মালদ্বীপে একদিনে করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড

মোহাম্মদ মাহামুদুল
মোহাম্মদ মাহামুদুল মোহাম্মদ মাহামুদুল
প্রকাশিত: ১২:৪৬ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০২২

মালদ্বীপের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হওয়া চারজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এর আগে সর্বশেষ করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছিল ১৪ জানুয়ারি। এখন পর্যন্ত মালদ্বীপে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৬৯ জনে।

মৃতরা হলেন- মালদ্বীপের হুলহুমালে মেডিকেল ফ্যাসিলিটি (এইচএমএফ) এ ভর্তি হওয়া ৬৩ বছর বয়সী এক নারী। দ্বিতীয় জন ৭৯ বছর বয়সী লামু কোভিড ম্যানেজমেন্ট ফ্যাসিলিটিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তৃতীয় জন ৭৬ বছর বয়সী সিটি কোভিড-১৯ ম্যানেজমেন্ট ফ্যাসিলিটিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। চতুর্থ জন ৮৪ বছর বয়সী লামু কোভিড-১৯ ম্যানেজমেন্ট ফ্যাসিলিটিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃতরা সবাই মালদ্বীপের নাগরিক।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) নিয়মিত সংবাদ বুলেটিন মালদ্বীপের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সংস্থা (এইচপিএ) এ তথ্য জানিয়েছে। এর আগে সর্বশেষ করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছিল ১৪ জানুয়ারি; ৩৪ বছর বয়সী বাংলাদেশি ব্যক্তি যাকে এস. ফেইধু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পৌঁছানোর পর মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল।

এইচপিএ জানিয়েছে, মালদ্বীপে কোভিড-১৯ পরিস্থিতির দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। বুধবার করোনায় শনাক্ত হয়েছিল ২ হাজার ১৩৭ জনের। এ নিয়ে মোট করোনা আক্রান্ত রোগী বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৮ হার ৭৩২ জনের।

নতুন আক্রান্তের মধ্যে বৃহত্তর রাজধানী অঞ্চলে ১২১৯ জন। রাজধানীর বাইরে আবাসিক দ্বীপগুলোতে ৫৪৭ জন। বিভিন্ন রিসোর্টে ৮৯ জন। লাইভবোর্ডে ৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এদিকে, একদিনে ৬৪২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী সম্পূর্ণ সুস্থ হয়েছে বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। মোট সুস্থ হয়েছে ৯৮ হাজার ৮৮০ জন। এখন আক্রান্ত রোগী ৯ হাজার ৫৭৪ জন। বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৩ জন রোগী রয়েছে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান প্রদেশের হুবেই শহরে প্রথম করোনার অস্তিত্ব শনাক্ত হয়। কয়েক মাসের মধ্যেই ভাইরাসটি বিশ্বের অধিকাংশ দেশে ছড়িয়ে পড়ে। গত বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে।

এমআরএম/জিকেএস

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]