ইতালিতে নাগরিকত্ব আইন ফের পুরাতনে ফিরে যাবার প্রস্তাব

জমির হোসেন
জমির হোসেন জমির হোসেন , ইতালি প্রতিনিধি ইতালি
প্রকাশিত: ০৮:৪০ এএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

ইতালিতে বহুল আলোচিত নাগরিকত্ব আইন পরিবর্তনের প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। অভিবাসীদের পাসপোর্ট পাওয়ার বিষয়টি সহজ করতে প্রস্তাবটি আইন সভায় উত্থাপন করেছে দেশটির বর্তমান জোট সরকার। বাংলাদেশি কোনো নাগরিক ইতালির নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করলে সব ঠিক থাকলে প্রক্রিয়া শেষ হয়ে পাসপোর্ট হাতে পেতে আগে সময় লাগত দুই বছর। নতুন আইনে সময় লাগবে চার বছর, যা বাংলাদেশি প্রবাসীদের জন্য এ আইন চরম দুর্ভোগের কারণ। ফলে ইতালির নাগরিকত্ব পেতে হতাশা ভোগ করতে হচ্ছে বাংলাদেশিসহ অভিবাসীদের।

এর আগে ইতালির নাগরিকত্বের জন্য আবেদনের দুই বছর অথবা ৭৩০ দিন অপেক্ষার পর বাংলাদেশিরা নাগরিকত্ব পেতেন। কিন্তু গত বছর ডিসেম্বরে কট্টর অভিবাসীবিরোধী সাবেক সরাষ্ট্রমন্ত্রী মাত্তেও সালভিনি অভিবাসী ও নিরাপত্তা আইনে দুই বছরের সঙ্গে আরও দুই বছর বৃদ্ধি করেন। ফলে একজন অভিবাসীকে ইতালিয়ান পাসপোর্ট পেতে প্রায় ১৪ বছর অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এর মধ্যে কোনো আইনি সমস্যা থাকলে নাগরিকত্ব অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

Italy

প্রবাসী বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের জন্য কিছু কিছু আইনে শিথিলতা আনার চেষ্টা করছেন বর্তমান জোট সরকার ডেমোক্রেটিক পার্টি (পিডি) ও ফাইভস্টার মুভমেন্ট (চিনকুয়ে স্তেল্লা)। এরই ধারাবাহিকতায় সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর ইতালিয়ান নাগরিকত্ব সংস্কার আইনে সালভিনির অনুমোদিত প্রধান অংশগুলো সংশোধনের উদ্যোগ নেন। গেল বছর সেপ্টেম্বরে এ বিষয়ে প্রাথমিকভাবে পদক্ষেপ নেয়ার পর অক্টোবরে ইতালির আইন সভায় (কামেরা ) সংবিধান সংস্কারের জন্য নতুন নিয়ম সম্পর্কিত প্রস্তাব উত্থাপন করে।

এ ব্যাপারে প্রবাসী বাংলাদেশিরা মনে করে, যদি পূর্বের নিয়মে নাগরিকত্ব আইন ফিরে আসে, তবে অনেকেই দ্রুত ইতালিয়ান পাসপোর্ট পেতে যাবেন। সব কিছু ঠিক থাকলে নতুন নাগরিকত্ব আইন চূড়ান্ত গেজেট আকারে প্রকাশের সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশিদের কাগজপত্রে চরম অনিয়ম ও অর্থের বিনিময়ে নির্দিষ্ট সময়ের পূ্র্বে নাগরিকত্ব পাওয়ার একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ অনিয়ম রুখতে সরকার পাসপোর্ট পেতে দুই বছরের পরিবর্তে চার বছরের প্রস্তাব করেছে নতুন নাগরিকত্ব আইনে।

এসআর/পিআর

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]