পেনাংয়ে ডব্লিউআইইএফর গোলটেবিল বৈঠক

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৮:৪৭ এএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২
ডব্লিউআইইএফ গোলটেবিল পেনাং ২০২২ ইভেন্টে ইয়াং দিপারতুয়া নেগেরি, তুন আহমেদ ফুজি আব্দুল রাজাক (মাঝে), পেনাং রাজ্যের উপ মুখ্যমন্ত্রী আহমেদ জাকিউদ্দীন আবদ রহমান (বামে) এবং ওয়ার্ল্ড ইসলামিক ইকোনমিক ফোরামের চেয়ারম্যান, ড. সৈয়দ হামিদ আলবার।

মালয়েশিয়ার পেনাংয়ে ওয়ার্ল্ড ইসলামী ইকোনমি ফোরাম ফাউন্ডেশনের গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) পেনাংয়ের সেতিয়া স্পাইস কনভেনশন সেন্টারে ১৫টি দেশের ৩৬২ জন প্রতিনিধির অংশগ্রহণে ‘ইকোনমিক রিবাউন্ড: ট্রান্সফর্মিং দ্য ফিউচার’ স্লোগানে এ বৈঠক আয়োজিত হয়।

মহামারি করোনা পরবর্তী চ্যালেঞ্জিং অনুষ্ঠিত ডব্লিআইইএফ গোলটেবিল, পেনাং, ভবিষ্যৎকে রূপান্তর, টেকসই পুনরুদ্ধার সম্পর্কিত প্রাসঙ্গিক সমস্যা এবং কৌশলগুলো মোকাবিলা করার জন্য সরকার, সংস্থা এবং বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিদের পাশাপাশি বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে বৈঠকে পেনাং রাজ্যের গভর্নর মালয়েশিয়াকে ইসলামী অর্থ, হালাল ইকোসিস্টেম অন্বেষণ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

কোভিড-১৯ মহামারির পরে অর্থনীতির উন্নতির জন্য ইসলামিক ফাইন্যান্স, হালাল ইকোসিস্টেম, আঞ্চলিক হাই-এন্ড ট্যুরিজম, ইকোট্যুরিজম এবং মেডিকো-ট্যুরিজমের মতো সম্ভাব্য আকর্ষণীয় খাতগুলোর দিকে নজর দেওয়ার কথাও বলেছেন গভর্নর।

পেনাং ইয়াং দিপারতুয়া নেগেরি তুন আহমেদ ফুজি আবদুল রাজাক বলেছেন, বছরটি যতই শেষ হতে চলেছে, মনে হচ্ছে মালয়েশিয়া অর্থনৈতিকভাবে একটি ভালো অবস্থানে রয়েছে। ২০২২ সালের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে, মালয়েশিয়ার মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ৮.৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। পুরো ২০২২ সালের জন্য, জিডিপি বৃদ্ধির পূর্বাভাস প্রায় ৬ শতাংশ।

jagonews24

ডেপুটি হাইকমিশনার মোহাম্মদ খোরশেদ এ খাস্তগীর, প্রথম সচিব (বাণিজ্যিক) প্রণব কুমার ঘোষ ও বিএমসিসিআইয়ের নেতারা।

এটি চিত্তাকর্ষক এবং এটি সত্যিই খুব ভালো খবর। যেহেতু মালয়েশিয়ার অর্থনীতি বিস্তৃত বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্গে অস্পষ্টভাবে যুক্ত। বিশ্বায়ন, এটি আমাদের বলে যে সংকট-পরবর্তী বৈশ্বিক পরিস্থিতি আমাদের পক্ষে।

বিশেষ করে পেনাংয়ে বিদেশি সরাসরি বিনিয়োগ (এফডিআই) অত্যন্ত অনুকূল। সরবরাহ শৃঙ্খলে বিঘ্ন ঘটুক বা না হোক, ভূ-রাজনৈতিক সংকট হোক বা না হোক, পরিসংখ্যান অত্যন্ত উৎসাহব্যঞ্জক। উদাহরণস্বরূপ তিনি বলেন, পেনাং অনুমোদিত উৎপাদনে ২০২১ সালে ৭৬.২ বিলিয়ন রিঙ্গিত বিনিয়োগ রেকর্ড করেছে।

এটি ৪৪০ শতাংশের একটি রেকর্ড যা সেই বছরের জন্য জাতীয় এফডিআই প্রবাহের ৩৯ শতাংশ তৈরি করেছে। আমরা এখন জানি যে ম্যানুফ্যাকচারিং আমাদের শক্তিগুলোর মধ্যে একটি, বিশেষ করে যেখানে পেনাং উদ্বিগ্ন। মালয়েশিয়ার আরও কিছু শক্তি রয়েছে, যা গত দুই বছরে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। লজিস্টিক্যাল সেক্টর ভালো কাজ করছে।

jagonews24

গোলটেবিল অনুষ্ঠানে উপস্থিতির একাংশ।

আমাদের অন্য এলাকাগুলোকে চিহ্নিত করা উচিত যেখানে আমরা বৃদ্ধি পেতে পারি এবং যেখানে আমাদের দক্ষতা অর্জনের ক্ষমতা রয়েছে। এর মধ্যে ইসলামিক ফাইন্যান্স, হালাল ইকোসিস্টেম এবং অনেক হালাল সাব-সেক্টরের মতো সম্ভাব্য হাই-এন্ড ট্যুরিজম, ইকোট্যুরিজম এবং মেডিকো-ট্যুরিজম, আকর্ষণীয় খাতগুলোর দিকেও নজর দিতে হবে।

সেতিয়া স্পাইস কনভেনশন সেন্টারে ওয়ার্ল্ড ইসলামিক ইকোনমিক ফোরাম (ডব্লিউআইইএফ) গোলটেবিল পেনাং ২০২২ উদ্বোধন করার সময় তার মূল বক্তব্যে বলেছিলেন।

ডব্লিউআইইএফ গোলটেবিলে উপস্থিত ছিলেন পেনাংয়ের উপ-মুখ্যমন্ত্রী আই আহমেদ জাকিউদ্দীন আবদুল রহমান, ডব্লিউআইইএফ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ হামিদ আলবার ও ডব্লিউআইইএফর আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা প্যানেলের চেয়ারম্যান তুন মুসা হিতাম।

jagonews24

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সৈয়দ হামিদ বলেন, করোনা মহামারির একটি বড় প্রভাব হলো এটি সরবরাহ চেইন এবং বিশ্বায়নের ধারণাকে বিরূপভাবে প্রভাবিত করেছে। সংস্থাগুলো তাদের কেন্দ্রগুলো সরিয়ে নিয়ে নতুন সাপ্লাই চেইন তৈরি করছে। হালাল অর্থনীতির আকার প্রায় ৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার কিন্তু মুসলিম দেশগুলোর অংশগ্রহণ ছিল সামান্য, মাত্র ৮ শতাংশ।

তিনি বলেন, একটি উদাহরণ হিসেবে বাংলাদেশকে ধরুন, যা ১৭০ মিলিয়ন জনসংখ্যার মালয়েশিয়ার আয়তনের প্রায় এক তৃতীয়াংশ। এটি এমন কয়েকটি মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে একটি যা স্বল্পোন্নত অবস্থা থেকে উন্নয়নশীল মর্যাদার দেশে আসতে সক্ষম।

গত কয়েক বছরে বিশ্ব স্বাস্থ্য, পরিবেশগত, রাজনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিকসহ একাধিক সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। যেহেতু আমরা একটি উচ্চ আয়ের দেশ হওয়ার চেষ্টা করছি। মালয়েশিয়া নিজেই রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং সম্ভাব্য মন্দা, জলবায়ু পরিবর্তন, সামাজিক বৈষম্য, বৈষম্যহীন উন্নয়ন, মানসম্পন্ন শিক্ষা, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, মুদ্রার অবমূল্যায়ন আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

তিনি বলেন, কিন্তু ‘গোলটেবিলের থিম ইকোনমিক রিবাউন্ড’ এবং ‘ট্রান্সফর্মিং দ্য ফিউচার’ নিয়ে কথা বলার জন্য এখানে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব জড়ো হয়েছেন। এখন অর্থনৈতিকভাবে ‘পুনরুদ্ধার’ করার পরিকল্পনা করি, তখন আমাদের নিজেদের জন্য উচ্চ লক্ষ্য নির্ধারণ করা উচিত।

jagonews24

মালয়েশিয়ানদের সামনে একটি বড় কাজ হলো সমন্বয়ের প্রয়োজন। দেশের বৃহত্তর স্বার্থে রাজ্যগুলোর মধ্যে ক্ষুদ্রতাকে একপাশে সরিয়ে ফেলার উপযুক্ত সময় এসেছে। একটি বৃহত্তর কৌশলগত দৃষ্টিভঙ্গিসহ পরিপক্কতা এবং প্রজ্ঞা আমাদের আমলাতান্ত্রিক প্রতিবন্ধকতাগুলো কাটিয়ে ওঠার দিকে পরিচালিত করবে যা আমাদের সাধারণ উদ্দেশ্যগুলো অর্জনের জন্য আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টাকে বাধাগ্রস্ত করে।

ডোমেস্টিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড, কনজিউমার অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড এন্টারপ্রেনার ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল হালিম হুসেন বলেছেন, পেনাং আসিয়ানে একটি শীর্ষস্থানীয় উচ্চ-প্রযুক্তি সেমি-কন্ডাক্টর, ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক্স প্লেয়ার হওয়া সত্ত্বেও, মধ্যপ্রাচ্যের বড় খেলোয়াড়রা এখনও এই বিষয়ে অসচেতন। ডাব্লিউআইইএফ প্ল্যাটফর্মটি মুসলিম দেশ এবং বাকি দেশগুলোর মধ্যে ব্যবধান পূরণ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বৈঠকে অংশ নেন, মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের ডেপুটি হাইকমিনার মোহাম্মদ খোরশেদ এ খাস্তগীর, পেনাং বাংলাদেশ দূতাবাসের কনস্যুলার জেনারেল শেখ ইসমাইল হোসেইন, ইউএনডিপির ডাইরেক্টও ড. নাজনীন আহমেদ, দূতাবাসের প্রথম সচিব (বাণিজ্যিক) প্রণব কুমার ঘোষ।

বাংলাদেশ মালয়েশিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান সৈয়দ আলমাছ কবির, সেক্রেটারি জেনারেল মো. মোতাহার হোসেন খান, জয়েন্ট সেক্রেটারি রোবাইয়াত আহসান, ডাইরেক্টর মাহবুব আলম শাহসহ বিএমসিসিআইয়ের ১১ জনের প্রতিনিধি দল বৈঠকে অংশ নেন।

এমআরএম/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]