মিসরে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন

প্রবাস ডেস্ক প্রবাস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:০০ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০২১

 

আফছার হোসাইন, মিসর থেকে

ঐতিহাসিক নীলনদ আর পিরামিডের দেশ মিসরে উদযাপিত হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন এবং শেখ রাসেল দিবস।

সোমবার (১৮ অক্টোবর) কায়রোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে তার প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রদূত মো. মনিরুল ইসলামসহ দূতাবাসের কর্মকর্তা ও প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

মো. ফেরদাউসের উপস্থাপনায় আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠন ইত্তেহাদ-এর নবনির্বাচিত সভাপতি মো. আলামিন কোরআন তিলাওয়াত ও মোনাজাত পরিচালনার পর রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন, দূতালয় প্রধান ও প্রথম সচিব মো. ইসমাইল হোসেন ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন তৃতীয় সচিব মো. আতাউল হক।

jagonews24

শেখ রাসেলের ওপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘ছোট্ট রাসেলের গল্প’ প্রদর্শন করার পর শেখ রাসেল সম্পর্কে আরবিতে আলোচনা করেন ষষ্ঠ শ্রেণির প্রবাসী ছোট্ট শিশু আদনান ও উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন দূতাবাসের প্রথম সচিব মো. ইসমাইল হোসেনসহ প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

অনুষ্ঠানে মিসরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত প্রবাসী শিশু-কিশোরদের মাঝে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় এবং দুই গ্রুপে অংশগ্রহণকারী শিশু-কিশোরদের উভয় গ্রুপের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীদেরকে পুরস্কার দেওয়া হয়।

jagonews24

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সবাইকে দূতাবাসের পক্ষ থেকে সনদপত্র দেওয়া হয়। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন রাষ্ট্রদূতের সহধর্মিণী ফাহিমা তাহসিনা।

সমাপনী বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, শেখ রাসেল ছিলেন মায়ের অত্যন্ত আদরের সন্তান ও সবার স্নেহে ছিলেন ধন্য। তিনি ছিলেন শিশুদের বন্ধু ও গরিব দুঃখী মানুষের সাহায্যকারী। নিজে কম খেয়ে আর্তমানবতার সেবাই ছিল তার শিশু মনের ব্রত ও উদ্দেশ্য।

আজকের শিশুরা শেখ রাসেলের জীবনাদর্শ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আগামীতে উন্নত বাংলাদেশকে পরিচালিত করতে ও নেতৃত্ব দিতে পারবে এই আমাদের প্রত্যাশা।

এমআরএম/জিকেএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]