নিরাপদ অভিবাসনে বাংলাদেশ-গ্রিসের মধ্যে আগ্রহপত্র স্বাক্ষর

মতিউর রহমান মুন্না
মতিউর রহমান মুন্না মতিউর রহমান মুন্না , গ্রিস প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১১:২৫ এএম, ৩০ নভেম্বর ২০২১

এথেন্সে বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ এবং দেশটির অভিবাসন ও অ্যাসাইলামবিষয়ক মন্ত্রী নোটিস মিতারাকি বৈধপথে শ্রমিক আনতে সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য একটি আগ্রহপত্রে স্বাক্ষর করেছেন।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) গ্রিক মন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দ্বিপাক্ষিক সভায় উভয় মন্ত্রী অনিয়মিত অভিবাসনের বিপক্ষে স্ব স্ব অবস্থান তুলে ধরেন এবং নিয়মতান্ত্রিক পদ্ধতিতে শ্রম অভিবাসনকে জোরদার করার বিষয়ে ঐকমত্য প্রকাশ করেন।

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে গ্রিসের ঐতিহাসিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, বৈধ এবং নিয়মিত পথে অভিবাসনের প্রতি বাংলাদেশ সরকারের দৃঢ় অবস্থান রয়েছে।

তিনি বলেন, বৈধপথে বাংলাদেশ থেকে গ্রিসে শ্রমিক নিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি হলে অবৈধ পথে শ্রমিক আসার প্রবণতা হ্রাস পাবে এবং এর ফলে উভয় দেশই উপকৃত হবে।

গ্রিসে বৈধপথে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিকসহ বিভিন্ন পেশাজীবির কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে দুই দেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রয়োজনীয়তার ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

গ্রিক অভিবাসন ও অ্যাসাইলামবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে পারস্পরিকভাবে লাভজনক সহযোগিতার সুযোগ রয়েছে এবং এই লক্ষ্যে তার মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের সমস্যা এবং বৈধপথে কর্মী আনার বিষয়সহ প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রীর উত্থাপিত বিষয়গুলো নিয়ে আলাপ-আলোচনা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

নিরাপদ অভিবাসনে বাংলাদেশ-গ্রিসের মধ্যে আগ্রহপত্র স্বাক্ষর

নিয়মিত শ্রম অভিবাসন জোরদার করতে গ্রিস শিগগিরই বাংলাদেশের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করবে বলে গ্রিক মন্ত্রী বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলকে আশ্বস্ত করেছেন।

এই দ্বিপাক্ষিক সভায় প্রবাসীকল্যাণ সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, রাষ্ট্রদূত আসুদ আহ্মেদ, দূতাবাসের কর্মকর্তা ও গ্রিক সরকারের অভিবাসন মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিকেলে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী গ্রিসের সিটিজেন প্রটেকশন মন্ত্রী প্যানাগিওটিস থিওডোরিকাকোসের সঙ্গে তার দপ্তরে অন্য আরেকটি বৈঠকে মিলিত হন। এ সময় দুই মন্ত্রী দু’দেশের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

এমআরএম/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]