ঢাকেশ্বরীতে ভক্তদের উপচেপড়া ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৩৮ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০২১

সর্বজনীন শারদীয় দুর্গোৎসবের আজ ছিল মহাঅষ্টমী। নিয়ম অনুযায়ী, মহাঅষ্টমীর সকালে কুমারীপূজা হয়। তবে মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে এবার হয়নি কুমারীপূজা।

আনুষ্ঠানিকভাবে কুমারীপূজা না হলেও এদিন রাজধানীর মন্দির ও মণ্ডপগুলোতে ছিল ভক্তদের উপচেপড়া ভিড়। সকাল থেকেই মন্দির-মণ্ডপ প্রাঙ্গণ ঢোল-বাদ্য ও উলুধ্বনি-শঙ্খের আওয়াজে মুখরিত হয়ে ওঠে। দুপুর গড়িয়ে বিকেল হতেই ভিড় বাড়তে শুরু করে। সন্ধ্যায় মন্দির-মণ্ডপগুলোতে জমে ওঠে আরতি প্রতিযোগিতা।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাজধানীর তাঁতীবাজার, শাঁখারিবাজার, সিদ্ধেশ্বরী, বনানী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের মন্দির ঘুরে এমন দৃশ্য চোখে পড়ে।

jagonews24

সন্ধ্যায় ঢাকেশ্বরী মন্দির ঘুরেও দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। সেখানে শুধু সনাতন ধর্মাবলম্বীই নয়, সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ দুর্গোৎসবে মেতেছেন। অনেকে মন্দিরে মন্দিরে ঘুরে দেবী দুর্গার দর্শনে বেরিয়েছেন।

এদিকে মহাঅষ্টমীতে মন্দিরে ব্যস্ত সময় পার করছেন পুরোহিতরা। অতিথিদের অভ্যর্থনায় ব্যস্ত মন্দির ও পূজা উদযাপন কমিটির নেতারা। ভক্তরাও তৃপ্ত মনে পূজা দিচ্ছেন। এসময় অনেক ভক্তকে দেবী দুর্গার সঙ্গে সেলফিও তুলতে দেখা যায়।

অন্যদিকে ঢাকেশ্বরী মন্দির ঐতিহ্যবাহী হওয়ায় সেখানে দেশের বিশিষ্টজনরা পরিদর্শন যাচ্ছেন। তারা দুর্গোৎসবে শুভেচ্ছা জানাতে আসছেন। বুধবার বিকেলে ঢাকেশ্বরীতে যান জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ফজলে নূর তাপস, সংসদ সদস্য শেখ সেলিম প্রমুখ।

jagonews24

দর্শনার্থী উর্মি রায় জাগো নিউজকে বলেন, ‘গত বছর করোনার কারণে সেভাবে পূজায় ঘুরতে পারিনি। এবারও করোনা আছে, তবে সংক্রমণ কিছুটা কম। ফলে কিছুটা স্বস্তিতে পূজা উদযাপন করতে পারছি।’

তিনি বলেন, বিকেল ৪টার দিকে পুরো পরিবার নিয়ে আমরা বেরিয়েছি। বেশ কয়েকটি মন্দিরে গিয়েছিলাম, সবখানেই সুশৃঙ্খলভাবে পূজা হচ্ছে। মা দুর্গাকে পূজা দিলাম, সবার সঙ্গে খুব মজা করছি।

ঢাকেশ্বরী পূজা উদযাপন পরিষদের কয়েকজন সদস্য জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দিরে পূজা উদযাপন করা হচ্ছে। মাস্ক ছাড়া কাউকে মন্দিরে না আসতে অনুরোধ করা হচ্ছে। পাশাপাশি মন্দিরে জটলা না করে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে স্বেচ্ছাসেবীরা কাজ করছে।

jagonews24

এদিকে সব মন্দিরে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে পুলিশ ও আনসার বাহিনী। মন্দিরে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাও (সিসিটিভি) বসানো হয়েছে। সার্বক্ষণিক তৎপর রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

ঢাকেশ্বরী মন্দিরে দায়িত্বরত একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে পুলিশ তৎপর। মন্দির এলাকায় কঠোর নিরাপত্তা নিশ্চিতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। মন্দিরের ভেতরে-বাইরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর।

এএএম/এএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]