বেহেশতের বাগানে নামাজ পড়ে ধন্য অলিউদ্দিন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা মদিনা থেকে
প্রকাশিত: ০১:০২ পিএম, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ থানার চাঁদপুর গ্রামের অলিউদ্দিন তরফদার। গ্রামের সাড়ে ১৭ কাঠা জমি ও হালের ৫টি গরু বিক্রি করে এ বছর সস্ত্রীক হজে এসেছেন। বর্তমানে তারা মদিনায় অবস্থান করছেন।

বিশ্বের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর রওজা মোবারক নিজ চোখে দেখতে ও রিয়াজুল জান্নাতে (বেহেশতের বাগান) নামাজ আদায়ের জন্য রোববার সকাল ৯টায় মদিনার মসজিদে নববীর ২ নম্বর গেটে আসেন।

Hajj-2

দুই ঘন্টা যাবত দীর্ঘলাইনে দাঁড়িয়ে কয়েক দফা নিরাপত্তা বেষ্টনি পার হয়ে অবশেষে রিয়াজুল জান্নাতে পৌঁছান। এরপর নবীজির রওজার পাশেই বেহেশতের বাগান খ্যাত রিয়াজুল জান্নাহ মসজিদে নামাজ আদায় ও মহানবীর রওজা দেখে অভিভূত হয়ে চোখের পানি ফেলেন।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে অলিউদ্দিন জানান, গত ৫ আগস্ট তিনি সস্ত্রীক পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব পৌঁছান। হজ করতে দু’জনের জন্য ৬ লাখেরও বেশি টাকা খরচ করেন।

Hajj-3

তিনি জানান, এই অর্থ জোগাতে তিন লাখ টাকায় সাড়ে ১৭ কাঠা জমি ও হালের পাঁচটি গরু ১ লাখ ৬৮ হাজার টাকায় বিক্রি করেন। এছাড়া মেয়ের জামাই ৩০ ও ছেলের বউ ২০ হাজার টাকা দেন। নবীজির রওজা পরিদর্শন ও রিয়াজুল জান্নাতে নামাজ পড়তে পেরে তিনি ধন্য।

রিয়াজুল জান্নাতের বিষয়ে জানতে চাইলে বিভিন্ন হাদিসের উল্লেখ করে বাংলাদেশ সরকারি হজ দলের সুপারভাইজার সারোয়ার হোসেন জানান, নবীজির মিম্বর ও ঘরের মধ্যবর্তী স্থান জান্নাতের বাগানের বিপরীত দিকে অবস্থিত। অনেকের মতে স্থানটি প্রকৃতই জান্নাতের বাগান। আখেরাতে এ স্থানকে জান্নাতে রূপান্তরিত করা হবে। আবার অনেকের মতে, এ স্থানে রহমত নাজিল হয়, আর এখানে জিকিরের আসর কায়েম করলে সৌভাগ্য অর্জিত হয়। সে হিসেবে এটি জান্নাতের বাগানের মতো।

Hajj-4

তিনি জানান, বর্তমানে যে স্থানটিতে মহানবীর রওজা রয়েছে সেখানে ছিল তার সহধর্মিনী হজরত আয়েশা (রা.) এর বাড়ি। এ বাড়িতে আয়েশার কোলেই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এখানেই তাকে দাফন করা হয়।

অলিউদ্দিনের মতো হাজার হাজার হাজি এখন মদিনায় পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের বাইরে বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করছেন।

এমইউ/এমএমজেড/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :