বাঁশখালীতে স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত করে আ’লীগের সম্মেলন!

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০০ এএম, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২
ছবি: সংগৃহীত

 

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বাঁশখালী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে চলমান বার্ষিক পরীক্ষার নির্ধারিত দিনের পরীক্ষা স্থগিত করে সাংগঠনিক সম্মেলন করছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। স্কুলটিতে মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের এ সম্মেলন অনুষ্ঠেয় হবে। এর মধ্যে স্কুল কর্তৃপক্ষ পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচিও নির্ধারণ করেছে। ৬ ডিসেম্বরের নির্ধারিত বিষয়ের পরীক্ষা পরবর্তী তারিখগুলোতে সমন্বয় করা হয়েছে।

এ নিয়ে সোমবার (৫ ডিসেম্বর) পরীক্ষার সংশোধিত সময়সূচি ঘোষণা করেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক মনোতোষ দাশ।

সূত্রে জানা গেছে— পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী ৬ ডিসেম্বর সকালে ষষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, অষ্টম শ্রেণির ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা এবং বিকেলে সপ্তম শ্রেণির বিজ্ঞান ও নবম শ্রেণির ইতিহাস, পদার্থবিজ্ঞান, ব্যবসায় উদ্যোগ বিষয়ের পরীক্ষা ছিল। সংশোধিত সূচি অনুযায়ী ৬ ডিসেম্বরের পরীক্ষা ১১ ডিসেম্বর নেওয়া হবে। একই সঙ্গে ১১ ডিসেম্বর সকালে নবম শ্রেণির পূর্বনির্ধারিত পৌরনীতি, জীববিজ্ঞান ও হিসাববিজ্ঞান বিষয়ের পরীক্ষা ১২ ডিসেম্বর এবং ১২ ডিসেম্বর সকালে নবম শ্রেণির পূর্বনির্ধারিত কৃষি শিক্ষা, গার্হস্থ্য বিজ্ঞান ও উচ্চতর গণিত পরীক্ষা নেওয়া হবে ১৩ ডিসেম্বর সকালে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মনোতোষ দাশ জাগো নিউজকে বলেন, ‘বার্ষিক পরীক্ষা হলেও পরীক্ষাটি আমাদের নিজের। নিজস্ব প্রশ্ন, নিজস্ব রুটিন। পরীক্ষা স্থগিত করায় কোনো সমস্যা হবে না। রাজনৈতিক কর্মসূচির কারণে আরও লাভ হয়েছে। ওনাদের সম্মেলনের কারণে আমার মাঠটি সংষ্কার হচ্ছে।’

অনেকটা একই সুরে বলেন স্কুলটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সাইদুজ্জামান চৌধুরী। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘এটা বোর্ড পরীক্ষা না, এটা ওই স্কুলের নিজস্ব পরীক্ষা। ওনারা (আওয়ামী লীগ নেতারা) আবেদন করেছেন প্রধান শিক্ষক বরাবরে। যেহেতু কম্বলসারি পরীক্ষা না, কাস্টমাইজ করা যাচ্ছে, সেহেতু প্রধান শিক্ষক জানিয়েছেন পরীক্ষায় কোনো সমস্যা হবে না। এখন পরীক্ষার সিজন কোনো ক্লাস হচ্ছে না। নিজস্ব পরীক্ষা, ওনারা পরে ওই পরীক্ষা নিতে পারবেন।’

তিনি বলেন, ‘ওনাদের (আওয়ামী লীগ নেতা) যুক্তি হচ্ছে, যেহেতু সম্মেলন হচ্ছে, ওনাদের একটু বড় জায়গা দরকার।’

বাঁশখালীতে অসংখ্য কমিউনিটি সেন্টার রয়েছে, বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত করে কেন সম্মেলন করতে হবে জানতে চাইলে ইউএনও বলেন, ‘ওটাতো বোর্ড পরীক্ষা না, এতে পরীক্ষার কোনো সমস্যা হয়নি।’

এ বিষয়ে জানতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমানকে ফোন করা হলে তিনি মিটিংয়ে ব্যস্ত থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৬ সালে সর্বশেষ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়েছিল। ওই সময় থেকে সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। পরে ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর মাঝখানে জাতীয় নির্বাচনে বিরোধীতা করায় তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমকে বরখাস্ত করা হলে অধ্যাপক আব্দুল গফুরকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এতদিন দায়িত্ব পালন করে এলেও গত তিন বছর ধরে দুইজনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। বর্তমানে ৫১ সদস্যের অধিকাংশ নেতাই মৃত্যুবরণ করেছেন। জীবিত নেতাদের মধ্যে মাত্র পাঁচজন রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন। বাঁশখালী আওয়ামী লীগে দুইধারায় বিভক্ত। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অনেকে এখন সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বিরোধী। এ বিরোধীপক্ষগুলো সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুল গফুরের সঙ্গে রাজনীতি করছেন।

জানা গেছে— সংসদ সদস্যদের উপজেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্ব না দেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও ফের সভাপতি হিসেবে সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী থাকতে চাইছেন। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুল গফুর, উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী মো. গালিব সাদলী, চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম, মুজিবুল হক চৌধুরী, আনম শাহদাত আলম প্রার্থী হচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

ইকবাল হোসেন/এমএএইচ/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।