্রিকায় আছে ৩০ লাখ মানুষের জন্য ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ।

বুধবার (২২ জুন) বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আপনারা (সাংবাদিক) নিশ্চয় দেখেছেন যে, পুরো সুনামগঞ্জ জেলা পানির তলে। সিলেট শহরের একটু অংশ বাদ দিয়ে পুরো সিলেট জেলা পানির তলে। সেখানে তারা মাত্র ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে যে, জনগণের এই চর, দুরবস্থার মধ্যে জনগনের পাশে না দাঁড়িয়ে আবারও প্রমাণ করলেন যে, আওয়ামী লীগ আসলে জনগণের কল্যাণের জন্য কোনো দল নয়, জনগণকে প্রতারিত করে ক্ষমতায় টিকে থাকাটাই হচ্ছে তাদের একমাত্র লক্ষ্য এবং সেটা মিথ্যাচার করে, শুধু মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছু নয়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী কালকে হেলিকপ্টারে করে দেখেছেন, খুব ভালো কথা। সার্কিট হাউজে গেছেন, মিটিং করেছেন। কিন্তু একটু এগিয়ে গিয়ে বন্যার্তদের মধ্যে যাননি। বন্যার্তদের যে একটু সাহস জাগাবেন- এটাও তিনি করেননি।

বিএনপির ত্রাণ কার্যক্রম সম্পর্কে মহাসচিব বলেন, বিএনপি বন্যা শুরুর পর থেকে বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের কাজ শুরু করেছে। বিএনপি ১০ হাজার, ২০ হাজার টাকায় নৌকা ভাড়া করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে যারা পানিতে আটকা পড়েছিল তাদের উদ্ধার করেছে ও ত্রাণ দিয়েছে। আজকেও করেছে, প্রতিদিন তারা (বিএনপি) ত্রাণ বিতরণ করে যাচ্ছে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, তারেক রহমান বিদেশি নাগরিকত্ব নিয়েছেন- এটা একেবারেই মিথ্যা কথা। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে এসাইলামে আছেন। এটা খুব পরিষ্কার করে বলা হয়েছে, এটাতে কোনো রাগ নেই। তিনি কোনো নাগরিকত্ব চাননি, ব্রিটেনে নাগরিকত্বের জন্য আবেদনও করেননি। তিনি এসাইলামে আছেন। এসাইলাম ছাড়া তো উপায় নেই। কারণ এরা (সরকার) রিনিউ করে না পাসপোর্ট। সুতরাং এই সব মিথ্যা কথা বলে মানুষজনকে বিভ্রান্ত করা যাবে না। বাজে কথা বলার তো যুক্তি নেই।

সংবাদ সম্মেলনে দলের ত্রাণ কমিটির আহ্বায়ক দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

কেএইচ/আরএডি/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]