বহিষ্কৃতদের ফেরাতে চায় বিএনপির হাইকমান্ড, তৃণমূলে ‘আপত্তি’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০৮ এএম, ০২ অক্টোবর ২০২২
ফাইল ছবি

সরকারবিরোধী চূড়ান্ত আন্দোলনের প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। এ লক্ষ্যে দলটি জেলা, মহানগর ও বিভাগীয় পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে।

শনিবার (১ অক্টোবর) বিকেল ৪টার দিকে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ সভা শুরু হয়। চলে রাত ৮টা পর্যন্ত। এতে চট্টগ্রাম ও খুলনা বিভাগের জেলা, মহানগর ও বিভাগীয় পর্যায়ের নেতারা অংশ নেন।

বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া লন্ডন থেকে ভার্চুয়ালি এ বৈঠকে যুক্ত হন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির হাইকমান্ড থেকে আগামী দিনে সরকার পতনে চূড়ান্ত আন্দোলনের জন্য নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়।

jagonews24

ফাইল ছবি

কেন্দ্রীয় নেতারা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের সব নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে আন্দোলন-সংগ্রাম বেগবান করার কথা বলেন। বহিষ্কারসহ বিভিন্ন কারণে যারা এতদিন দল থেকে দূরে ছিলেন, তাদেরকেও দলে ফিরিয়ে এনে আন্দোলনে যুক্ত করার নির্দেশনা দেন।

তবে বহিষ্কৃত ও দল ছেড়ে যারা চলে গেছেন, তাদের ফেরানোর ব্যাপারে আপত্তি জানান তৃণমূলের নেতারা। তারা বলেন, সরকারবিরোধী আন্দোলনের জন্য বৃহত্তর ঐক্য দরকার। কিন্তু যারা দলের ক্ষতি করে গেছেন, তারা ফিরলে ত্যাগী নেতাকর্মীরা অস্বস্তিতে পড়বেন। তাদের জন্য ত্যাগীরা দলে জায়গা না পেলে বিশৃঙ্খলার ‍সৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে, সরকার পতনের আন্দোলন দীর্ঘমেয়াদি না করার ব্যাপারেও বিএনপির হাইকমান্ডকে পরামর্শ দেন তৃণমূলের জ্যেষ্ঠ নেতারা। তারা বলেছেন, বিভাগীয় গণসমাবেশ শেষ করে এক থেকে দেড়মাস মেয়াদি সরকার পতনের চূড়ান্ত আন্দোলনের রূপরেখা তৈরি করতে হবে। তাহলে আন্দোলনে গতি আসবে। নেতাকর্মীরাও সক্রিয়ভাবে কর্মসূচি বাস্তবায়নে মাঠে থাকবেন।

বৈঠক শেষে যশোর জেলা বিএনপির সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, সরকার পতনের লক্ষ্যে চলমান আন্দোলন যৌক্তিকপর্যায়ে নিয়ে যেতে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। যেভাবে অগণতান্ত্রিক পরিস্থিতিতে দেশ চলছে, তা চলতে দেওয়া যায় না। এজন্য আন্দোলন বেগবান করে এগিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

অন্যদিকে বৈঠকের বিষয়ে বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, দলের ঘোষিত কর্মসূচি সফল করতেই বিভাগীয় পর্যায়ের দায়িত্বশীল নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় শুরু করা হয়েছে। এ বৈঠকে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

জ্বালানি তেল ও নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ ও সরকারের পদত্যাগের দাবিতে ঢাকাসহ ১০ বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশের ঘোষণা করেছে বিএনপি। গত ২৮ সেপ্টেম্বর সংবাদ সম্মেলন করে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী- আগামী ৮ অক্টোবর চট্টগ্রাম বিভাগে, ১৫ অক্টোবর ময়মনসিংহে, ২২ অক্টোবর খুলনা, ২৯ অক্টোবর রংপুর, ৫ নভেম্বর বরিশাল, ১২ নভেম্বর ফরিদপুর, ১৯ নভেম্বর সিলেট, ২৬ নভেম্বর কুমিল্লা, ৩ ডিসেম্বর রাজশাহী ও ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় গণসমাবেশ করবে বিএনপি।

কেএইচ/এএএইচ

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।