মালয়েশিয়া পুলিশের উপ-প্রধানের সঙ্গে হাইকমিশনারের বৈঠক

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি মালয়েশিয়া
প্রকাশিত: ০৩:২৫ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

মালয়েশিয়া পুলিশের উপ-প্রধান আইজিপি দাতুশ্রী আচ্রিল সানি বিন হাজী আবদুল্লাহ সানির সঙ্গে বৈঠক করেছেন বাংলাদেশের হাইকমিশনার মহ. শহীদুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রয়েল মালয়েশিয়া পুলিশের প্রধান কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হয়। বিশেষ করে করোনা পরিস্থিতির কারণে ছুটিতে দেশে থাকা বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়ায় ফিরে আসা এবং অবৈধদের বৈধতা প্রদানের বিষয়ে আলোচনা করেন তারা।

হাইকমিশনার করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় মালয়েশিয়া সরকারের সফলতার কথা উল্লেখ করে বলেন, মালয়েশিয়ার পুলিশ এই মহামারির সময়ে বিদেশি নাগরিক, বিশেষ করে বাংলাদেশি নাগরিকদের কাছে হাইকমিশনের সেবা পৌঁছাতে সহযোগিতা করেছে এবং লকডাউন করা ভবনের বাংলাদেশি নাগরিকদের সেবা প্রদান করে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে, যা বাংলাদেশেও প্রশংসিত হয়েছে।

এ সময় মালয়েশিয়া পুলিশের উপপ্রধান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাহসিকতার সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করছেন উল্লেখ করে বলেন, এমন মহামারির সময়েও ১২ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে আশ্রয়, খাবার, চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে বিশ্বে অনন্য নজির স্থাপন করেছে বাংলাদেশ সরকার।

তিনি আরও বলেন, অধিকাংশ বাংলাদেশি কর্মী ভালো। তারা কাজে অনেক দক্ষ, সৎ ও আন্তরিক। তবে কিছু অংশ অপরাধের সাথে জড়িত, বিশেষ করে প্রতারণা, সন্ত্রাসী, অপহরণ, চাঁদাবাজি, জাল কাগজ তৈরি, মানবপাচার এবং অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় অপপ্রচার করে থাকে। এসব অপরাধ উভয় দেশের ভাবমূর্তির জন্য ক্ষতিকর। অপরাধী যেই হোক আইনের আওতায় মোকাবিলা করা হয়।

Malyasia

বাংলাদেশি কর্মীরা তাদের কর্মস্থলে আসা-যাওয়ার সময় যেন কোনো প্রকার হয়রানি বা গ্রেফতার না হয়, সে বিষয়ে অনুরোধ করেন হাইকমিশনার। এ সময় মালয়েশিয়া পুলিশের উপপ্রধান বলেন, পুলিশ নিরাপত্তার জন্য আইন অনুযায়ী নিয়মিত চেক করে তখন পাসপোর্ট এবং প্রাসঙ্গিক কাগজপত্র সঙ্গে রাখতে হবে।

শহীদুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে মালয়েশিয়া থেকে ছুটিতে দেশে গিয়ে অনেক কর্মী মালয়েশিয়ায় আসার জন্য অপেক্ষা করছেন, তারা যেন আবার কাজে যোগ দিতে পারে সে বিষয়ে এবং ডিটেনশন সেন্টারসহ অন্যান্য যারা অবৈধ আছেন তাদের বৈধতা প্রদানে পুলিশের সহযোগিতা কামনা করেন। পুলিশের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন আইজিপি।

দুই দেশের পুলিশের প্রশিক্ষণ, সেমিনার-সিম্পোজিয়াম, বৈশ্বিক নিরাপত্তা ও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস নির্মূলে পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন তারা।

বৈঠকে বাংলাদেশ হাইকমিশনের ডিফেন্স এডভাইজার কমোডর মুশতাক আহমেদ, কাউন্সিলর (শ্রম) মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম, কাউন্সিলর (শ্রম ২) মো. হেদায়েতুল ইসলাম মন্ডল এবং মালয়েশিয়া পুলিশের ইন্টারনাল সিকিউরিটি ও পাবলিক অর্ডার ডিপার্টমেন্টের ডেপুটি ডিরেক্টর দাতু আজরি বিন আহমাদ, সিআইডির ডেপুটি ডিরেক্টর দাতু মহ আজমান বিন আহমদ সাপরি, রয়েল মালয়েশিয়া পুলিশের সেক্রেটারি ডিসিপি দাতু রামলি মোহাম্মদ ইউসুফ এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ইউনিটের প্রধান রাজগোপাল রামদাস উপস্থিত ছিলেন।

এমএসএইচ/পিআর

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]