‘ইপিএস বাংলা’ এগিয়ে যাবে দুর্বার গতিতে

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২৩ পিএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

অসীম বিকাশ বড়ুয়া, দক্ষিণ কোরিয়া

দক্ষিণ কোরিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলামের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও কোরিয়ান নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন ‘ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়া’ নবগঠিত কমিটির নেতাকর্মীরা।

এ সময় ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়া উপদেষ্টা ফজলুর রহমান ২০২১ সালের নবগঠিত কমিটির সভাপতি ফারুক আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক কাজী আহসানুল ইসলাম ও সিনিয়র সহ-সভাপতি বাধন কাজীকে কোরিয়াস্থ সিউলের বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম ও দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) মকিমার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন।

এরপর সিউলের বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে সংগঠনটির নবগঠিত কমিটিকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানানো হয়। গত বছর করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে দ. কোরিয়ার সরকার বাংলাদেশিদের জন্য নতুন ভিসা ইস্যু নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলে সবার মধ্যেই উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা দেখা দেয়।

দীর্ঘ আটমাস পর ভিসা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বাংলাদেশ সরকার ও সিউলের বাংলাদেশ দূতাবাস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেম (ইপিএস) কর্মীদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান সভাপতি ফারুক আহমেদ। তিনি এ বছরের কমিউনিটির বাৎসরিক পরিকল্পনা রাষ্ট্রদূতের হাতে তুলে দেন।

সৌজন্য সাক্ষাতে রাষ্ট্রদূতকে ইপিএস কর্মীদের বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে অবহিত করা হয় এবং সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আশু পদক্ষেপ গ্রহণে অনুরোধ করা হয়।

তন্মধ্যে দেশে অপেক্ষমান কোরিয়ায় গমনেচ্ছুক স্পেশাল রিএন্ট্রিপ্রাপ্ত কমিটেড কর্মী, স্পেশাল সিবিটিতে রোস্টারভুক্ত কর্মী ও নতুন ভিসা ইস্যুকৃতদের কোরিয়ায় প্রবেশের বিষয়ে দ্রুততম সমাধানের জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

কোরিয়ায় যারা কৃতিত্বের সঙ্গে ভিসা পরিবর্তন করেছে তাদের সবাইকে দূতাবাস ইপিএস বাংলা কমিউনিটির মাধ্যমে অভিনন্দন জানান এবং এ ব্যাপারে ইপিএস বাংলার অবদানের জন্য প্রশংসা করেন।

রাষ্ট্রদূত কোরিয়ায় বাংলাদেশি ইপিএস কর্মীদের সংখ্যা বৃদ্ধিতে ইপিএস বাংলাকে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি সম-সাময়িক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

রাষ্ট্রদূত ভবিষ্যতেও ইপিএস বাংলা কমিউনিটির পাশে থাকা ও সহযোগিতার আশ্বাস দেন। কর্মীদের উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ তুলে ধরে দূতাবাসের ভূয়সী প্রশংসা করেন কমিউনিটির নেতারা। ভবিষ্যতে যাতে এই ধারা অব্যাহত থাকে এজন্য রাষ্ট্রদূতের কাছে অনুরোধ জানান।

পরে, সিউলের বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতা ও দিকনির্দেশনায় এবং ইপিএস কর্মীদের ভালোবাসায় ‘ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়া’ এগিয়ে যাবে দুর্বার গতিতে এমনটাই প্রত্যাশা করে আলোচনা শেষ করা হয়।

উল্লেখ্য, ‘ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়া’ দূর পরবাসে কল্যাণকর কিছু করার প্রত্যয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

‘আমরা প্রবাসী, আমরা একা নই, আমরা শক্তি, আমরা সমষ্টি’ স্লোগানে উজ্জীবিত হয়ে ২০১২ সালের ১২ জুলাই সর্বপ্রথম ফেসবুকের মাধ্যমে এই সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে।

কোরিয়ায় অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের দেশটির আইন ও ভিসা সংক্রান্ত তথ্য এবং সমসাময়িক সমস্যা সমাধানের উপায় নিয়ে সভা সেমিনার করার পাশাপাশি কোরিয়ার বুকে বাংলাদেশকে তুলে ধরার প্রত্যয়ে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক, খেলাধূলা, সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান, উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণ বিষয়ক অনুষ্ঠান, সংবর্ধনাসহ পুরস্কার বিতরণীর আয়োজন করে এই সংগঠনটি।

এমআরএম/এএসএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]