ওয়াশিংটন ডিসিতে সমস্বরের পথচলা শুরু

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৪৯ এএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বাচিক শিল্পী অদিতি সাদিয়া রহমানের নেতৃত্বে আবৃত্তি শিল্পে শুদ্ধ উচ্চারণ, বাচনভঙ্গি, প্রক্ষেপণ ও কবিতার মর্মার্থ উপলব্ধির লক্ষ্যে ওয়াশিংটন ডিসিতে পথ চলা শুরু করল ‘সমস্বর-শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি সংগঠন।’ উৎসবমুখর পরিবেশে, ওয়াশিংটন ডিসির প্রবাসী বাঙালিদের স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণে গতকাল ১৫ সেপ্টেম্বর ‘সমস্বর’ এর অভিষেক অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার।

তিনি উদ্বোধনী বক্তব্যে শুদ্ধ উচ্চারণের প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করেন। জর্জ মেসন রিজিওনাল লাইব্রেরির মিলনায়তনে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানটিতে শুভেচ্ছা বাণী পাঠ করেন কবি, সাংবাদিক আনিস আহমেদ। তিনি বলেন, ‘সমস্বর’ই ওয়াশিংটন ডিসিতে প্রথম বাংলা আবৃত্তি সংগঠন।

সমস্বরের পক্ষে অদিতি সাদিয়া রহমান স্বাগত বক্তব্যে সমস্বরের উদ্দেশ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, শুধুমাত্র আবৃত্তি অনুষ্ঠান আয়োজনই সমস্বরের মূল লক্ষ্য নয়, বরং সংগঠনটি ওয়াশিংটন ডিসিতে শুদ্ধ বাংলা উচ্চারণের আন্দোলন শুরু করতে চায়।

southeast

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের মানবপ্রেম, সাম্যবাদ ও বিদ্রোহের অমর সৃষ্টি নিয়ে প্রযোজিত এই অনুষ্ঠানটির গ্রন্থনা ও পরিচালনায় ছিলেন অদিতি সাদিয়া রহমান।

‘অন্তর্যামী বিকশিতঃ অনন্ত সত্যে’ শীর্ষক এই আবৃত্তি আয়োজনে সমস্বরের যে সকল সদস্যদের প্রাণবন্ত অংশগ্রহণ উপস্থিত দর্শকদের মুগ্ধ করে তারা হলেন- অদিতি সাদিয়া রহমান, আরিয়ানা এলাহী, কুলসুম আলম, ড. তৌফিক হাসান, তারেক মেহেদী, তিলক কর, মিজানুর রহমান খান, মো. শাহীনুর রহমান, রাহাত ই আফজা এবং সামারা এলাহী। ড. পল ফেবিয়ান গোমেজের তবলার মুর্ছনা আবৃত্তি আয়োজনকে এক ভিন্নমাত্রা দেয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বটি সাজানো হয়েছিল আমন্ত্রিত বিশিষ্ট বাচিক শিল্পীদের পরিবেশনা দিয়ে। ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রাক্তন প্রধান ইকবাল বাহার চৌধুরী এবং প্রখ্যাত সাংবাদিক সরকার কবির উদ্দিনের আবৃত্তি দর্শক- শ্রোতাদের মন ছুঁয়ে যায়।

ওয়াশিংটন ডিসির আরও যেসব বরেণ্য বাচিকশিল্পি এই পর্বে আবৃত্তি পরিবেশনা করেন তারা হলেন- সিলিকা কণা, এ কে এম আসাদুজ্জামান, সাবরিনা চৌধুরী ডোনা, এ কে এম খায়রুজ্জামান, স্বাতি সিনহা এবং শওকত খান দিপু। নান্দনিক এই অনুষ্ঠানটি আয়োজনে সহযোগিতা করেছেন ড. সুব্রত ধর, রায়হান এলাহী, ড. মিজানুর রহমান, ইরাজ তালুকদার, ড. মরিয়ম পারভীন এবং ডেভিড রানা।

এমআরএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]