ঝুঁকি নিয়েই গেলাম রোমানিয়ায়

রাকিব হাসান রাফি
রাকিব হাসান রাফি রাকিব হাসান রাফি , স্লোভেনিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৬:৩৮ পিএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বুলগেরিয়া দিয়েই শুরু করলাম ছুটির প্রথম দিনটি। আমার টার্গেট ছিল রাজধানী সোফিয়া এবং বুরগাসে অবস্থিত সানি বিচ ও নেসেবারের ওল্ড টাউন কাছ থেকে দেখা। শুনেছি যদি কেউ বুলগেরিয়াতে ভ্রমণে আসে তাহলে নাকি কৃষ্ণসাগরের তীরে অবস্থিত নয়নাভিরাম বুরগাস শহরে না ঘুরলে নাকি বুলগেরিয়া ভ্রমণের স্বাদ পাওয়া যায় না।

রিলা মাউন্টেন, পিরিন ন্যাশনাল পার্ক, ভেলিকো তারনভো, পৃথিবীর গোলাপ ফুলের বাগানখ্যাত কাজানলাক। এসব জায়গাতেও যাওয়ার ইচ্ছে ছিল কিন্তু বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়াতে আলেকজান্ডার নেভস্কি ক্যাথেড্রাল ছাড়া আর তেমন কোনো কিছু আমাকে টানেনি।

বুলগেরিয়াকেও তেমনভাবে আমি ভালো লাগাতে পারিনি। বুলগেরিয়া থেকে তাই যখন পাশের দেশ রোমানিয়াতে যাচ্ছিলাম। সোফিয়ার এয়ারপোর্টের ইমিগ্রেশনে কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনার সম্মুখীন হওয়ায় ভেবেই নিয়েছিলাম যে বুলগেরিয়ার ট্যুরকে আর দীর্ঘায়িত করব না এবং রোমানিয়াতেও যাব না।

গোটা বুলগেরিয়া ট্যুরে কিছু না কিছু বাজে অভিজ্ঞতা লেগেই ছিল প্রায় সময়ই। যে রকম আগ্রহ নিয়ে বুলগেরিয়া এসেছিলাম সোফিয়াতে প্রবেশের পর কেনও জানি সব কিছু পানসে হয়ে আসছিল। তাই সরাসরি হাঙ্গেরিতে ফিরে যেতে চাইলাম কিন্তু সোফিয়া থেকে বুদাপেস্টের ফিরতি টিকিটের দাম হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ার কারণে সেটা আর হয়ে ওঠেনি।

jagonews24

এদিকে বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়া থেকে রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে যাওয়ার বাস টিকিটের দাম ছিল মাত্র এক ইউরো। আমাদের দেশের টাকায় একশো টাকার কাছাকাছি। ঝুঁকি নিয়ে চলে গেলাম রোমানিয়ায়। আত্মীয়-স্বজনের অনেকে বলছিল রোমানিয়াতে না যাওয়ার জন্য।

গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স, ইতালি, অস্ট্রিয়া, জার্মানি, নরওয়ে, সুইডেনে যারা থাকেন তাদের বেশিরভাই রোমানিয়াকে আঁড় চোখে দেখে। রোমানিয়া এবং হাঙ্গেরি পাশাপাশি দুইটি রাষ্ট্রে হলেও হাঙ্গেরির সঙ্গে রোমানিয়ার দ্বৈরথ দীর্ঘদিনের।

ট্রান্সসিল্ভানিয়া নামক একটা জায়গা আছে যেটা বর্তমানে রোমানিয়ার একটি অংশ। ট্রান্সসিল্ভানিয়ার মালিকানা নিয়ে এ দুই দেশের মধ্যকার বৈরিতা সব সময় চরমে। হাঙ্গেরির দাবি- ট্রান্সসিল্ভানিয়া আসলে তাদের অংশ এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর হাবসবুর্গ সাম্রাজ্যের পতন ঘটলে ফ্রান্সের ভার্সাই শহরে যে ‘Treaty of Trianon’ এর চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিলও তার মাধ্যমে অন্যায়ভাবে ট্রান্সসিল্ভানিয়ার শাসনভার হাঙ্গেরির হাত থেকে নিয়ে রোমানিয়ার হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল।

হাঙ্গেরিয়ানদের জাতীয়তাবাদের সঙ্গে এজন্য রোমানিয়ানদের জাতীয়তাবাদ সাংঘর্ষিক। ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা আর অভিন্ন অর্থনৈতিক ব্যবস্থা তৈরি করতে এখন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সৃষ্টি হয়েছে। হাঙ্গেরি এবং রোমানিয়া এ দুই দেশই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্য রাষ্ট্র।

তারপরেও এ বৈরিতার মাঝে কোনোভাবে ভাটা পড়েনি। আর হাঙ্গেরি এবং রোমানিয়ার মধ্যকার তিক্ততার ব্যাপারটি এত গুরুতর হিসেবে দুই দেশের মানুষ দেখে থাকেন যে এখানে কোনো ধরনের ঠাট্টা করা চলে না। ‘Treaty of Trianon’ এর চুক্তি হাঙ্গেরিয়ান আর রোমানিয়ান এ দুই জাতিগোষ্ঠীর মানুষের মাঝে এত দূরত্ব সৃষ্টি করেছে যে তাদের অনেকে মনে করে যে এরা একে অপরকে শেষ করে দিতে পারলে সব সমস্যার নিষ্পত্তি হয়ে যাবে।

jagonews24

হাঙ্গেরিয়ানরা এক্ষেত্রে বেশি কর্কশ আর উগ্র। ‘ভ্লাদ দ্য ইম্পলার’ যিনি পাশ্চাত্য উপন্যাস কিংবা সিনেমাতে ড্রাকুলা নামে পরিচিত। তার জন্ম ট্রান্সসিল্ভানিয়ার অন্তর্গত সিগহিশোয়ারাতে এবং ভ্লাদ দ্য ইম্পলার ছিলেন অর্থোডক্স খ্রিস্টানিটিতে বিশ্বাসী। ক্যাথলিক চার্চ কিংবা হাঙ্গেরিয়ান জাতীয়তাবাদ কোনোটির সঙ্গে তার সম্পর্ক নেই।

তাই হাঙ্গেরিয়ানদের দাবি সত্যি এমনটি বলা যাবে না বরং হাঙ্গেরি যখন পূর্ব ইউরোপে একটি শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয় তখন অন্যায়ভাবে আশপাশের কিছু জায়গাকে তার দখলে নিয়েছিল এবং ট্রান্সসিল্ভানিয়া হাঙ্গেরিয়ানদের দখল করা এমনই একটি বিতর্কিত অঞ্চল যা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর আবার রোমানিয়াকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।

ভারত এবং পাকিস্তান এ দুই দেশের মাঝে যে দ্বন্দ্ব তা কেবল রাজনৈতিক অঙ্গনেই সীমাবিদ্ধ। সামাজিক ক্ষেত্রে এ দুই দেশের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই।

চলবে...

এমআরএম/এএসএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]