ঘুরে আসুন সৌন্দর্যের তীর্থভূমি ভুটান থেকে

রহমান মৃধা
রহমান মৃধা রহমান মৃধা
প্রকাশিত: ০৪:১০ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২১

আমি কিছুদিন আগে ভুটান সম্পর্কে লিখেছিলাম। সবদিক দিয়ে আমাদের দেশের পাশের একটি চমৎকার দেশ। তা সত্ত্বেও খুব একটা আলোচনা হয় না দেশটি সম্পর্কে। অনেকে ইউরোপ বা আমেরিকায় যেতে পাগল অথচ রয়েছে বাড়ির পাশে কী সুন্দর একটি দেশ। জানি না কতজন সেখানে যেতে পাগল। সময় এবং সামর্থ্য থাকলে ঘুরে আসুন ভুটান। দেখবেন ভালো লাগবে।

ভুটান এক নৈসর্গিক সৌন্দর্যের লীলাভুমি। ঘন সবুজে ঢাকা ভুটান শান্ত, নিরিবিলি এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। এক অন্য আবেশ, অন্য অনুভূতির ওয়াংচুক রাজার দেশ এই ভুটান। উপভোগ করার মতো অনেক কিছুই রয়েছে সাজানো-গোছানো এই দেশটিতে। তাই ভ্রমণ-পিপাসুদের প্রথম পছন্দ দেশটি। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ ভুটান ভারতীয় উপমহাদেশে হিমালয় পর্বতমালার পূর্বাংশে অবস্থিত।

jagonews24

দেশটির উত্তরে চীনের তিব্বত অঞ্চল এবং দক্ষিণ, পূর্ব ও পশ্চিমে ভারত। ৪৪ হাজার বর্গকিলোমিটার আয়তনের পুরো দেশটাই পাহাড় দিয়ে বেষ্টিত। আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করার মতো সমতল কোনো জায়গাই ভুটানে নেই। মাথাপিছু গড় আয় ১ হাজার ৫০ মার্কিন ডলার।

দেশে বড় কোনো শিল্পকারখানা নেই। লোকসংখ্যা প্রায় ৭ লাখ। আয়ের মূল উৎস বিদ্যুৎ, ফল ও পর্যটন। হিমালয়ের কল্যাণে উঁচু পর্বতমালা, ঘন বনজঙ্গল, সবুজ ভ্যালি এই ভুটানের প্রাকৃতিক রূপ বৈচিত্র্য। দেশটিতে রয়েছে দেজং (প্রাসাদদুর্গ), বৌদ্ধ মন্দির ও পর্বতের গায়ে অসংখ্য গুহা সেখানকার গৌরবময় প্রাচীন ইতিহাসের সাক্ষ্য বহন করছে। আর এই কারণে ভুটান এই অঞ্চলের অন্যতম পর্যটনসমৃদ্ধ দেশ।

প্রকৃতির অকৃত্রিম মমতা এবং সবুজে ছাওয়া বিস্তৃত অঞ্চল পর্যটকদের কাছে খুবই আকর্ষণীয়। আগস্ট থেকে অক্টোবর এই তিন মাস ভুটানে বেড়ানোর উৎকৃষ্ট সময়। ভ্রমণের জন্য দেশটি বেশ নিরাপদ। পর্যটকরা স্বাচ্ছন্দ্যে তাদের পছন্দের স্থানগুলোতে ঘুরতে পারেন। শান্তিময় ভ্রমণের জন্য ভুটান সকল পর্যটকের কাছে যেন এক স্বর্গরাজ্য।

বর্তমানে বাংলাদেশের অনেকেই কানাডায় যেতে পাগল। কারণ সেখানে ইংরেজি ভাষার প্রচলন। কেউ পড়াশোনা, কেউ চাকরি, কেউ আবার দেশের অর্থ পাচার করে সেখানে বেগম পাড়া তৈরি করে বসবাস করছে। শুনেছি দেশের টাকা পাচার করতে যারা সাহায্য করেন তাদের মধ্যে দূতাবাসও জড়িত।

যদি তথ্যটি সত্য হয় তবে কেন এর প্রতিবাদ হয় না? দূতাবাসের সাহায্যে দেশের অর্থ পাচার করে বিদেশে অনেকেই প্রতিষ্ঠিত। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের সব দূতাবাসের কাজ কী এবং কী দায়িত্ব তাদের পালন করার কথা, আর কী করছে তারা সে বিষয় তদন্ত করতে কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করে গত কয়েকদিন আগে লিখেছি। দেখা যাক কর্তৃপক্ষ কী করেন।

jagonews24

দেশকে সোনার বাংলা করতে হলে সবাইকে কাজ করতে হবে যার যার জায়গা থেকে। আসছে স্বাধীনতার মাস, পঞ্চাশ বছরের পূর্ণরূপ ধারণ করবে বাংলাদেশ স্বাধীন দেশ হিসেবে, ভাবতেই গা শিউরে ওঠছে। শুধু গা শিউরে উঠলেই হবে না।

দেশকে, দেশের মানুষকে বিশ্বের বুকে সম্মানের সঙ্গে তুলে ধরতে হবে। অতীতের সমস্ত গ্লানির বিসর্জন দিতে হবে আর উৎসর্গ করতে হবে আমাদের নিবেদিত প্রাণ দেশের সর্বাঙ্গীণ উন্নয়নে।

আসুন এবার কানাডা সম্পর্কে একটু জানি। দেশটি আমেরিকার পাশে অবস্থিত, স্বাভাবিকভাবেই তারা সব সময় আমেরিকার মতো এমনকি তাদের চেয়ে উন্নতমানের মন-মানসিকতার সঙ্গে একটি আউটস্ট্যান্ডিং দেশ হিসেবে পরিচিত হতে চায়। কানাডা গত কয়েক বছর ধরে চমৎকার পারফরমেন্স করে চলেছে। গণতন্ত্রের বেস্ট প্র্যাকটিস এবং জনগণের মৌলিক অধিকারের প্রতি যথেষ্ট রেসপেক্ট দেখাতে পেরেছে।

কানাডা প্রায় দশ বছর ধরে শিক্ষা প্রশিক্ষণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। তারা শিক্ষা প্রশিক্ষণের শুরুতেই খেলাধুলোর ওপর গুরুত্ব দিয়েছে বেশি। যাতে করে দেশের জনগণকে হাসপাতাল এবং চিকিৎসকের সংস্পর্শে খুব বেশি আসা না লাগে। খেলাধুলাকে শিক্ষা প্রশিক্ষণের অন্যান্য বিষয়ের মতো গুরুত্ব দেয়ার কারণে দেখা যাচ্ছে কানাডা বিশ্বের প্রথম স্থানটি দখল করতে চলেছে বিভিন্ন স্পোর্টসে।

গত দশ বছর আগে শিক্ষা প্রশিক্ষণের এই ভিন্নধর্মী পরিবর্তনের কারণে আজকের কানাডার নতুন প্রজন্ম বিশ্বের উদীয়মান তারকাদের শীর্ষে। ভুটান এবং কানাডাকে বেঞ্চ মার্কিং হিসেবে ব্যবহৃত করা যেতে পারে বাংলাদেশের শিক্ষা প্রশিক্ষণের পরিবর্তনে, যা নিঃসন্দেহে হতে পারে শিক্ষার দিকনির্দেশনার জন্য একটি চমৎকার উপায়।

অন্যদিকে একটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেটা হলো আমরা বসবাস করছি ভারতের পাশে। পাশের দেশ হিসেবে সম্পর্কটি সরকারিভাবে ভালো হলেও জনগণের মতামতটি ভিন্ন। যার ফলে সারাক্ষণ কিছু না কিছু আলোচনা হয়।

ভালোর চেয়ে খারাপ খবরের প্রচলন হয় বেশি। খারাপ খবরগুলো সহজে ছড়ানো যায়। আবার ডকুমেন্ট বা সঠিক তথ্য ছাড়া খবর প্রচার করা বেশ সহজ। যার ফলে সর্বত্রই যে বিষয়গুলো লক্ষ্যণীয় তা হলো গুজব। তারপর দেশের খবরের টপ লিস্টে কী কী জিনিস সর্বাধিক পাঠকের নজর কাড়ে দেখেছেন কি কখনও ভেবে?

লেখক: রহমান মৃধা, সাবেক পরিচালক (প্রোডাকশন অ্যান্ড সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট), ফাইজার, সুইডেন থেকে, [email protected]

এমআরএম/এমকেএইচ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]