বছর সেরা সাফল্য : চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল

আরিফুর রহমান বাবু
আরিফুর রহমান বাবু আরিফুর রহমান বাবু , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৩:৪৪ পিএম, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭

ক্রিকেটে টাইগারদের এ বছরের সেরা অর্জন বা সাফল্য কি? তেমন হিসেব কষতে হবে না। ২০১৭ সালে অনেক ম্যাচ খেললেও টাইগারদের সাফল্য হাতে গোনা। টেস্টে শ্রীলঙ্কার মাটিতে গিয়ে লঙ্কানদের হারানো; তাও নিজেদের শততম টেস্টে। এটা অবশ্যই স্মরণীয় অর্জন। আর দেশের মাটিতে মহাপরাক্রমশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্টে ২০ রানের জয়টিও মহামূল্যবান। আর ওয়ানডেতে সেরা সাফল্য অবশ্যই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে খেলা।

২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হওয়া বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সেরা আটে ছিল বাংলাদেশ। ভারতের সাথে ঘটনাবহুল কোয়ার্টার ফাইনালে হারার আগে মাশরাফির দল ইংলিশদের বিশ্বকাপ স্বপ্ন ভেঙ্গে আলোড়ন তুলেছিল।

মাঝে এক বছর বিরতি। এ বছর জুনে ইংল্যান্ডে হওয়া চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির অষ্টম আসরে আবার পাদ প্রদীপের আলোয় টাইগাররা। এবার নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে একদম সেরা চারে জায়গা করে হই চই ফেলে দিয়েছিল মাশরাফি অ্যান্ড কোং।

Bangladesh-1

বছর শুরু হয় শ্রীলঙ্কার সাথে জয় দিয়ে। ২৫ মার্চ ডাম্বুলায় শ্রীলঙ্কাকে ৯০ রানে হারিয়ে শুভ সূচনা। ঠিক একসপ্তাহ পর (১ এপ্রিল) কলম্বোর সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে ৭০ রানের হারে জয়রথ থেমে যায়; কিন্তু পরে আবার তা সচল হয়। ডাবলিনে আয়ারল্যান্ডকে পরপর দুই ম্যাচে যথাক্রমে ৮ ও ৫ উইকেটে হারানোর পর।

এরপর ১ জুন ওভালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তামিম ইকবালের অনবদ্য সেঞ্চুরি (১২৮) আর মুশফিকুর রহীমের ‘বিগ ফিফটি’ (৭৯) রানে সাজানো ৩০৫ রানের বড় স্কোর গড়ে জয়ের আশা জাগানো; কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি। ৮ উইকেটের বড় পরাজয়ে শুরু হয় চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি। সবশেষে সেই ধাক্কা সামলে সামনে আগানো।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৬৬ রানের চ্যালেঞ্জিং টার্গেটের পিছু ধেয়ে ধ্বংস্তুপের (৩৩ রানে ৪ উইকেট খুইয়েও) মাঝখান থেকে ফিনিক্স পাখির মত উঠে দাঁড়ানো। সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অনমনীয় দৃঢ়তায় ৫ উইকেটের অবিশ্বাস্য জয়ে সেমিফাইনালে পৌঁছে যাওয়া। সাকিব (১১৫ বলে ১১৪) ও মাহমুদউল্লাহ (১০৭ বলে ১০২*) জোড়া শতকে পঞ্চম উইকেটে ২২৪ রানের বিশাল জুটি যোগ হলে দারুন এক জয়ের দেখা পায় বাংলাদেশ।

Bangladesh-1

আড়াইশোর বেশি টার্গেট সামনে। তা করতে গিয়ে তিরিশের ঘরেই চার প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যান আউট। সেই দল জিতে কি করে? এমন কথা, যখন প্রায় সবার মুখে, ঠিক তখনই দাঁড়িয়ে গেলেন সাকিব আর মাহমুদউল্লাহ। ইস্পাত কঠিন মনোবল আর আত্মবিশ্বাসী উইলোবাজির মিশেলে তৈরি হলো জুটি। যা ভাঙ্গতে নাভিশ্বাস উঠলো ইংলিশ বোলারদের।

৫ উইকেটের দারুণ জয়ে সেমিফাইনালে পৌঁছে যায় মাশরাফির দল। ভারতের বিপক্ষে সেমির যুদ্ধটা জমেনি। কোহলিদের কাছে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে হারেই শেষ হয় চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির মিশন।

এআরবি/আইএইচএস/জেআইএম