গোনাহ মাফ ও প্রতিদান লাভের উপায়

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৪১ এএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৭

হজরত ইবনে মুবারাক রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, ‘অনেক ক্ষুদ্র আমল আছে; নিয়ত যাকে বড় করে দেয়। আবার অনেক বড় আমল আছে নিয়তের কারণে তা ছোট হয়ে যায়।’

যখন কোনো মুমিন বান্দা ইখলাসের সঙ্গে আমল করে তখন সে গোনাহ থেকে ক্ষমা পেয়ে যায় এবং আমলের অনেক গুণ বেশি প্রতিদান লাভ করে। বাহ্যিক দৃষ্টিতে সে আমল বা কাজটি যত ছোট হোক বা পরিমাণে যত অল্পই হোক না কেন।

এ কারণেই প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘তোমার ঈমানকে (ইখলাস/একনিষ্ঠতা ও বিশ্বাস) খাঁটি করো; অল্প আমলই নাজাতের জন্য যথেষ্ট হবে।’

মানুষের গোনাহ থেকে মুক্তি এবং অধিক পরিমাণে পুরস্কার বা প্রতিদান লাভে ইখলাসের সঙ্গে আমল করার বিকল্প নেই।

হজরত ইবনু তাইমিয়া রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, ‘অনেক আমল এমন আছে যা মানুষ পরিপূর্ণ ইখলাসের সঙ্গে সম্পাদন করে থাকে। ফলে আমলটি ইখলাসের পরিপূর্ণতার কারণে তার কবিরা (বড়) গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।’

হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ তিরমিজি ও ইবনে মাজায় ছোট্ট কালিমা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ ইখলাসের সঙ্গে বলার ফজিলত বর্ণিত হয়েছে যে-

হজরত আমর ইবনুল আস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কেয়ামতের দিন আমার উম্মতের এক ব্যক্তির ব্যাপারে চিৎকার দেয়া হবে। তার কাছে পাপের কাজের ৯৯টি বিশাল নথি উপস্থিত করা হবে। প্রতিটি নথির ব্যপ্তি হবে দৃষ্টি সীমার দুরুত্ব সমান।

তাকে জিজ্ঞাসা করা হবে, তুমি যে এ পাপগুলো করেছ তা কি অস্বীকার করবে? সে বলবে, হে আমার প্রতিপালক! এগুলো আমি অস্বীকার করতে পারি না।

আল্লাহ বলবেন, তোমার উপর জুলুম করা হবে না। এরপর হাতের তালু পরিমাণ একটা টিকিট বের করা হবে। যাতে লেখা থাকবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’।

সে বলবে এত বিশাল পাপের মোকাবেলা এ ছোট টিকিটের কি মূল্য আছে?

অতঃপর এ টিকিটটি এক পাল্লায় রাখা হবে আর তার পাপের ৯৯টি বিশাল নথি অপর পাল্লায় রাখা হবে। (দেখা যাবে ছোট্ট) টিকিটের পাল্লাই ভারী হবে। (সুবহানাল্লাহ!)

‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’-এর ছোট্ট টিকিটটির পাল্লা ভারী হওয়ার মূল কারণ হলো-

এ ব্যক্তি ইখলাসের (একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর জন্য) সঙ্গে সাক্ষ্য দিয়েছে বলেই জাহান্নাম থেকে মুক্তি পেয়ে যাবে।
আর যে সব কবিরা (বড়) গোনাহে লিপ্ত ব্যক্তিরা ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’র স্বাক্ষ্য দিয়েছে; তারাও জাহান্নাম থেকে মুক্তি পাবে না। কারণ, তারা ইখলাসের সঙ্গে তাওহিদের কালেমা পড়েনি।’

মনে রাখতে হবে-
মানুষের ঈমান ও প্রতিটি আমলে ইখলাস আবশ্যক। যে কারণে ইখলাসবিহীন ঈমান ও আমলের কোনো মূল্যই নেই। তাই মানুষের প্রতিটি কাজই ইখলাসের সঙ্গে করা উচিত।

অনেক বড় বড় ব্যক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বড় কাজ করার পরও গোনাহ মাফ ও পুরস্কার থেকে বঞ্চিত হবে। কারণ একটাই এ সব কাজে ইখলাস না থাকা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়ায় ঈমান গ্রহণ থেকে শুরু করে জীবনের প্রতিটি কাজই ইখলাসের সঙ্গে করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/জেআইএম