করোনাকালে যেভাবে কাটল মিসর প্রবাসীদের ঈদ

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৪৬ এএম, ২০ মে ২০২১

পিরামিড, নীলনদ আর তিন ধর্মের ঐতিহাসিক দেশ মিসর। মরুভূমির ও ইসলামিক ঐতিহ্যবাহী এই দেশে কোনো বিশেষ আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই গত ১৩ মে ঈদুল ফিতর উদযাপন করেন মিসর প্রবাসী বাংলাদেশিরা। করোনা মহামারির মধ্যে সকল সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সাদামাটাভাবেই ঈদ কাটে তাদের। করোনার প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে রাখতে ও নিরাপদে থাকতে সকল ধরনের উৎসব নিষিদ্ধ করেছে দেশটি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু নির্দিষ্ট কিছু মসজিদে ঈদের জামায়াত নামাজ আদায় করেছেন দেশটির মুসল্লিরা।

রাজধানী কায়রোর ঐতিহাসিক মসজিদ আল-আযহার ও আমর ইবনে আল-আসসহ কয়েকটি বড় বড় মসজিদে সূর্য ওঠার ২০ মিনিট পর ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

মিশরে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ মনিরুল ইসলামসহ দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যরা নিজ নিজ এলাকায় জামাতে ও ঘরে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেন।

নামাজ ছাড়া ঈদের অন্যান্য চিত্রও এবছর ছিল ভিন্ন। কেউ কারো বাসায় বেড়াতে যাননি। ঈদের কোলাকুলি, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা ও আত্মীয়-প্রতিবেশীদের সঙ্গে উদযাপন কিছুই হয়নি। ফলে এক রকম নিষ্প্রাণ ঈদ উদযাপন করতে হয় মিসর প্রবাসী বাংলাদেশিদের।

ঈদের দিন দুপর দেড়টায় করোনার সকল বিধিনিষেধ মেনে ও অত্যন্ত সীমিত পরিসরে খুলে দেয়া হয় মিসরে বাংলাদেশ ভবন। সেখানে আগত বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যদের অভ্যর্থনা জানান রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম ও তার সহধর্মিনী মিসেস ফাহিমা।

প্রবাসী বাংলাদেশিদের আপ্যায়নের জন্য মিসেস ফাহিমা মনির নিজ হাতে তৈরি করেন বিভিন্ন ধরনের হালুয়া, খেজুরের সন্দেশ, বিভিন্ন রকমের সেমাইসহ দেশীয় ঐতিহ্যবাহী ঈদের সব খাবার।

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রবাসী বাংলাদেশি ও মিসরীয় নাগরিকসহ সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানান কায়রোতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম। তিনি দেশে অবস্থিত প্রবাসীদের পরিবারের সদস্যদেরও শুভেচ্ছা জানান।

রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বিশ্বজুড়ে করোনার তাণ্ডব চলছে। এই মহামারি থেকে সুরক্ষায় দেশে দেশে নানা বিধিনিষেধের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে মানুষদের। মিশরেও করোনা মহামারির তৃতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে ঈদুল ফিতরের সব ধরনের সমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে মিসর সরকার।’

তিনি আরও বলেন, ‘গোটা বিশ্ব এখন এক কঠোর ও অস্বাভাবিক সময় অতিক্রম করছে। এমন খারাপ সময় থাকবে না। আমাদের সুদিন আসবেই ইনশাল্লাহ।’

বাংলাদেশ দূতাবাস ভবনের ‘অপেন হাউজ’ অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে মিসরের বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্য, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নেতৃবৃন্দ, আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও আন্তর্জাতিক সংস্থায় কর্মরত বাংলাদেশিরা পরিবারসহ উপস্থিত ছিলেন।

ইএ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]