সাধারণ ক্ষমা কাজে লাগান, সুযোগ বার বার আসে না

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:৩৪ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

অবৈধ অভিবাসীদের জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত সরকার। ১ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া তিন মাস মেয়াদি এই সাধারণ ক্ষমা কার্যকর থাকবে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত। অভিবাসীদের মধ্যে যাদের পাসপোর্ট নেই তাদের দ্রুত নতুন পাসপোর্ট করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সাধারণ ক্ষমা কাজে লাগাতে বলা হয়েছে, কারণ সুযোগ বার বার আসে না।

বাংলাদেশ দূতাবাস ও দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট এসে এ পাসপোর্ট করানোর জন্য তাগিদ দিয়েছেন আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ডা. মোহাম্মদ ইমরান।

সম্প্রতি আবুধাবিস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কনফারেন্স রুমে দূতাবাসের উদ্যোগে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় রাষ্ট্রদূত সকল অবৈধ বাংলাদেশি অভিবাসীদেরকে ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পাসপোর্ট সংক্রান্ত কাজ সম্পন্ন করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, অন্যথায় এ ধরনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কেননা আগামী অক্টোবর মাসের ৩১ তারিখ সাধারণ ক্ষমার সময়সীমা শেষ হবে। তাই এ চলতি মাসের ২০ তারিখের মধ্যে যেকোন ধরনের সমস্যা থাকুক না কেন, সবাইকে দূতাবাস ও কনস্যুলেটে আসার আহ্বান জানান তিনি।

এ পর্যন্ত প্রায় ১২ হাজার অবৈধ অভিবাসীকে পাসপোর্ট বানানোর সুযোগ দিয়েছে আবুধাবিস্থ দূতাবাস ও দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট। তিনি বলেন, এখন থেকে অবৈধ অভিবাসীদের ভিসা যে প্রদেশেরই হোক না কেন, দুবাই বা আবুধাবী দূতাবাসে এলে পাসপোর্ট বানানোর সুযোগ দেয়া হবে। দুবাই কনস্যুলেট থেকে পাসপোর্ট কপি না থাকায় যাদেরকে পাসপোর্ট বানানোর সুযোগ দেয়া হয়নি তাদেরকেও এখন থেকে পাসপোর্ট কপি ছাড়া পাসপোর্ট বানানোর সুযোগ দেয়া হবে বলে জানান রাষ্ট্রদূত।

তিনি আরও বলেন, দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটে সেবার মান বৃদ্ধি ও প্রবাসীদের সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দেয়ার ব্যাপারে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাই দুবাই ও উত্তর আমিরাতের সকল প্রবাসীকে দুবাই কনস্যুলেট থেকে সেবা নেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে যারা ভিজিট ভিসায় এসে অবৈধ হয়ে সাধারণ ক্ষমার সুযোগ নেয়ার আশা করছেন, তাদের মধ্যে যারা ৩১ জুলাই এর আগে অবৈধ হয়েছিলেন তাদের জন্য এই সুযোগ। আর ৩১ জুলাইয়ের পর যারা অবৈধ হয়েছেন তারা এই সুযোগ পাবেন না। সুতরাং সবাইকে সাবধান থাকার পরার্মশও দিয়েছেন রাষ্ট্রদূত।

সাধারণ ক্ষমার এই সময়ের মধ্যে প্রায় ১ হাজার প্রবাসী আউট পাশ নিয়ে দেশে গিয়েছেন বলেও জানান তিনি। যারা ছয় মাসের জব সিকার ভিসা পেয়েছেন তাদেরকে আমিরাতের লেবার মিনিস্ট্রি থেকে ভিসা দেয়া হচ্ছে। তারা যে কোনো কোম্পানিতে ভিসা লাগাতে পারবেন। তবে নতুন নিয়োগ ও ট্রান্সফার ভিসা সংক্রান্ত জটিলতার সমাধান এখনো হয়নি। আর পাসপোর্ট এর রশিদ নাম্বার যাদের এআরই ৪১৯৯৯৯ এর মধ্যে আছে তাদের সকলের পাসপোর্ট দেশ থেকে দূতাবাসে চলে এসেছে এবং তাদের সবাইকে বাংলাদেশ মিশন থেকে পাসপোর্ট গ্রহণ করার আহ্বান জানান রাষ্ট্রদূত।

এমআরএম/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com