পুলিশের উদ্দেশে মোশাররফ

আর একজন বিএনপি নেতাকর্মীর ওপরেও হামলা করবেন না

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৩ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২
সায়েদাবাদ ব্রিজের ঢালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে

পুলিশকে উদ্দেশ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আপনারা প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা, অনেক হয়েছে, আর নয়। আমাদের আর একজন নেতাকর্মীর ওপর হামলা করবেন না।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর সায়েদাবাদ ব্রিজের ঢালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে এমন হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, যারা বিএনপিকে রাজপথে খুঁজে পাওয়া যায় না বলেন, তারাই ভয় পেয়ে আপনাদের (পুলিশ) আমাদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিচ্ছেন। তারা নিজেরাই পালানোর জায়গা পাবে না। সুতরাং সাবধান হোন।

‘গত ১৫ বছর অনেক চেষ্টা করেও বিএনপিকে দমাতে বা দুর্বল করতে পারেননি। দলীয় প্রধান খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে এমন কোনো নেতাকর্মী নেই, যাদের নামে মামলা নেই। তবুও কেউ দল ছেড়ে যাননি। বিএনপি ঐক্যবদ্ধ থেকেই দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবে।’

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের পেটোয়া বাহিনীকে বলতে চাই, আপনাদের চিহ্নিত করে রাখছি। বেশিদিন সময় নেই। জনগণের সামনে আপনাদের বিচার হবেই।

তার মতে, এদেশে নিত্যপণ্যের মূল্য, বিদুৎ ও জ্বালানি তেলের দাম এত বেশি, যা পৃথিবীতে নজিরবিহীন। নিজেদের দুর্নীতির কারণে এসব নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা সরকারের নেই।

‘আওয়ামী লীগ ১৯৭৫ সালে বাকশাল কায়েম করেছিল। আজ শেখ হাসিনার সরকারও বাকশাল কায়েম করতে চায়। তাই জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে, সবাই মিলে রাজপথে নামতে হবে। তাহলেই এ সরকারের পতন অনিবার্য।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, এ সরকারের সময় শেষ হয়ে এসেছে। অন্যায় ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে আমরা এক হয়েছি।

সরকারের কাছে প্রশ্ন রেখে আব্দুল মঈন বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য যে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছিলেন, সে গণতন্ত্র কোথায়? কেন গণতন্ত্রকে কবর দিয়ে বাকশাল কায়েম করে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার পাঁয়তারা চলছে? কোনো বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ১ লাখ মামলা দেওয়া হয়েছে?

তিনি বলেন, এ দেশের মানুষ খুব বেশি কিছু চায় না। তারা পাঁচ বছরের মাথায় কেন্দ্রে গিয়ে নিজের হাতে ব্যালটবাক্সে নিজেদের ভোট দিতে চায়। কিন্তু সরকার প্রতিবারই আগের রাতে চুরি করা ব্যালটবাক্স ভর্তি করে ভুয়া সংসদ গঠন করেছে।

‘এবার তাদের প্রতিহত করতে হবে। আন্দোলনের মাধ্যমেই একটি নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সরকার প্রতিষ্ঠা না করে আমরা ঘরে ফিরে যাবো না।’

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক নবী উল্লাহ নবীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, সদস্যসচিব রফিকুল আলম মজনু, ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, সদস্যসচিব আমিনুল ইসলাম, নাজিমউদ্দিন আলম, গাজীপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ফজলুল হক মিলন প্রমুখ।

কেএইচ/এসএএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।