২৬ এপ্রিল থেকে ইতালিতে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি

জমির হোসেন
জমির হোসেন জমির হোসেন , ইতালি প্রতিনিধি ইতালি
প্রকাশিত: ০৭:৫৩ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১

দীর্ঘ লকডাউনের ফলে অর্থনৈতিক মন্দার কবলে পড়েছে ইতালি। তবে এবার ২৬ এপ্রিল থেকে সব কিছু খোলার প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা শুরু করেছে দেশটির সরকার।

করোনা পরিস্থিতি এখনও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসলেও অর্থনৈতিক গতিশীলতা বাড়াতে ব্যবসা-বাণিজ্য সব খুলে দেয়ার জন্য ব্যাপক আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে ইতালি সরকার। খুব শিগগিরই ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা আসবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

তবে ঘোষণা আসার পরও জরুরি অবস্থা বহাল থাকবে। পাশাপাশি নিয়ম মেনে প্রতিষ্ঠান চালাতে নির্দেশনা থাকবে। রেস্টুরেন্টের ভিতরে বসে কেউ খেতে পারবে না। দূরত্ব বজায় রাখাসহ চারজনের বেশি এক টেবিলে বসতে পারবে না। ১১টা থেকে কারফিউ শুরু হবে।

বর্তমানে ইতালিতে পর্যটন ও রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় অনেকটা ধস নেমেছে। সম্প্রতি এ নিয়ে আন্দোলন করেছে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা। এসব বিচার বিশ্লেষণ করে সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলার জন্য প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এখন শুধু বাকী আনুষ্ঠানিক ঘোষণার।

এদিকে ইতালিতে ১৯ এপ্রিল করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে এক লাখ ৪৬ হাজার ৭শ' ২৮ জনকে। এর আগে গত ২৪ ঘণ্টায় দুই লাখ ৩০ হাজার ১১৬ জন রেজিস্ট্রেশনের মধ্যে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয় ১২ হাজার ৬শ' ৯৪ জন। মৃত্যুর সংখ্যা ২৫১ জন। এখনও শনাক্ত ৮ হাজার ছাড়িয়ে যায়।

গতকাল ৮ হাজার ৮শ' ৬৪ জন শনাক্ত হয়েছে এবং মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৩শ' ১৬ জন।

দেশটিতে অঞ্চল এবং স্বায়ত্তশাসিত প্রদেশগুলি চারটি অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে। এরমধ্যে লাল, কমলা, হলুদ এবং সাদা।

ঝুঁকিপূর্ণের মধ্যে লাল এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। লাল অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে পুলিয়া, সারদেনা এবং ভাললে আওস্তা।

কমলা অঞ্চলে রয়েছে আবরুজ্জো, বাসিলিকাতা, ক্যালব্রিয়া, ক্যাম্পানিয়া, এমিলিয়া রোমানা, ফ্রিউলি ভেনিজিয়া গিউলিয়া, লাজিও, লিগুরিয়া, লম্বার্ডিয়া মার্কে, মোলাইস, পিএ বলজানো, পিএ ট্রেন্টো, পিওমন্টে, সিসিলিয়া, টসকানা, উম্বরিয়া এবং ভেনেটো।

দেশটিতে করোনার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩৮ লাখ ৭৮ হাজার ৯শ' ৯৪ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে এবং মৃত্যুর সংখ্যা এক লাখ ১৭ হাজার ২শ' ৫৩ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ৩২ লাখ ৬৮ হাজার ২৬২ জনেরও বেশি।

জেডএইচ/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]