হামলায় আহত বিএনপির সাবেক এমপির মৃত্যু, ফখরুলের শোক

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩৬ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০২২

পটুয়াখালী-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও পটুয়াখালী জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান খানের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ফখরুল বলেন, ‘মো. শাহজাহান খান বরিশালে গণসমাবেশের দিন ধারালো অস্ত্রের আঘাতের পর আজ (২৮ নভেম্বর) ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। শাহজাহান খান সরাসরি সন্ত্রাসের শিকার হয়ে নিহত হন।’

সোমবার (২৮ নভেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোক বার্তায় তিনি এসব কথা বলেন।

শোক বার্তায় ফখরুল বলেন, বরিশাল বিভাগে বিএনপিকে তৃণমূলে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে নিরলস পরিশ্রম করেছেন তিনি। সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ে নিবেদিত থেকেছেন তিনি। সেজন্য দেশবাসী তাকে চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের প্রদর্শিত পথ অনুসরণ করে এবং বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে প্রত্যেকটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে তার বলিষ্ঠ অংশগ্রহণ ছিল প্রশংসনীয়। বর্তমান আওয়ামী সরকার নিজেদের একচ্ছত্র আধিপত্যবাদী শাসন জারি রাখতে সারাদেশে মানুষের প্রাণ হরণের যে খেলায় মেতে উঠেছে তারই অংশ হিসেবে মো. শাহজাহান খানের প্রাণ কেড়ে নেওয়া হলো। তার মৃত্যুতে আমি শোক জানানোর ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। এ ঘটনায় আমি তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাই।’

সাবেক এমপি শাহজাহান খানের মৃত্যুতে দেশ একজন বলিষ্ঠ পার্লামেন্টারিয়ানকে হারালো। বর্তমান ঘোর দুর্দিনে পৃথিবী থেকে তার চলে যাওয়া রাজনৈতিক অঙ্গনে বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি হলো বলে মনে করেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শোকবার্তায় মো. শাহজাহান খানের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এদিকে বিএনপির এ নেতার মরদেহ দেখতে গিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মো. শাহজাহান খানের মৃত্যু বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে বিরাট শূন্যতা সৃষ্টি করবে। আজীবন সংগ্রামী ও ত্যাগী এ নেতা জনগণের কাছে অবিভাবক হিসেবে পরিচিত থেকেছে। দলের পক্ষ থেকে, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করছি।’

কেএইচ/এমআইএইচএস/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।