সিডনিতে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন

মো. আবুল কালাম আজাদ
মো. আবুল কালাম আজাদ মো. আবুল কালাম আজাদ , অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:১৭ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০১৯

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। সারা বছর বিভিন্ন দেবদেবীর পূজা হয়। তার মধ্যে দুর্গাপূজা বাঙালির সেরা উৎসব। এই পূজা শুধু মূর্তি পূজা নয়; এই পূজা দেবী দুর্গা পূজা। এই পূজায় দেবীকে স্বর্গ থেকে নেমে মর্তে এনে পূজা করা হয়। বহুদিন ধরে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের মনে একটা দাগ কেটে গিয়েছে যা পরে তাদের শ্রেষ্ঠ পূজায় পরিণত হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলো শারদীয় দুর্গাপূজা। পুরো অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সিডনিতেই পূজা হয়। সিডনিতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি হিন্দুদের সংগঠনগুলোর উদ্যোগে কয়েক বছর ধরে আয়োজন করে আসছে। এখানে কমিউনিটি সেন্টারগুলোতে অস্থায়ী পূজামণ্ডপ তৈরি করে এই পূজা উদযাপন করে।

‘আগমনী অস্ট্রেলিয়া পূজা কমিটি’ সিডনিতে একটি বড় সংগঠন যা গত ৪ বছর যাবৎ পূজা উৎসবের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। দুর্গাপূজা মূলত পাঁচদিনের অনুষ্ঠান যা একমাত্র আগমনী সংগঠনই তা শুদ্ধতার সাথে পালন করে থাকে। গত ৪ অক্টোবর শুক্রবার থেকে ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার গ্লেন্ডফিল্ড কমিউনিটি হলে আগমনী অস্ট্রেলিয়া পূজা কমিটি দুর্গাপূজা পালন করে।

এখানে পূজার সময় মন্দিরে ভক্তিমূলক গান, চণ্ডীপাঠ, অঞ্জলি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ভক্তদের শ্রদ্ধার্ঘ্য এবং সেই সঙ্গে প্রণাম, আশীর্বাদ ইত্যাদি দুর্গোৎসবকে ধর্মীয় আবেশে আনন্দঘন করে তোলে।

আগমনী অস্ট্রেলিয়া পূজা কমিটির কো-অর্ডিনেটর তাপস পাল বলেন, শারদীয় দুর্গোৎসব হিন্দু ধর্মাবলম্বীদেরকে হিংসা-বিদ্বেষ ও দ্বন্দ্ব-সংঘাতের অশুভ প্রভাব থেকে মুক্ত করে তাদের মধ্যে সম্প্রীতি ও সহমর্মিতা প্রতিষ্ঠা করে ঐক্যবদ্ধ করে তোলে।

অস্ট্রেলিয়ায় অন্যান্য সংগঠনগুলো ব্যস্ততার জন্য এক বা দুইদিন শারদীয় দুর্গোৎসব উদৎযাপন করে ও আনন্দ উৎসবে অংশগ্রহণ করে। পূজা উদযাপন সংগঠনের তথ্য অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ায় প্রায় ১০ হাজার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন বসবাস করে।

এমআরএম/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]