শিগগিরই মালয়েশিয়ায় এক্সচেঞ্জ ভবন উদ্বোধন

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৭:২৪ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০১৯

মালয়েশিয়া টুইন টাওয়ার স্থাপন করে ইতিহাসে নাম লিখিয়েছিল। পৃথিবীকে আবারও তাক লাগাতে পর্যটন নগরী মালয়েশিয়ায় তৈরি হচ্ছে ১১৮ তলা বিশিষ্ট ভবন ‘মারদেকা পিএনবি ১১৮’। ১১৮ তলার কাজ সম্পন্ন হবে ২০২০ সালে। এর আগে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দীর্ঘতম বিল্ডিং কুয়ালালামপুরে নির্মিত এক্সচেঞ্জ ১০৬ সর্ব সাধারণের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

নবনির্মিত এক্সচেঞ্জ ১০৬ ভবনটি শিগগিরই উন্মুক্ত করে দেয়া হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। ৪৯২ মিটার উচ্চতার এক্সচেঞ্জ ১০৬, ৪৫২ মিটার উচ্চতার মালয়েশিয়ার দীর্ঘতম আকাশচুম্বী ভবন পেট্রোনাস টুইন টাওয়ারকেও ছাড়িয়ে গেছে। এটি এই অঞ্চলের আগের সবচেয়ে লম্বা বিল্ডিং, ভিয়েতনামের ৪৬৯.৫ মিটার উঁচু ল্যান্ডমার্ক ৮১ প্রকল্পটিকে সিংহাসনচ্যুত করেছে। যদিও এক্সচেঞ্জ ১০৬ বিশ্বের সবচেয়ে উচু স্থাপনা ৮৩০ মিটার উচ্চতার দুবাইয়ের বুর্জ খলিফার তুলনায় যথেষ্ট ক্ষুদ্রাকার।

এক্সচেঞ্জ ১০৬ এবং টিআরএক্স ইন্দোনেশীয়ান ডেভেলপার মুলিয়া প্রোপার্টি দেশটির অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে টাওয়ারের কাজ সম্পন্ন করলেও এক্সচেঞ্জের ১০৬ বিল্ডিং এর নির্মাণ ব্যয় কত তা এখনও জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি। সম্প্রতি এটির নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয় ও ছাড়পত্রও পায়। ফলে ১০৬ তলাজুড়ে তার ৪.৯ মিলিয়ন বর্গফুট জায়গায় অফিস স্থানান্তরিত করার জন্য ভাড়াটিয়াদের অনুমতি দেয়।

southeast

‘এক্সচেঞ্জ ১০৬ মালয়েশিয়ার বৃহত্তম কলামবিহীন ২২০০০ বর্গফুট থেকে ৩৪, ০০০ বর্গফুট দীর্ঘ পর্যন্ত অফিসের জন্য জায়গা নির্ধারিত। এগুলো খুবই নমনীয়ভাবে বিন্যাস করে ওপেন প্লান ইন্টেরিওর কনফিগারেশন করে ডিজাইন করা হয়েছে।

মুলিয়া প্রপার্টি ডেভেলপমেন্টের প্রধান জোয়ান আং-বলেন, ডিসেম্বরের মধ্যে প্রথম ভাড়াটে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে, অনেকে বলছেন, এক্সচেঞ্জ ১০৬ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দীর্ঘতম হয়ে বেশিদিন টিকে থাকতে পারবে না কারণ নির্মাতারা এই স্থাপনার বেশ কাছাকাছি অবস্থিত ৫০০ মিটার-উচ্চতার মারদেকা পিএনবি ১১৮ শেষ করতে ব্যস্ত।

টাওয়ারটির সরকারি নাম মারদেকা পিএনবি ১১৮। মারদেক মানে মালয়েশিযার স্বাধীনতা দিবস। এটি সাবেক মারদেকা পার্কের জায়গায় নির্মিত হচ্ছে। পিএনবি হচ্ছে পারমডালান ন্যাশনাল বারহাদের সংক্ষিপ্তসার, যা মালযেশিয়ার বৃহত্তম তহবিল ব্যবস্থাপনা সংস্থা এবং টাওয়ারের মালিক। এটি কুয়ালালামপুরে জালান হ্যাং জিবাত, মারদেকা স্টেডিয়ামের কাছাকাছি অবস্থিত একটি সাইটে নির্মিত হচ্ছে।

southeast

মারদেকা স্টেডিয়ামটি কুয়ালালামপুরে একটি ঐতিহাসিক ল্যান্ডমার্ক, যেখানে মালয় ফেডারেশনের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয় এবং কুয়ালালামপুরে উদযাপন ও খেলাধুলা ইভেন্টের জন্য একবার প্রধান স্থান ছিল। স্টেডিয়ামটি দুটি কনসার্টসহ বেশ কযেকটি প্রধান কনসার্ট হোস্ট করেছিল। অক্টোবর ১৯৯৬ সালে মাইকেল জ্যাকসন কর্তৃক অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড ট্যুরের দুটি কনসার্ট সাইটটিতে দেখার জন্য ১ লাখ ১০ হাজার মানুষকে আকৃষ্ট করেছিল।

মারদেকা পিএনবি নির্মিত হলে, অন্য দুটি ল্যান্ডমার্কের পাশাপাশি টাওয়ার, কেএল টাওয়ার এবং পেট্রোনাস টাওয়ারগুলো একই লাইনের পাশে দাঁড়িয়ে থাকবে, কেএল টাওয়ারটি মাঝের বিন্দুর পাশে দাঁড়িয়ে থাকবে। মারদেকা পিএনবি ১১৮ টাওয়ারে প্রবেশ করার সর্বোত্তম উপায় মেট্রোর মাধ্যমে।
ভবনটির উচ্চতা ৬৪৪ মিটার (২১১৩ ফুট), টাওয়ারটির ছাদ ৫শ’ মিটারেরও বেশি হবে, কারণ এটি সর্বোচ্চ দখলকৃত তল ৫০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত।

চলতি বছর মে মাসে মারদেকা পিএনবি ১১৮ এর পরিকল্পিত উচ্চতা ৬৬৬ মিটার (২১৮৫ ফুট) বৃদ্ধি করা হয়েছিল, টাওয়ারটিতে দীর্ঘতর স্পিনার থাকবে এবং পরিকল্পিতভাবে ছাদের উচ্চতা একই থাকবে।

southeast

২০২১ সালের মধ্যে যদি টাওয়ারটি পূর্ণতা পায়, তবে এটি বিখ্যাত পেট্রোনাস টাওয়ারস এবং এক্সচেঞ্জ ১০৬ (একটি ৪২২ মিটার বিল্ডিং যা ২০১৮ সালে নির্মিত হয়) অতিক্রম করবে এবং মালয়েশিয়ায় লম্বা ভবন এবং বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম ভবনটি অতিক্রম করবে।

মারদেকা পিএনবি ১১৮ এর মালিক হিসাবে এটির নাম প্রস্তাব করা হয়েছে পারমোডালান ন্যাশনাল ভড (পিএনবি) গ্রুপ। এই গ্রুপটির মালিকানাধীন পিএনবি মারদেকা ভেন্টারস এসডিএনবিএইচডি নামে পরিচিত তার সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সহায়কগুলোর মধ্যে একটি।

southeast

টাওয়ারের ১১৮টি মেঝে থাকবে, পডিয়াম মেঝে খুচরা দোকানে বা শপিং মল দ্বারা আবৃত করা হবে। এর উপরে ৮০টি মেঝে অফিসের স্থান হিসাবে ব্যবহার করা হবে, এই ৮০টি অফিসের মেঝেগুলোর ৬০টি হবে পারমডালান ন্যাশনাল বারহাদ (পিএনবি) সদর দফতর, যা ভবনটির মালিক এবং বিকাশকারী ও এটির নামকরণকারী সংস্থা টাওয়ারও।

southeast

২০১০ সালে মারদাকে পিএনবি ১১৮ প্রস্তাব করা হয়েছিল। এটির ডিজাইন বেশ কয়েকটি পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছে। ২০১৪ সালে শুরু হওয়া টাওয়ারের নির্মাণ কাজটি পিন্টারাস জিওটেকনিক এসএনএন ভদকে পিলিং ও ফাউন্ডেশনের কাজ করার জন্য নির্বাচিত করা হয়েছিল। ডিসেম্বর ২০১৪ পর্যন্ত অর্ধেকেরও বেশি ভিত্তি নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছিল।

পারমোডালান ন্যাশনাল বেরহাদ দ্বারা নির্মিত, এটি আগামী বছরের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এমআরএম/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]