ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুলে ‘নদীর জীবন’ এর মোড়ক উন্মোচন

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:০২ পিএম, ১৯ এপ্রিল ২০২১

কাজী আশফাক রহমান

ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুল, বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি শিক্ষাদানের পাশাপাশি এর চর্চা, প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে নিরবচ্ছিন্নভাবে। আর তাই বাংলা বইয়ের পাঠাভ্যাস তৈরিতে বাংলা স্কুল সবসময় সচেষ্ট।

সিডনির প্রখ্যাত লেখক এবং বাংলা স্কুল পরিবারের সদস্য ইয়াকুব আলির সম্প্রতি প্রকাশিত প্রথম গ্রন্থ ‘নদীর জীবন’ এর আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে রোববার স্কুল প্রাঙ্গণে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

আনুষ্ঠানিকভাবে ইয়াকুব আলির নদীর জীবনের মোড়ক উন্মোচন করেন সিডনীতে বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্টা, ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নাজমুল আহসান খান।

নাজমুল আহসান খান শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, তিনি ইয়াকুব আলির লেখা নিয়মিত পড়েন এবং তিনি নদীর জীবনের সার্বিক সফলতা কামনা করেন।

লেখক ইয়াকুব আলি বলেন, তিনি যা বিশ্বাস করেন, যা হৃদয়ে ধারণ করেন তা লেখায় তুলে আনেন। সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে, বইটি সংগ্রহ করে পড়ার অনুরোধ করেন তিনি।

স্কুলের কার্যকরী কমিটিরসহ সভাপতি ফয়সাল খালিদ শুভ বলেন, একটি বই একজন লেখকের কাছে নিজের সন্তানের মত। নদী ভাঙ্গনে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েও ইয়াকুব আলির নদীর প্রতি ভালবাসা তার অসাধারণ লেখক সত্তাকে ভিন্ন উচ্চতায় নিয়ে গেছে।

jagonews24

বাংলা স্কুল সভাপতি মসিউল আজম খান স্বপন শুভেচ্ছা বক্তব্যে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তিনি ইয়াকুব আলির একজন গুণমুগ্ধ পাঠক। যে কোনো বিষয়ের উপর ইয়াকুবের সাবলিল লেখা তাকে গভীরভাবে স্পর্শ করে।

তিনি বলেন, ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুল অতীতের মত সবসময় বাংলা ভাষ ও সংস্কৃতির প্রচার, প্রসার ও উৎকর্ষ সাধনে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাবে। তিনি সবাইকে বাংলা স্কুলের কর্মকাণ্ডের সাথে আরও বেশি সম্পৃক্ত হতে আহ্বান জানান।

বাংলা স্কুলের সাধারণ সম্পাদক কাজী আশফাক রহমানের সঞ্চালনায় এই অনুষ্ঠানে স্কুলের কার্যকরী কমিটির সদস্য, শিক্ষক, অভিভাবকেরা উপস্থিত ছিলেন।

নদীর জীবন মূলত লেখকের শৈশব কৈশোরের স্মৃতিকথা হলেও এতে উঠে এসেছে আবহমান গ্রাম বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, পাশাপাশি স্থান পেয়েছে শহুরে সংস্কৃতির সাথে গ্রামীণ সংস্কৃতির সংঘাত ও সামঞ্জস্য। এই বইয়ের মূল উপজীব্য মানুষ এবং সময়ের সাথে মানুষের জীবনযাত্রার পরিবর্তন।

নদীর জীবনের শুভেচ্ছা মূল্য ধরা হয়েছে বিশ ডলার। প্রতি রোববার সকাল দশটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত ক্যাম্বেলটাউন বাংলা স্কুল প্রাঙ্গন থেকে বইটি সংগ্রহ করা যাবে। এছাড়া সরাসরি লেখকের সাথে যোগাযোগ করেও (ইয়াকুব আলি ০৪৫২১৭৭৫৯২) বই সংগ্রহ করা যাবে।

এমআরএম/জিকেএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]