দক্ষিণ আফ্রিকা যুবলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে কর্মী অপহরণের অভিযোগ

ফারুক আস্তানা
ফারুক আস্তানা ফারুক আস্তানা , দক্ষিণ আফ্রিকা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৮:৩৯ পিএম, ১৭ এপ্রিল ২০২১
প্রধান অভিযুক্ত যুবলীগ সভাপতি বাদল মৃধা ও অপহৃত সাঈদুল

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রবাসী বাংলাদেশি সাঈদুল হককে সম্প্রতি কয়েক দফা অপহরণ চেষ্টার ঘটনায় শাখা যুবলীগের সভাপতি বাদল মৃধা জড়িত বলে অভিযোগ তুলেছেন একই দলের পদত্যাগকারী সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীন বোখারী।

চলতি মাসের ৫ এপ্রিল (সোমবার) সকাল নয়টার সময় জোহানেসবার্গের রেন্ডফন্টিনে নিজ দোকানে ঢুকে অপহরণকারী তিন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক সম্প্রতি যুবলীগ থেকে পদত্যাগকারী প্রচার সম্পাদক সাঈদুল হককে (৩২) হাতে কুপিয়ে ও মাথায় আঘাত করে টেনেহিঁচড়ে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। চলতি পথে গাড়ি থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় এক নারীর সহযোগিতায় তিনি বেঁচে ফেরেন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বর্তমানে আত্মগোপনে রয়েছেন।

এর আগে, ২৯ ও ৩০ মার্চ সকালে দুইদিনে দুইবার সাঈদুল হককে তার বাসা থেকে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার পথে একই এলাকার রাস্তায় ধরে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়ার চেষ্টা করা হয়। সেই সময় দৌড়ে পালিয়ে বাঁচেন তিনি।

ওই ঘটনায় সাঈদুল হক স্থানীয় ক্রুগারডর্প পুলিশ স্টেশনে মামলা দায়ের করেছেন। (মামলা নম্বর (Krugersdorp ref nr CAS 719/3/2021)। মামলা দায়েরের চারদিনের মাথায় তৃতীয়বারের মতো অপহরণের শিকার হয়ে চলন্ত গাড়ি থেকে ফের ঝাঁপিয়ে পড়ে পালিয়ে বাঁচেন সাঈদুল হক।

বর্তমানে সাঈদুল হকের ফোন নম্বর বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। এর আগে, ২৯ ও ৩০ মার্চ তুলে নেয়ার চেষ্টার ঘটনায় সাইদুল হকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেছিলেন, দুই দিনে দুইবার আমাকে তুলে নেয়ার চেষ্টা করেছে কয়েকজন কৃষ্ণাঙ্গ। আমি দীর্ঘ ১১ বছর প্রবাস জীবনে কারো সাথে রাজনৈতিক বা টাকা পয়সা নিয়ে ঝামেলা তো দূরের কথা কারো সাথে কথা কাটাকাটিও হয়নি।

jagonews24যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ব্যবসায়ী শাহীন বোখারী

ওই চাঞ্চল্যকর ঘটনায় শাখা যুবলীগের সভাপতি বাদল মৃধার সম্পৃক্ততা দাবি করে শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতে তারই ব্যবসায়িক পার্টনার ও পদত্যাগকারী যুবলীগ নেতা শাহীন বোখারী ফেসবুক লাইভে এসে তাদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে বলেন, ‘বাদল মৃধা আমাদের মেরে ফেলবে, আপনারা আমাদের বাঁচান। সেই আমাদের পেছনে সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়েছে। যে কোনো মুহূর্তে তারা আমাদের মেরে ফেলতে পারে। আমরা বর্তমানে আত্মগোপন করে আছি।’

সেই ফেসবুক লাইভ সূত্রধরে শাহীন বোখারীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, প্রায় সাত-আট মাস আগে দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের পার্শ্ববর্তী এলাকায় শুকলভ মজুমদার, বাদল মৃধা, শাহীন বোখারী ও সাঈদুল হক এই চার বাংলাদেশি শেয়ারে একটি গ্রোসারি দোকান ক্রয় করে ব্যবসা শুরু করেন। শুকলভ মজুমদারের ৮০ ভাগ শেয়ার, ২০ শতাংশ বাকি তিন জনের।

শাহীন বোখারী বাদল মৃধার দিকে অভিযোগ তুলে আরও বলেন, সেই দোকান নেয়ার পর থেকে আচরণগত ও অর্থনৈতিক কারণে বাদল মৃধার সঙ্গে বনাবনি না হওয়ায়, কয়েকবার কমিউনিটির আবু নাছের হাজারীসহ কয়েকজন মিলে দরবার করে তার অর্থ বুঝিয়ে দিয়ে শেয়ার থেকে বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সেই বিষয়টা বাদল মৃধা ভালোভাবে নেয়নি জানিয়ে শাহীন বোখারী বলেন, সে সময় বাদল মৃধা একাধিকবার আমাদের অপহরণ করে খুন করে ফেলার হুমকি দেয়। সেটা কমিউনিটির আবু নাছের হাজারীসহ অনেকেই জানে। সেই ঘটনার জের ধরেই বাদল মৃধা প্রতিশোধ নেয়ার জন্য সাঈদুল হককে তৃতীয়বারের চেষ্টা তুলে নেয় এবং সে সময় অপহরণকারীরা আমাকেও খুঁজেছে। ঘটনার সময় আমি দোকানে না থাকায় ভাগ্যক্রমে বেঁচে যাই।

ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব এবং অপহরণ খুনের হুমকি বিষয়টি নিয়ে জানতে দক্ষিণ আফ্রিকা আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও কমিউনিটির দায়িত্বশীল আবু নাছের হাজারীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব ছিল সেটা দরবারের মাধ্যমে সমাধান হয়েছিল।

হুমকির ব্যাপারটা শাহীন বোখারীর অভিযোগের ভিত্তিতে বাদল মৃধাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল তখন তিনি এমন কিছু বলেনি বলে জানিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে দক্ষিণ আফ্রিকা শাখা যুবলীগের সভাপতি বাদল মৃধার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকা যুবলীগের মধ্যে ভাঙ্গন সৃষ্টি করতে এটা একটা রাজনৈতিক চক্রান্ত। এটা একটি নোংরামি রাজনীতি চলছে খু্ব শিগগিরই সত্যি প্রকাশ হবে।

দলীয় কর্মী ও সাবেক ব্যবসায়িক পার্টনারদের অপহরণ ও খুন করে ফেলার হুমকি-ধামকির অভিযোগের বিষয় তিনি বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট।

এমআরএম/এমকেএইচ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]