আয়াতের মা-বাবার সঙ্গে দেখা করলেন চট্টগ্রাম বিএনপির নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৮:২৫ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২
আয়াতের মা-বাবার সঙ্গে দেখা করেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির নেতারা

হত্যার পর ছয় টুকরো করা শিশু আলিনা ইসলাম আয়াতের মা-বাবার সঙ্গে দেখা করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন। শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বন্দরটিলা আকমল আলী রোডের বাসায় গিয়ে আয়াতের হত্যাকারী আবিরসহ জড়িতের বিচার দাবি করেন তিনি। এসময় তিনি আয়াতের বাবা, মা, দাদাসহ পরিবারের সবাইকে সমবেদনা জানান।

ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, নির্মমভাবে হত্যার শিকার হয়েছে শিশু আলিনা ইসলাম আয়াত। এই নির্মম হত্যাকাণ্ডে দেশবাসী হতবাক। আয়াতের পরিবারকে সান্ত্বনা দেওয়ার মতো ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। আমরা এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আয়াত হত্যাকাণ্ডে আবিরসহ যারা জড়িত তাদের ফাঁসি অবিলম্বে কার্যকর করতে হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে আইনের শাসন নেই, মানবিকতা নেই, ন্যায়বিচার নেই। এখানে মানুষ গুম হচ্ছ, খুন হচ্ছে, নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। মানুষ মামলা-হামলার শিকার হচ্ছে, বিনা কারণে জেলে যাচ্ছে, সারা চট্টগ্রাম এখন শব্দদূষণের নগরীতে পরিণত হয়েছে। এক মাস ধরে মাইকিং হয়েছে, তাতে মানুষ অতিষ্ঠ। কিন্তু বিএনপির সমাবেশে একদিনের জন্য মাইকের অনুমতি দেওয়া হয়নি। আজকে যে বাংলাদেশে ন্যায়বিচারের অভাব সেটা আমরা দেখতে পাচ্ছি। এক দলের জন্য একটি নিয়ম অর্থাৎ ৭ খুন মাপ। অন্য দলের জন্য বিন্দু পরিমাণ ছাড় দেয় না।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, সারা বাংলাদেশে বিএনপির সমাবেশে অঘোষিত হরতাল, অবরোধ, যানবাহনের ধর্মঘট হচ্ছে। কাজেই আমরা বলতে চাই দেশের মানুষ আজ অবরুদ্ধ, অসহায়, ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত গণতন্ত্রহীন, সাংবাদিকতার স্বাধীনতা নেই। তাই এই সরকারের দুর্নীতি-দুঃশাসন, লুটপাট, বৈষম্য থেকে মানুষ মুক্তি চায়।

চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাসেম বক্কর বলেন, অমানবিক হত্যাকাণ্ডে আমরা বিএনপির পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সঙ্গে হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। বিএনপি অসহায় পরিবারের পাশে সব সময় ছিল, এখনো আছে। এই হত্যাকাণ্ডের বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমরা আপনাদের পাশে থাকবো।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আলহাজ এম এ আজিজ, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. মিয়া ভোলা, বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর সন্তান ইসরাফিল খসরু মাহমুদ চৌধুরী, নগর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কামরুল ইসলাম, ইপিজেড থানা বিএনপির সভাপতি সারফরাজ কাদের রাসেল, নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক এইচ এম রাশেদ খান, ইপিজেড থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রোকন উদ্দিন মাহমুদ, নগর বিএনপি নেতা নুরুজ্জামান, নগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি মো. আশরাফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমানসহ মহানগর, থানা, ওয়ার্ড বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল,স্বেচ্ছাসেবক দল ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা।

গত ১৫ নভেম্বর মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে অপহরণ করা হয় আয়াতকে। পরে তদন্তে নেমে গত ২৪ নভেম্বর আয়াতকে অপহরণ ও হত্যা জড়িত আবিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর আবির আয়াতকে হত্যা করে ৬ টুকরো করে খণ্ডিত অংশ নালায় ও সাগরে ফেলে দেওয়ার তথ্য জানায়। এরইমধ্যে পিবিআই আয়াতের খণ্ডিত পা দুটো এবং মাথার অংশ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় আরিব প্রথম দফায় দুইদিন রিমান্ড শেষে আদালতের আদেশে দ্বিতীয় দফায় বর্তমানে ৭ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। আবিরের বাবা-মা ও বোনকেও গ্রেফতার করেছে পিবিআই।

ইকবাল হোসেন/কেএসআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।