হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের প্রবর্তিত করণীয় সুন্নাত


প্রকাশিত: ০৯:৪৬ এএম, ১৮ মে ২০১৭

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামকে মুসলিম জাতির পিতা। তাঁকে কুরআনে ‘মিল্লাতা আবিকুম ইবরাহিম’ বলে ঘোষণা করেছেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা। তিনি মুসলিম জাতির জন্য সর্বপ্রথম গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাজের প্রবর্তন করেছেন। যা পালন করা মুসলিম উম্মাহর জন্য আবশ্যক করণীয় হয়ে আছে।

হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ মুয়াত্তাসহ অনেক হাদিস গ্রন্থে হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের প্রবর্তিত আবশ্যক করণীয় কাজগুলোর কথা ওঠে এসেছে। যা তুলে ধরা হলো-

>> সুন্নাতে খাতনা; তিনিই সর্বপ্রথম খৎনার প্রচলন করেন। যা পুরুষ মানুষকে অনেক রোগ-বালাই থেকে হেফাজত করে।
>> মেহমানদারী করা। কারণ মেহমানদারীতে রয়েছে অফুরন্ত রহমত ও বরকত।
>> নখ কাটা। হাত ও পায়ের নখ কাটার মাধ্যমে মানুষ অনেক রোগ-বালাই ও অপবিত্রতা থেকে রক্ষা পায়।
>> গোঁফ ছেঁটে রাখা। কারণ গোঁফ বড় হলে মানুষের খাদ্য গ্রহণে অসুবিধা হয়।
>> মিম্বারের ওপর দাঁড়িয়ে ভাষণ প্রদান করা।
>> দূত প্রেরণ করা।
>> তরবারি পরিচালনা করা। শত্রুর আক্রমণ থেকে নিজেকে এবং ইসলামের প্রচার প্রসার ও হেফাজতে করতে তরবারির ব্যবহার।
>> মিসওয়াক করা। প্রত্যেক নামাজের আগে মিসওয়াক অত্যন্ত সাওয়াবের কাজ।
>> পানি দ্বারা শৌচ ক্রিয়া সম্পাদনকারী এবং
>> পায়জামা পরিধানকারী। (মুয়াত্তা মালিক)

হাদিসে উল্লেখিত কাজগুলো আল্লাহ তাআলার অত্যাধিক পছন্দনীয়। তাছাড়া এ কাজগুলোর অধিকাংশই উম্মাতে মুহাম্মাদির জন্য বিশ্বনবির গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাতও বটে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হজরত ইবরাহিম আলাইহি সালামের প্রবর্তীত কাজগুলোকে যথাযথভাবে পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএমএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :