মালয়েশিয়া প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের জমি দখলের অভিযোগ

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির মালয়েশিয়া থেকে
প্রকাশিত: ১০:৪৩ এএম, ১৪ জানুয়ারি ২০১৮
মালয়েশিয়া প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের জমি দখলের অভিযোগ

ভূমিদস্যুর কবল থেকে জমি রক্ষার জন্য মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুল আজিজের সন্তান মালয়েশিয়া প্রবাসী নীরব হোসেন সংবাদ সম্মেলন করেছেন। শুক্রবার বিকেলে কুয়ালালামপুর জালান পাহাংয়ের একটি হোটেলে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগ মালয়েশিয়া শাখার সভাপতি মো. নাজমুল ইসলাম বাবুল, সহ-সভাপতি মো. শাহ আলম হাওলাদারসহ মালয়েশিয়ায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

নীরব হোসেন তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার বাইপাল নতুন পাড়ার বাইপাল মৌজার এসএ নং-৮৮, ৮৯, আরএস নং-১৪৬, ৪০১ দাগের ২২.৫০ শতাংশ জমি ক্রয়সূত্রে মালিক আমার বাবা হাজী মো. আব্দুল আজিজ। যেখানে শরীফ ভিলা নামক বাড়ি নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ভোগদখলে ছিল। অথচ বাইপাল থানার মৃত লাল মিয়ার ছেলে মো. ওমর আলী গং অবৈধভাবে জবর দখল করে ভাড়াটিয়াদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে অন্যায়ভাবে তাদের কাছ থেকে ভাড়া উত্তোলনসহ ওই জমি নিজেদের বলে দাবি করছে। এক পর্যায়ে আমরা ২৬/০৩/২০১৫ তারিখে আশুলিয়া থানায় জিডি করি। যার জিডি নম্বর-১৮৩০।

জিডি করার পর ভূমিদস্যু ওমর আলী যুগ্ম জেলা জজ-২ আদালত ঢাকা দেওয়ানি মোকদ্দমা নং-১৫৯/২০১৫ মামলা দায়ের করে। আদালত সকল তথ্য, কাগজপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর মামলাটি খারিজ করে রায় আমাদের পক্ষে দেন। মামলার রায় আমাদের পক্ষে থাকার পর ওমর আলী গং কিছুদিন নিশ্চুপ থাকলেও আবারও অবৈধভাবে জবরদখলের পাঁয়তারা করছে। এমনকি গত ২২ আগস্ট সকাল আনুমানিক ৯টায় ওমর আলীর ছেলে জনি, একই এলাকার মৃত সমির উদ্দিনের দুই ছেলে জামাল উদ্দিন ও কামাল উদ্দিন আমাদের বাসার ‘শরীফ ভিলা’ নামক নামফলক ভাঙচুর করে ত্রাসের সৃষ্টি করে। আশুলিয়া থানায় অভিযোগ জানানোর পরও কোনো কাজ হয়নি। এমনকি থানা কর্তৃপক্ষ নিশ্চুপ ভূমিকা পালন করে।

তিনি বলেন, শুধু তাই নয় সওজের জমি অবৈধভাবে দখল করে আছে ওমর আলী গং। সেই জমি উদ্ধার করতে গেলে ওমর আলী গং দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে ২০১৬ সালের ৫ আগস্ট সওজ কর্মকর্তা ও ৪ সাংবাদিকের ওপর হামলায় চালায়। এ সময় তারা গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। এ নিয়ে একাধিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পরও বহাল তবিয়াতে থাকে তারা।

নীরব হোসেন আরও বলেন, প্রতিনিয়ত ওমর আলী গং আমার পরিবারের সদস্যদের নানা হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। আমার বৃদ্ধ বাবা-মা এবং পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত।

ভূমিদস্যু ওমর আলীর কবল থেকে জমি উদ্ধারে মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসেও অভিযোগ দায়ের করেছেন নীরব হোসেন। একজন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জীবনের নিরাপত্তা ও তার সম্পদের নিরাপত্তাসহ প্রধানমন্ত্রী এবং দেশের সর্বোচ্চ মহলের সহযোগিতা কামনা করছেন।

উল্লেখ্য, মো. নীরব হোসেন মালয়েশিয়ায় কুয়ালালামপুরের গ্যান্টিং হাইল্যান্ডে তার নিজস্ব সালাদ ফার্ম রয়েছে। যা মালয়েশিয়ার ফাইভস্টার হোটেল, কেএফসি, ম্যাকডোনালস, নান্দুস, স্টারকাবসহ স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান ছাড়াও সিঙ্গাপুর এবং দুবাইতে রফতানি করে থাকেন।

বিএ/এমএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com