নিউইয়র্কের গুণীজনদের সম্মাননা জানালো এফবি টিভি

তোফাজ্জল লিটন
তোফাজ্জল লিটন তোফাজ্জল লিটন , যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩:২৪ এএম, ২১ জানুয়ারি ২০২১

দুই বছর পূর্তিতে গত সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে ভার্চুয়ালি ‘আলোর ঝর্ণাধারা’ নামে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ফ্লোরিডা বাংলা টেলিভিশন (এফবি টিভি)। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে ঢাকা থেকে যোগ দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

এ উপলক্ষে নিউ ইয়র্কের গুণীজনদের তাদের স্ব স্ব ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখার জন্য সম্মাননা দেয়া হয়।

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠযোদ্ধা রথীন্দ্রনাথ রায় ও শহীদ হাসানকে দেয়া হয়ে আজীবন সম্মাননা। ফ্লোরিডার আরও কিছু ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান ছাড়াও বয়নটন বিচ সিটির মেয়র স্টিভেন গ্র্যান্ট ও ব্রওয়ার্ড কাউন্টির মেয়র ডেল হলনেসকেও সম্মাননা জানানো হয়।

স্বাধীনতার ৫০ বছরকে সামনে রেখে দেয়া এই সম্মাননায় আপ্লুত হন দুই শিল্পী। তারা ভিডিও বার্তায় এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। এদের মধ্যে একজন রথীন্দ্রনাথ রায় বলেন বলেন, বাংলাদেশের গৌরবের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে সবাইকে সবসময় সয়ংক্রিয় থেকে কাজ করে যেতে হবে।

অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, প্রবাসে বাংলাদেশকে ইতিবাচকভাবে তুলে ধরবে এই টেলিভিশন। বাংলাদেশের ইতিহাস, ভাষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে আগামী প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে দেবে, এটাই প্রত্যাশা। শেখ হাসিনার সরকার প্রবাসীদের কল্যাণে নানা ধরনের ইতিবাচক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। প্রবাসীরা যেন বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারে তার জন্য নানান সুযোগ দেয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে এফবি টিভি সম্মাননা পাওয়াদের নাম ঘোষণা করা হয়। নিউইয়র্ক থেকে সম্মাননা পেয়েছেন অভিনেত্রী ও আবৃত্তি শিল্পী লুৎফুন নাহার লতা, সাংবাদিক ও কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট তোফাজ্জল লিটন, শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ রানা আহমেদ, আবৃত্তি শিল্পী গোপন সাহা, কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট মুহাম্মদ আলী বাবুল, অভিবাসন ও ট্যাক্স বিশেষজ্ঞ মিয়া জাকির, সঙ্গীত শিল্পী তামি যাকারিয়া এবং সাকসেস মাল্টিপারপাস অ্যান্ড ক্যারিয়ার কনসাল্টিং ফার্মের সিইও মো. আকতারোজ জামান।

টেলিভিশনের সিইও টিটন মালিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক আওলাদ হাওলাদার। এফবি টিভির এডিটর ইন চিফ ও লেখক শামীম আল আমিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শহীদ হাসান, পাপ্পু আহমেদ এবং লাবনি।

এসজে

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]