আনোয়ার ইব্রাহিম প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না: মাহাথির

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি মালয়েশিয়া
প্রকাশিত: ০৬:৩৭ পিএম, ০১ জুলাই ২০২০

ডা. মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, আনোয়ার ইব্রাহিমের জনপ্রিয়তা না থাকায় প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন না। পাকাতান হারাপানের প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনের অচলাবস্থা অব্যাহত থাকায় দাতুক সেরি আনোয়ার ইব্রাহিম উপযুক্ত প্রার্থী নন। কারণ পিকেআর সভাপতি মালয়েশিয়ার কাছে জনপ্রিয় নন বলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী তুন ডা. মাহাথির সিএনবিসির এক সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, যে কোনো দলের পক্ষে নির্বাচনে জয়ের জন্য মালয়েশিয়ার সমর্থন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ‘যেহেতু তিনি জনপ্রিয় নন, সেহেতু এই নির্বাচনে জয়ী হওয়ার জন্য তার এমন কাউকে দরকার যারা মালয়েশিয়ার নেতা’।

বুধবার সিএনবিসির সাক্ষাৎকারে ডা. মাহাথির বলছিলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থী হিসাবে আমি মনে করি আমরা জনগণের সমর্থন পাব’। বিগত তিনটি সাধারণ নির্বাচনে আনোয়ার মালয় ভোট পেতে ব্যর্থ হয়েছেন। আমি যোগ দিয়েছিলাম বলেই গত পার্লামেন্ট নির্বাচনে আমরা জিততে পেরেছি এবং এটি একটি অর্জন।

তিনি বলেন, ‘৬০ বছর ধরে একই দল সরকারে ছিল। এই প্রথমবারের মতো পরিবর্তন সাধিত হয়েছিল’। এদিকে ড. মাহাথির এবং আনোয়ারের দলগুলি এখন প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পাকাতানের পছন্দকে কেন্দ্র করে স্টাফ অফে জড়িয়ে পড়েছে’।

গত ৩০ জুন, পার্টি আমানাহ নেগারা (আমানাহ) যোগাযোগ পরিচালক খালিদ আবদুল সামাদ বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর পদে পার্টি ওয়ারিশান সাবাহের প্রধান দাতুক সেরি শাফি আপদেলের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। এ বিষয়ে শিগগিরই জোটের প্রেসিডেন্ট কাউন্সিল ডাকা হবে।

ডিএপি সেক্রেটারি-জেনারেল লিম গুয়ান ইঞ্জিনিয়ারও বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পাকাতানের সকল জোটের শরিকদের সমর্থন থাকতে হবে। পিকেআরতে এমপিদের সংখ্যা ৩৯, ডিএপি ৪২, আমানাহ ১১-এ দাঁড়িয়েছে।

ডা. মাহাথিরের চার সাবেক চার পার্টি, প্রিয়ভূমি বেরসাতু মালয়েশিয়ার (বেরসাতু) সাংসদ এবং শাফি আপদলের নেতৃত্বে নয়টি পার্টির ওয়ারিশান সাবাহ (ওয়ারিশান) সাংসদের সমর্থন রয়েছে।

অচলাবস্থার অবসান ঘটাতে এবং সাবাহ ও সারাওয়াকের সংসদ সদস্যদের সমর্থন আদায়ের জন্য তিনি সম্প্রতি শফির নাম প্রধানমন্ত্রী করার প্রস্তাব করেছিলেন।

তবে, আনোয়ারের সাথে জোটবদ্ধ দলগুলি এই প্রস্তাবটির কেউ সমালোচনা করেননি। এদিকে শাফি বলছেন, নাম প্রকাশের জন্য তিনি কৃতজ্ঞ। তবে তার দলের সহকর্মীদের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

এমআরএম/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]