সুলতানা কামাল আওয়ামী অধিকারের কর্মী: রিজভী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৭ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২২

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল মানবাধিকার কর্মী নয়, আওয়ামী অধিকার কর্মী বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

বুধবার (৫ অক্টোবর) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’ উপলক্ষে শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য জোট আয়োজিত সমাবেশে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

ইন্ডিয়া টুডেতে সাক্ষাৎকার দেওয়া সুলতানা কামালের বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, যখন ভোলা-যশোর-মুন্সিগঞ্জ-নারায়ণগঞ্জে বিএনপির যুবদলের কর্মীকে হত্যা করা হয়েছে তখন আপনি (সুলতানা কামাল) কোথায় ছিলেন? আপনারা সেটার প্রতিবাদ করলেন না আপনারা কিসের মানবাধিকার কর্মী।

‘আপনারা আওয়ামী অধিকার কর্মী। আওয়ামী লীগের স্বার্থের যে অধিকার সেই অধিকারের কর্মী। এদেশের জনগণের যে অধিকার সেটা আপনার মধ্যে নেই আপনার মাথার মধ্যে নেই। আপনি চান আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকুক। আপনি চান আওয়ামী লীগ যেভাবে বিএনপি নেতাকর্মীদের নির্যাতন করছে, গুম করেছে এটা চালু থাকুক এটা সুলতানা কামালরা চান। সুলতানা কামালের সেই বক্তব্য আমি ধিক্কার ও প্রতিবাদ জানাই।’

রিজভী বলেন, আরেকজন বুদ্ধিজীবী মুনতাসির মামুন বলেছেন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকলে এদেশের অনেকেই দেশে থাকতে পারবে না। কেন থাকতে পারবে না? জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় ছিলেন আপনি চাকরি করেননি? বেগম জিয়ার ক্ষমতার ওই সময় আপনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষক ছিলেন। আপনি কোথায় পালিয়ে গিয়েছিলেন? বরং দেশবিরোধী কাজ করেছেন।

তিনি বলেন, সুলতানা কামালদের কোনো সাক্ষাৎকার কিংবা মুনতাসির মামুনের কোনো বিবৃতি এদেশের স্বাধীনতাকামী মানুষকে বিচলিত করতে পারবে না বরং তারা আজ ‘দালাল’ হিসাবে চিহ্নিত। তিনি এদেশের সাংস্কৃতি চায় না, অন্যকোনো দেশের সাংস্কৃতি এদেশের জনগণের মধ্যে ঢুকিয়ে দিতে চায়। আর এজন্য সরকারের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

‘নেতাকর্মীদের ওপর এত নির্যাতন নিপীড়ন করার পরেও বিএনপি জেগে উঠে কি করে। বিএনপিকে কবরে পাঠাচ্ছে সেখান থেকেও জেগে উঠছে কি করে? এটা সরকারকে আর ও প্রতিহিংসা পরায়ণ করছে। শুধু তাই নয়, তার যে বুদ্ধিজীবীরা আছে তারাও তাদের মতো কোরাস গাইছেন। এখন দেখছি সরকারের পক্ষে ছাপাই গাইছেন সুলতানা কামালের মতো একজন মানবাধিকার কর্মী। বিদেশি একটি পত্রিকায় তিনি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। ইডেন কলেজের বিষয় নিয়ে ইনডাইরেক্টলি সাফাই গাইছেন।’

রিজভী বলেন, ইডেন কলেজে এসব ঝামেলা দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে কিন্তু এত ন্যাক্কারজনক ঘটনা এর আগে ঘটেনি। ছাত্র ছাত্রীদের মারামারি হয় কিন্তু একটা প্রতিষ্ঠানকে ক্রীতদাসের বাজারে পরিণতি করা আগে কখনো হয়নি। আপনি একজন মানবাধিকার কর্মী আইনি সালিশ কেন্দ্রে ছিলেন। সুলতানা কামাল আপনার বিবেক বিবেচনা কোথায়? আপনি শেখ হাসিনাকে তকমা দেওয়ার জন্য বিদেশি পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিয়েছেন যে রাষ্ট্র সংস্কার এ রকমই চলছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে শেখ হাসিনা সুলতানা কামাল মুনতাসির মামুন ছাড়া আর কারো কণ্ঠ থাকবে না। এটা সুলতানা কামাল ও মুনতাসির মামুনরা মনে করেন। শিক্ষকরা নিজেরাও শিক্ষিত একটা শ্রেণিকেও শিক্ষিত করে তারা আজকের এই ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে। তাদের যে কর্মসূচি সেই কর্মসূচি বানচাল করার চেষ্টা করেছে এই সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

‘এদেশের জনগণের উন্নয়নের কাজ করেছে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়া। আপনি শেখ হাসিনা শুধু দেখান ফ্লাইওভার। কি কারণে দেখান। কারণ হলো এখান থেকে লুটপাট করতে পারবেন। আপনি (হাসিনা) একটা স্কুল করতে পারেননি যেখানে বিনা পয়সায় পড়াশোনা করতে পারবে, এগুলো করেছিলেন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়া।

শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়ার সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফৎ আলী সপু, সহ-প্রচার সম্পাদক কৃষিবিদ শামিমুর রহমান শামিম বক্তব্য দেন।

কেএইচ/এমআরএম/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।