চীনে এক্সপোতে পাট-হস্তশিল্পজাত পণ্য প্রদর্শন

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক চীন
প্রকাশিত: ০৭:৫৯ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০২১

‘সহযোগিতার জন্য নতুন সুযোগগুলো উপলব্ধি করুন এবং উন্নয়নের একটি নতুন যাত্রা শুরু করুন’ প্রতিপাদ্যে, গত ১৮ থেকে ২১ অক্টোবর চীনে ইএইএফ ইকোনমিক অ্যান্ড ট্রেড কো-অপারেশন এক্সপো এবং চায়না (শানশি) আমদানি ও রপ্তানি পণ্য মেলা অনলাইন এবং অফলাইনে সফলভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

চীনের শানশি প্রদেশের রাজধানী শিয়ান শহরে অবস্থিত ‘শিয়ান ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অ্যান্ড এক্সিবিশন সেন্টারে’ এই আমদানি ও রপ্তানি পণ্য মেলাটি অনুষ্ঠিত হয়।

মেলায় চীনে বাংলাদেশি ব্যক্তি-মালিকানাধীন কোম্পানি ইউ ইঔ এক্সপোর্ট অ্যান্ড ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড বাংলাদেশি পাটজাত এবং হস্তশিল্পজাত পণ্য প্রদর্শন করে।

jagonews24

এই এক্সপোটি চীনের পশ্চিম অঞ্চলে প্রথম বৃহৎ আমদানি ও রপ্তানি বাণিজ্যের প্রদর্শনী। ইউরেশিয়ান ইকোনমিক ফোরামের সাংগঠনিক কমিটির সহায়তায়, শানশি প্রাদেশিক বাণিজ্য বিভাগের সমন্বয়ে মেলাটি শিয়ান পৌর জনগণের সরকার আয়োজন করে।

বাংলাদেশি কোম্পানির স্টলে প্রদর্শিত হয়েছে পাটজাত হস্তশিল্পের আকর্ষণীয় পণ্যসামগ্রী, পাটের তৈরি ব্যাগ, ঝুড়ি, উপহার সামগ্রী, মেয়েদের অলংকার সামগ্রীসহ অন্য পণ্যসামগ্রী। মেলাতে বাংলাদেশি পণ্যের প্রতি চীনা নাগরিকসহ অন্যান্য দেশের নাগরিকদের আগ্রহ দেখা যায়। তাছাড়া বাংলাদেশি স্টলে ছিল ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়।

jagonews24

মেলায় অংশ নেওয়া ব্যবসায়ী মো. মাহাবুব জামান বলেন, শিয়ানে আমদানি ও রপ্তানি পণ্য মেলায় অংশ নিতে আমি এখানে এসেছি। এই ফেয়ারে এসে আমার বিভিন্ন চাইনিজ কোম্পানি এবং উৎপাদনকারীর সঙ্গে পরিচয় হয়েছে। মেলায় তারা বিভিন্ন রকমের নতুন নতুন পণ্য নিয়ে এসেছে। সেগুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছি, তাদের পণ্যগুলো নিয়ে বাংলাদেশের মার্কেটে কাজ করা যাবে।

তাছাড়া মেলায় বিভিন্ন চাইনিজ কোম্পানির পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের কোম্পানিও এসেছে। একটি বাংলাদেশি কোম্পানিও ছিলো। ইউ ইঔ এক্সপোর্ট অ্যান্ড ইম্পোর্ট কোম্পানি লিমিটেড প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে নানা রকম ঐতিহ্যবাহী পাটজাত ও হস্তশিল্প পণ্য নিয়ে এসেছিলো। পণ্যগুলো চাইনিজ ক্রেতাসহ অন্যান্য দেশের ক্রেতাদের মাঝে বেশ আগ্রহ সৃষ্টি করেছে। আমি মনে করি বাংলাদেশি পণ্য ভবিষ্যৎতে চীনা বাজারে ভালো সাড়া ফেলবে।

jagonews24

বাংলাদেশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রিস, চেক প্রজাতন্ত্র, উত্তর মেসিডোনিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ভিয়েতনাম, ব্রিটেন, বেলজিয়াম, রাশিয়া, নেপাল, লাটভিয়া, অস্ট্রেলিয়া, উত্তর কোরিয়া, পাকিস্তান, আর্মেনিয়া, আফগানিস্তান এবং অন্যান্য দেশের স্থানীয় কোম্পানিগুলো স্ব-স্ব দেশের পণ্য নিয়ে আমদানি ও রপ্তানী মেলাতে অংশগ্রহণ করে।

এমআরএম/এএসএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]