কানাডায় মুক্তবিহঙ্গের ‘নওকর শয়তান মালিক হয়রান’ মঞ্চস্থ

আহসান রাজীব বুলবুল
আহসান রাজীব বুলবুল আহসান রাজীব বুলবুল , কানাডা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ এএম, ১৮ অক্টোবর ২০২১

কানাডার ক্যালগেরির নর্থ ইস্টের ফলকনরিজ কমিউনিটি অ্যাসোসিয়েশনে স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টায় মঞ্চস্থ হয়েছে মুক্তবিহঙ্গ নাট্য সংগঠনের পঞ্চম প্রযোজনা কারলোগোলদনির কমেডি ‘দা সারভেন্ট অফ টু মাস্টার্স’ অবলম্বনে অসীম দাসের রচনায় নাটক ‘নওকর শয়তান মালিক হয়রান’। নাটকটির নির্দেশনায় ছিলেন জাহিদ হক।

আলবার্টা সরকারের বেঁধে দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্যালগেরির প্রবাসী বাঙালিরা উপস্থিত হয়ে অনেক দিন পর এক ভিন্নধর্মী বিনোদনে মেতে উঠেছিলেন। মহামারি শুরুর পর থেকে প্রবাসীরা প্রায় সবাই গৃহবন্দি থাকায় অনেকেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।

ক্যালগেরির আবু ইউসুফ জানান, খুব ভালো লাগছে। অনেকদিন পর কমিউনিটির সবাইকে দেখা এক অন্যরকম অনুভূতি। করোনামুক্ত হয়ে উঠুক বিশ্ব—এমনটাই প্রত্যাশা আমাদের।

মুক্তবিহঙ্গের সভাপতি জাহিদ হক বলেন, অনেকদিন পর মঞ্চে কাজ করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। সারাবিশ্ব করোনামুক্ত হয়ে নতুন করে পৃথিবী আবার জেগে উঠুক, যাতে মঞ্চে নতুন নতুন কাজ করতে পারি। নাটকটির মিডিয়া পার্টনার ছিল চ্যানেল আই ও প্রবাস বাংলা ভয়েস।

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন মৌ ইসলাম, জাহিদ হক, তাশফিন হোসেন, সাবরিনা মারিয়াম আদিবা, টিনা দাস, রেশাদ মাসরুর, মাজ হক, শুভজিত পাল, মইনুল ইসলাম রকি, মিনার হাসান, খাইরুন্নেসা মিম, নাহিয়ান ওয়াজিদা মীম। লাইটে আদি। সেটে মোশারফ মাসুদ।

সহযোগিতায় ছিলেন আবু ইউসুফ, হাসনান সিদ্দিক সানভী, অভিজিত সাহা, মো. শাহ্ আলম, নিগার সুলতানা, আবনার ইউসুফ, শারমিন চৌধুরী, অবন্তী, নীল ও আভ্র আলম।

শুধু বিনোদনই নয়, বাংলাদেশের পথশিশুদের গত চার বছর ধরে নিয়মিত আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে মুক্তবিহঙ্গ। এ প্রযোজনা থেকে যে অর্থ সংগৃহীত হচ্ছে তার সবই চলে যায় বাংলাদেশের মিরপুরে অবস্থিত মায়ের আঁচল পথশিশু আশ্রয়কেন্দ্রে। বিগত বছরগুলোতে তারা পথ শিশুদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে প্রায় তিন লাখ টাকা সহায়তা করেছে।

এরই মধ্যে সংগঠনটি তাদের কার্যক্রমের স্বীকৃতিস্বরূপ দেশটির গভর্নমেন্ট অব আলবার্টা থেকে আলবার্টার প্রফেশনাল থিয়েটারের মর্যাদা পেয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে দশ বছরের জন্য মুক্তবিহঙ্গ ‘বেঙ্গলি থিয়েটার’ নামটি সিটি অব ক্যালগেরির ডাউনটাউনে অবস্থিত পাবলিক লাইব্রেরিতে খোদাই করে লেখা থাকবে।

এআরএ/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]