ইতালিতে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

জমির হোসেন
জমির হোসেন জমির হোসেন , ইতালি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১১:৩৮ পিএম, ২৬ মার্চ ২০২০

যথাযথ মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করেছে ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাস। বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি উদযাপনের প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের ভয়াবহ প্রাদুর্ভাবের কারণে ছোট পরীসরে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ইতালিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতিতে একসঙ্গে জাতীয় সংগীত গেয়ে পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু করা হয়। পরে রাষ্ট্রদূত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

কর্মসূচির মধ্যে ছিল শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন, প্রবাসী বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে স্বাধীনতা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন, দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক ও ইতালির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের অভ্যর্থনা।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা শুরু হয়। এরপর দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পাঠানো বাণী পাঠ করা হয়।

jagonews24

রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে। যার অবিসংবাদিত নেতৃত্বে অর্জিত হয় স্বাধীনতা। তিনি বিনম্র শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন মুক্তিযুদ্ধে সকল শহিদদের এবং সম্ভ্রমহারা মা-বোনদের।

রাষ্ট্রদূত বলেন, বাঙালিরা তদানিন্তন পাকিস্তানের অধীনে রাজনৈতিক, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিকভাবে বৈষম্যের শিকার ছিলেন। এই বৈষম্য থেকে বাঙালি জাতিকে মুক্তি প্রদানের জন্য বঙ্গবন্ধু আজীবন লড়াই করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে নয় মাস সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বিজয়ের মাধ্যমে আমরা রাজনৈতিক স্বাধীনতা লাভ করেছি।

তিনি বলেন, বর্তমানে বঙ্গন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করে একটি সুখী-সমৃদ্ধ দেশ বিনির্মাণে কাজ করে যাচ্ছেন। এক্ষেত্রে সকল প্রবাসী বাংলাদেশীদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান রাষ্ট্রদূত।

জেপি/এমআরএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]