গ্রিসের এসাইলাম মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতের সভা

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৫৯ এএম, ২২ মে ২০২০

 

গ্রিসে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জসীম উদ্দিনের সঙ্গে গ্রিসের মাইগ্রেশন পলিসি ও এসাইলাম মন্ত্রণালয়ের সেক্রেটারি জেনারেল পেত্রোক্লস গিওরগিয়াদিসের একটি অনলাইন সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২১ মে) অনুষ্ঠিত ওই সভায় গ্রিসে বসবাসরত প্রবাসীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

বাংলাদেশের সঙ্গে গ্রিসের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে সভায় রাষ্ট্রদূত বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতেও দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার সুযোগ রয়েছে। তিনি বলেন, গ্রিসে বসবাসরত বাংলাদেশিরা দুই দেশের মধ্যে সেতুবন্ধের কাজ করছেন। প্রবাসীরা কৃষি, তৈরি পোশাক, রেস্তোরাঁর মতো গুরুত্বপূর্ণ খাতে কাজ করে শুধু বাংলাদেশের অর্থনীতিতেই নয়, একইসঙ্গে গ্রিসের অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন। এজন্য তাদের সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করতে দুই দেশের সরকার একযোগে কাজ করে যেতে পারে। এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত প্রবাসীদের নানা ধরনের সমস্যার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের লক্ষ্যে তাদেরকে বৈধতা দেয়ার কথা উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশিরা স্থানীয় নিয়ম অনুসরণ করে অত্যন্ত সুনামের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন।

বৈধ এবং নিয়মিত পথে অভিবাসনের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত জসীম উদ্দিন বলেন, বৈধ পথে বাংলাদেশ থেকে গ্রিসে কর্মী নিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি হলে অবৈধ পথে কর্মী আসার প্রবণতা হ্রাস পাবে এবং এর ফলে দুই দেশ সমানভাবে উপকৃত হবে। ২০১৮ সালে মানোলাদায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশি শ্রমিকদের বসবাস ও কাজের সুবিধার জন্য স্মার্টকার্ড প্রদানের সিদ্ধান্তের জন্য তিনি সেক্রেটারি জেনারেলকে ধন্যবাদ জানান।

সেক্রেটারি জেনারেল জিওরগিয়াদিস অভিবাসন বিষয়ে দূতাবাসের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়ে বলেন যে, এই বিষয়ে বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে পারস্পরিকভাবে লাভজনক সহযোগিতার সুযোগ রয়েছে এবং এই লক্ষ্যে তার মন্ত্রণালয় দূতাবাসের সঙ্গে কাজ করে যেতে আগ্রহী। তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের সমস্যা এবং বৈধপথে কর্মী আনার বিষয়সহ বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত উত্থাপিত বিষয়গুলো নিয়ে আলাপ আলোচনা অব্যাহত রাখার ওপর জোর দেন।

এই বিষয়ে আরও সুনির্দিষ্ট আলোচনার জন্য শিগগিরই দ্বিতীয় সভা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় ডিরেক্টর অব মাইগ্রেশন পলিসি মি. মিখালিস কসমিদিস ও দূতাবাসের কাউন্সিলর (শ্রম) ড. সৈয়দা ফারহানা নূর চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

এসআর/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com