অস্ট্রিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসে বিজয় দিবস উদযাপন

রাকিব হাসান রাফি
রাকিব হাসান রাফি রাকিব হাসান রাফি , স্লোভেনিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:৫৪ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০

যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনায় অস্ট্রিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে উদযাপিত হয়েছে ৫০তম মহান বিজয় দিবস। স্থানীয় সময় সকাল দশটায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. আব্দুল মুহিত জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে আজকের দিনের সূচনা করেন।

পরে তিনি দূতাবাসের অন্যান্য কর্মকর্তাদের নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। বিজয় দিবস উপলক্ষে এক বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করে অস্ট্রিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস।

ইউরোপের অন্যান্য দেশের মতো অস্ট্রিয়াতে সেকেন্ড ওয়েভে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সেখানকার সরকারের নির্দেশনা মেনে এ বছর অনলাইনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভা শুরু করা হয়।

দূতাবাসের প্রথম সচিব ও দূতালয় প্রধান মো. তারাজুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি এবং স্লোভেনিয়ায় বসবাসরত প্রায় অর্ধশত প্রবাসী বাংলাদেশি। শুরুতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তার পরিবারের সকল শহীদ, জাতীয় চার নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদদের সম্মানে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এরপর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী প্রচার করা হয়। ভার্চুয়ালি আয়োজিত এবারের এ আলোচনা সভায় বক্তারা স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় জাতির পিতার দূরদর্শী নেতৃত্ব, দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তি সংগ্রাম, স্বাধীনতাত্তোর দেশ গঠনে বঙ্গবন্ধুর অবদান ও স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু কর্তৃক গৃহীত দূরদর্শী নানা নীতি সম্পর্কে বিশদ আলোচনা করেন।

Austria2.jpg

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। পাশাপাশি আলোচনা সভায় বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিও ধর্ম-নিরপেক্ষতা অক্ষুণ্ন রাখা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঠিক বাস্তবায়নের উপর আলোকপাত করা হয়। বক্তারা বাংলাদেশ সরকারের কাছে ভিয়েনাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ও ভিয়েনায় স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণের দাবি জানান।

অনুষ্ঠানে সমাপনী বক্তব্য দেন অস্ট্রিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাসে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মো. আব্দুল মুহিত। তিনি স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনবদ্য অবদান তুলে ধরেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এছাড়াও তিনি পদ্মা সেতু, কর্ণফুলি টানেল, মেট্রোরেল, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণসহ বর্তমান সরকারের নানা উন্নয়ন কর্মযজ্ঞের তাৎপর্য সম্পর্কে আলোচনা করেন। এ সময় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে ভিয়েনাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি তুলে ধরেন রাষ্ট্রদূত আব্দুল মুহিত।

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় সরকারের সাফল্য ও করোনার টিকা সংগ্রহে প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরার পাশপাশি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৫তম অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত বক্তব্যের সূত্র ধরে তিনি করোনার টিকাকে একটি বৈশ্বিক সর্বজনীন পণ্য হিসেবে বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছেন।

সহজে এ টিকা যাতে সকল দেশ পেতে পারে সে বিষয়ে তিনি গুরুত্বারোপ করেন। রাষ্ট্রদূত আব্দুল মুহিত জানান, টিকা উৎপাদনের প্রযুক্তি ও পেটেন্ট পেলে বাংলাদেশের অনেক ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানি বাংলাদেশেই করোনার টিকা উৎপাদনে সক্ষম।

এমআরএম/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]