লন্ডনে ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের জমকালো আসর ২৫ নভেম্বর

ফিরোজ আহম্মেদ বিপুল
ফিরোজ আহম্মেদ বিপুল ফিরোজ আহম্মেদ বিপুল
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ এএম, ২১ নভেম্বর ২০১৯

কারিকে অভিজাত শিল্পে পরিণত করার লক্ষ্যে ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের ১৫তম রাজকীয় আসর হতে যাচ্ছে ২৫ নভেম্বর। লন্ডনের বাটারসির আয়োজকদের তৈরি করা দৃষ্টিনন্দন ভেন্যুতে এটি অনুষ্ঠিত হবে।

জানা গেছে, এবারের অনুষ্ঠানে এমন কিছু থাকবে যা ইতোপূর্বে ছিল না। প্রতিবারই ভিন্ন ভিন্ন থিমকে সামনে রেখে এই অনুষ্ঠানকে সাজানো হয়। এবারে তুলে ধরা হবে নিউ ইয়র্ক ব্রডওয়ের সংস্কৃতিকে।

কারি অ্যাওয়ার্ডের ইতিহাসে দেখা যায়, ব্রিটিশ রাজ পরিবারের সদস্য, টিভি ও ফিল্ম ব্যক্তিত্ব এবং ডাচেস অব ইয়র্ক সারাহ ফার্গুসনের হীরা খচিত পাদুকার সাথে একেবারে বাঙালি বধূর সাজে শাড়ি পরে লাল গালিচায় হাটা যেভাবে আকর্ষণ করেছিল দর্শকদের, যেভাবে বাঙালি তরুণীর সাঁজে অংশ নিয়ে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে।

London

এবার ভিন্ন রকম রকম ইন্টারন্যাশনাল কোরিওগ্রাফারের নৈপুণ্যে বিশ্বমানের লাইভ বিনোদনসহ নতুন কিছু দেখতে পাবেন ১৫তম কারি অ্যাওয়ার্ডের দর্শকরা।

আইটিএন-এর জরিপে সারা বিশ্বে ৪৩৫ মিলিয়ন মানুষের কাছে পৌঁছানো ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের এবারের বিশাল আয়োজনে মূলধারার সেলিব্রেটিদের ঢল নামবে বলে জানা গেছে।

ব্রিটিশ কারি এওয়ার্ডের প্রথা অনুযায়ী এবারও নিত্য-নতুন বিষয়ের পাশাপাশি অনুষ্ঠানের সেলিব্রিটি অতিথিদের নাম জানতে অপেক্ষা করতে হবে অনুষ্ঠানের দিন পর্যন্ত।

London

সরকারের সাথে কারি শিল্পের ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে টেকওয়েযুক্ত রেস্টুরেন্টের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সাফল্য এবং আরো বিভিন্ন বিষয়ে নতুন নতুন উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের প্রতিষ্ঠাতা এনাম আলি এমবিই।

তরুণ প্রজন্মকে কারি শিল্পে উৎসাহিত করা ও বিশ্বের সাথে কারি শিল্পের সংযোগ স্থাপন করাই এ অ্যাওয়ার্ডের অন্যতম উদ্দেশ্য বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

কারিশিল্পের উন্নয়নে যারা সারা বছর রাতদিন পরিশ্রম করে থাকেন সেসব রন্ধন শিল্পী, রেস্টুরেন্টের মালিক, শুভানুধ্যায়ী ও কারি অনুরাগী কাস্টমারদের প্রতিবছর ব্রিটিশ কারি অ্যওয়ার্ডের পক্ষ থেকে লাল গালিচা দিয়ে স্বাগত জানানো হয়।

ফিরোজ আহমেদ, লন্ডন থেকে/এমআরএম/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com