প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী শ্রমিকের বেতন দিতে হবে: মালয়েশিয়ার মন্ত্রী

আহমাদুল কবির
আহমাদুল কবির আহমাদুল কবির , মালয়েশিয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ০৯ জুলাই ২০২০

বিদেশি শ্রমিকদের সুরক্ষা বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে মালয়েশিয়ার। দেশটিতে অসাধু নিয়োগকর্তাদের অত্যাচার থেকে অভিবাসীদের রক্ষা করতে সরকার নানা পদক্ষেপ হাতে নিয়েছে।

৯ জুলাই সাংবাদিকদের মানবসম্পদমন্ত্রী দাতুক এম সারাভানান বলেন, ‘আমরা আর চাই না আমাদের দেশ অভিবাসী শ্রমিকদের ডাম্পিং গ্রাউন্ড হয়ে উঠুক। যখনই কোনো নিয়োগকর্তা কোনো বিদেশিকর্মী নিযুক্ত করেন, আমরা নিশ্চিত করতে চাই প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কর্মচারীকে মজুরি দেওয়া হচ্ছে’।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা অফিসারদের (এইচএসও) প্রশিক্ষণকেন্দ্রগুলিতে অনুমোদনের প্রশংসাপত্র উপস্থাপনের পরে সাংবাদিকদের উদ্দেশে সারাভানান বলেন, সরকার একটি ‘ই-ওয়েজস’ ব্যবস্থা চালু করতে চাচ্ছে যা নিয়োগকর্তারা যদি তাদের শ্রমিকদের বেতন না দেয় তবে মন্ত্রণালয়কে সতর্ক করবে।

‘এই ‘‘ই-ওয়েজস’’ ব্যবস্থা চালু করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা চলছে। যদি কোনো নিয়োগকর্তা তাদের শ্রমিকদের মজুরি দিতে ব্যর্থ হন তবে আমরা সিস্টেমের মাধ্যমে সতর্ক হয়ে যাব। এটি আন্তর্জাতিক মান অনুসারে আমাদের বিদেশিকর্মীদের জন্য একধরনের গ্যারান্টি সরবরাহ করবে’।

বিদেশি শ্রমিক সুরক্ষার আরেকটি রূপ যা সরকার প্রবর্তন করবে তা হলো শ্রমিকদের ন্যূনতম মান আবাসন ও সুযোগসুবিধির আইনের ৪৪৬ ধারা কার্যকর করা।

নিয়োগকর্তা আবাসন এবং তাদের শ্রমিকদের কল্যাণ বিষয়টি নিশ্চিত করতে ১ সেপ্টেম্বর থেকে এটি প্রয়োগ করব।

‘যদি কোনো নিয়োগকর্তা এগুলি সরবরাহ না করে তবে প্রতিটি অপরাধের জন্য তারা সর্বোচ্চ ৫০,০০০ রিঙ্গিত জরিমানা গুনতে হবে। প্রতিটি বিদেশি কর্মীকে সামাজিক সুরক্ষা সংস্থার (সোকসো) অধীনে সুরক্ষা দেওয়ার প্রস্তাব মন্ত্রণালয় করবে’।

‘কোভিড- ১৯ মহামারির কারণে আমরা দেখেছি কেন আমাদের বিদেশিকর্মীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ। আন্তর্জাতিক মানে সমস্ত শ্রমিক, স্থানীয় বা বিদেশি নির্বিশেষে সমান চিকিত্সা দেওয়া হয়। এর আগে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের সাথে বৈঠককালে এসব ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল’।

‘বাংলাদেশ সরকার তাদের কর্মীদের ব্যাপারে অত্যন্ত সচেতন। আমি তাদের এই পদক্ষেপগুলি ব্যাখ্যা করেছি এবং আমি বিশ্বাস করি তারা এতে সন্তুষ্ট। তিনি অন্যান্য দেশের সরকারি প্রতিনিধিদের সাথেও যুক্ত থাকবেন’। সারাভানান বলেন, ‘বৈঠকে কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগের বিষয়ে মালয়েশিয়ার হিমায়িত নিয়েও আলোচনা হয়েছিল।

‘অর্থনৈতিক মন্দার কারণে আমরা আশা করি যে অনেক বিদেশিকর্মী পারমিট নিয়ে চাকরি হারাবেন। সুতরাং, আমাদের একটি পুনর্বাসনের অনুশীলন করা দরকার।
এর আগে সারভানান নয়টি এইচএসও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে অনুমোদনের শংসাপত্র হস্তান্তর করেন।

মন্ত্রী বলেন, মে মাস পর্যন্ত ব্যবসায়িক সুরক্ষা ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের (ডিওএসএইচ) নিবন্ধিত সক্রিয় এইচএসও সংখ্যা ছিল ৪,৯৫৩ জন। ‘এটি ডিও এসএইচতে নিবন্ধিত মোট যোগ্য ব্যক্তির মাত্র ৭.৫ শতাংশ, যা, ৬৬,২৬২ জন। সুতরাং, বর্তমান পরিস্থিতির কারণে এটিকে জরুরিভাবে উন্নত করা দরকার। বর্তমানে ডিও এসএইচ ৪৯ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং ৬৫৩ প্রশিক্ষককে স্বীকৃতি দেয় যা শিক্ষার সমস্ত স্তরে এইচএসও কোর্স পরিচালনা করে।

এমআরএম/এমকেএইচ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]