রিয়াদের পর দাম্মামেও বাংলাদেশিদের জন্য বিশেষ সুযোগ চালু

আব্দুল হালিম নিহন
আব্দুল হালিম নিহন আব্দুল হালিম নিহন , সৌদি আরব প্রতিনিধি সৌদি আরব
প্রকাশিত: ০৪:২৪ পিএম, ২২ জানুয়ারি ২০২০

রিয়াদের পর এবার সৌদি আরবের দাম্মামেও অবৈধ বাংলাদেশি প্রবাসীদের জন্য দেয়া বিশেষ সুযোগ চালু করা হয়েছে। এ সুবিধা যেন প্রবাসীরা সহজেই গ্রহণ করতে পারেন, সেজন্য রিয়াদ দূতাবাসের একটি টিম দাম্মামের ফয়সালিয়া নামক স্থানে একটি ইস্তেরাহারে তিন দিনের সেবা প্রদান করছে।

রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসের লেবার উইংয়ের প্রথম সচিব মো. আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি টিম সেখানে এ সেবা প্রদান করছে।

সেবা প্রদান স্থানে গিয়ে দেখা যায়, সুযোগটি নেয়ার জন্য দাম্মাম এবং এর আশপাশের শহর থেকে প্রায় দুই হাজারেরও বেশি প্রবাসী সেখানে উপস্থিত হয়েছেন।

এদিকে ২১ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এ সেবা চলবে ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত। পরবর্তীতে প্রয়োজন হলে আবারও রিয়াদ দূতাবাসের টিম এই সেবা প্রদান করবে।

soudia-2

এদিকে প্রথম সচিব মো. আসাদুজ্জামান জানান, সকাল থেকে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশির উপস্থিতি ছিল। আমরা চেষ্টা করছি, এই তিন দিনে দাম্মাম এবং এর আশে পাসের শহর থেকে আসা প্রবাসীদের সুন্দরভাবে সেবা প্রদান করতে। অনেকে আছেন এ সেবা সম্পর্কে অবগত নন তাদের অবগত করছি। তবে এটি সৌদি সরকারের দেয়া বিশেষ সুযোগ। এটিকে কোনোভাবে সাধারণ ক্ষমার মতো দেখার উপায় নেই। কারণ এই সুযোগে সবাই চাইলেও দেশে যেতে পারবেন না। আর দেশে গেলেও আসতে পারবেন না। যাদের হুরুব রয়েছে তারা আসতে পারবেন না। যাদের মামলা আছে, যারা হাউজ ড্রাইভার, আমেল মঞ্জিল, কিংবা নারী গৃহকর্মী তারা এই সুযোগের আওতায় আসছেন না।

অন্য দিকে যারা ফাইল জমা দিয়েছেন কিন্তু এখনো ম্যাসেজ আসেনি সেই বিষয়ে তিনি বলেন, 'এ সুযোগ কেবল বাংলাদেশিদের জন্য দেয়া হয়নি, পাশাপাশি অন্যান্য দেশের জন্যও চলমান আছে। যেমন ইন্ডিয়া, পাকিস্তান, নেপাল ইত্যাদি দেশের জন্য আর তাই সবাইকে অপেক্ষা করতে হবে। কারণ প্রতিদিন হাজার হাজার ফাইল জমা হচ্ছে। তবে যে সকল শহরগুলোতে লোক সংখ্যা কম সে সকল শহরে অনেকে ম্যাসেজ পেয়েছেন এবং দেশেও গিয়েছেন। তারপরেও যদি কারো কাছে ম্যাসেজ না যায় হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। সৌদি জাওয়াযাত থেকে একটি সময়ে সবার নম্বরে অনলাইনে ছেড়ে দেবেন এবং এর একটি ফাইল রিয়াদ দূতাবাসেও আসবে। তবে তার জন্য সকল প্রবাসীদের অপেক্ষা করতে হবে।'

এফআর/পিআর

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]