কানেকটিকাটে করোনা আতঙ্কে পাঁচ সহস্রাধিক প্রবাসী অবরুদ্ধ

কৌশলী ইমা কৌশলী ইমা , যুক্তরাষ্ট্র
প্রকাশিত: ০৬:০৩ পিএম, ২২ মার্চ ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট অঙ্গরাজ্যে পাঁচ সহস্রাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের আতঙ্কে নিজ নিজ বাসস্থানে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। প্রতিবেশীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ ও টেলিফোন যোগাযোগও বন্ধ করে দিয়েছেন। করোনা আতঙ্কে ঘর থেকে বের হতে সাহস পাচ্ছেন না কেউ।

কানেকটিকাটের ১০টি শহরে ৫-৬ হাজার বাংলাদেশি বসবাস করছেন। এর মধ্যে ম্যানচেস্টার, স্টামফোর্ড, নিউ হ্যাভেন, ব্রিজপোর্ট, হার্টফোর্ড, ড্যানবুরি, সাউথ উইন্ডজোর, বৃস্টল, টোরিংটনও চেশায়ার শহরে বাংলাদেশিদের সংখ্যা অনেক বেশি। গত এক সপ্তাহ ধরে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেশি দেখা দেওয়ায় আতঙ্কিত পড়েছে প্রবাসীরা।

গত এক সপ্তাহে কানেকটিকাট অঙ্গরাজ্যে করোনাভাইরাসে মারা গেছে ৩ জন। ২১ মার্চ পর্যন্ত এ নিয়ে কানেকটিকাটে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২২৩ জনে। ভয়াবহ আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় ঘর থেকেই বের হচ্ছেন না প্রবাসীরা। ইতোমধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী, বৃহত্তর নোয়াখালী সমিতির বসন্ত মেলা, সঙ্গীত একাডেমির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীসহ চারটি অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস থেকে জনগণকে সুরক্ষা দিতে রাজ্য সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। ফলে জরুরি অবস্থা অব্যাহত রয়েছে। চলাফেরাও সীমিত করা হয়েছে। তবুও লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েই চলছে। করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

কানেকটিকাটে ফেয়ারফিল্ড কাউন্টিতে সর্বোচ্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মিলেছে। সেখানে এ পর্যন্ত ১২৫ রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এছাড়া লিচফিল্ড ১০, হার্টফোর্ড ৩৫, নিউ হ্যাভেন ২৭, মিডলসেক্স ৯, টোলান্ড ৬, উইন্ডহাম ৫ এবং নিউ লন্ডন ৩ জন রোগীর খবর পাওয়া গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন অন্তত ৭ হাজার ৩০১ জন। এ নিয়ে সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ হাজার ৬৮৪ জন। ফলে বিশ্বের মধ্যে করোনায় সর্বোচ্চ আক্রান্তের তালিকায় এখন তিন নম্বরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণ হারিয়েছেন আরও ৮৪ জন কোভিড-১৯ রোগী। এ নিয়ে সেখানে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৪৮ জন। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে ইতোমধ্যেই দেশটির বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য অবরুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি পাঁচ নাগরিকের মধ্যে অন্তত একজনকে বাসায় থাকতে (কোয়ারেন্টাইন) বলা হয়েছে।

এমআরএম/এমকেএইচ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com