নড়াইলে শিক্ষককে অপমান: বাংলাদেশ ন্যাপের নিন্দা

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪৯ পিএম, ২৭ জুন ২০২২

নড়াইল সদর উপজেলায় এক কলেজ অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)।

সোমবার (২৭ জুন) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানিয়ে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মশিউর রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া।

নেতৃদ্বয় বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে কীভাবে একজন শিক্ষককে এভাবে অসম্মান করা হলো। তাহলে কী কেবলমাত্র ধর্মীয় সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে ওই শিক্ষককে এভাবে অপমান করা হলো। ভুক্তভোগী শিক্ষকের কোনো ভূমিকাই নেই। ওনাকে না বাঁচিয়ে পুলিশ তাকে বের করেছে। প্রশাসন যারা চালায় তারা কী চাইছে? কয়েকশ পুলিশের প্রহরায় এটা করা হলো। এটা বাংলাদেশের জন্য কিসের ইঙ্গিত বহন করছে?

ধর্ম অবমাননার ধোয়া তুলে প্রকৃত অপরাধীরা মূলত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছে কিনা তা খুঁজে বের করতে হবে। প্রকৃত অর্থেই দুর্নীতিবাজরা নিজেদের স্বার্থরক্ষার জন্যই ধর্ম অববাননার বিষয়ে গুজব তুলেছে বলেই অভিজ্ঞ মহল মনে করছে। এ ঘটনায় মধ্যদিয়ে প্রমাণিত হচ্ছে দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হলেও মানুষের চিন্তা-চেতনার উন্নয়ন হয়নি। এখনো দুর্নীতি আর লুটেরারা নিজেদের স্বার্থরক্ষায় ধর্মকে ব্যবহার করছে।

তারা বলেন, প্রকৃত অর্থে অধ্যক্ষকে সরিয়ে দিয়ে মোটা টাকার বিনিময়ে ৫ জন কর্মচারীকে নিয়োগ দিতে তৎপর একটি চক্র, তারাই রাহুলের বিরুদ্ধে সাধারণ ছাত্রদের ক্ষেপিয়ে তোলে এবং স্বপন কুমারের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ আনে যাতে তাকে অধ্যক্ষের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া যায়। সেই পুরোনো কৌশল অবলম্বন করে। আর এ অপকৌশলের শিকার হয় সাধারণ শীক্ষার্থীরা। যা আজকের ও আগামীদিনের জন্য কোনো শুভ ইঙ্গিত বহন করছে না।

নেতৃদ্বয় ন্যক্কারজনক এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুর্নীতিবাজ ও সমাজবিরোধী প্রভাবশালী চক্রকে আইনের আওতায় এন দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানিয়ে বলেন, একজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরিয়ে অপমান করা আমাদের সামাজিক মূল্যবোধের অধঃপতনকেই ইঙ্গিত করছে।

কেএইচ/এমএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]