বার্লিনে বাংলাদেশের আম-কাঁঠাল

হাবিবুল্লাহ আল বাহার
হাবিবুল্লাহ আল বাহার হাবিবুল্লাহ আল বাহার জার্মানি
প্রকাশিত: ০৭:৪৫ পিএম, ২০ জুন ২০২১ | আপডেট: ০৭:৫৪ পিএম, ২০ জুন ২০২১

জার্মানির বার্লিনে অবস্থিত দেশীয় বাজার ‘লেবেন্সমিট্টেলমার্ক্ট’ বাংলাদেশ থেকে মৌসুমি ফল আম ও কাঁঠাল আমদানি করেছে। বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান ‘গ্লোবপেক ফুডস অ্যান্ড বেভারেজ’ এই ফল জার্মানিতে রফতানি করেছে।

এ বিষয়ে দেশি বাজার লেবেন্সমিট্টেলমার্ক্ট-এর পরিচালক শামস উদ্দিন মোহাম্মদ সজীব বলেন, আম ও কাঁঠাল আমদানির মধ্য দিয়ে আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে সরাসরি ব্যবসার যাত্রা শুরু করলাম। বার্লিনে বাংলাদেশ থেকে সরাসরি ফল বা সবজি পূর্বে কখনো আমদানি হয়নি। বাংলাদেশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সেলর মো. সাইফুল ইসলামের পরামর্শে আমদানি শুরু করেছি। ইতোমধ্যে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি এবং প্রথম দিনেই প্রায় সব আম বিক্রি হয়ে গেছে।

বাংলাদেশের রফতানিকারক গ্লোবপেক ফুডস অ্যান্ড বেভারেজের আমিনুল হক জানান, ইউরোপের বাজারে বিশেষ করে ইংল্যান্ড, ইতালি ও ফ্রান্সে বাংলাদেশ থেকে শাক-সবজি এবং আম রফতানি হলেও জার্মানিতে এটিই প্রথম। কন্টাক ফার্মিংয়ের মাধ্যমে আম ও কাঁঠাল সংগ্রহ করে বিশেষ প্রক্রিয়ায় প্যাকেটজাত করে জার্মানিতে রফতানি করা হয়। ভবিষ্যতে রফতানির পরিমাণ আরও বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

বার্লিনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, এই মুহূর্তে মূলত এশিয়ান কিংবা দেশীয় বাজারের দিকটা লক্ষ্য করে এই রফতানি প্রক্রিয়া শুরু হলেও আমাদের মূল লক্ষ্য ইউরোপীয় বাজারে প্রবেশ করা।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আমরা জার্মান এগ্রো বিজনেস অ্যালায়েন্সের সঙ্গে যৌথভাবে গ্লোবাল গ্যাপ সার্টিফিকেটের ওপর অনলাইনে একটি ‘বিশেষ অবহিতকরণ কর্মশালা’ আয়োজন করেছি। যেখানে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৪০ জন ব্যবসায়ী অংশগ্রহণ করেছে। ইউরোপের বাজারে প্রবেশের মূল শর্ত পণ্যের গুণগত মান এবং সার্টিফিকেশন। আমরা আশা করছি- বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সকল শর্ত পূরণ করে ইউরোপের বাজার ধরতে সক্ষম হবে।

এআরএ/এমকেএইচ

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]