ওসমান ফারুকের যুদ্ধাপরাধ তদন্তে ধর্মমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ


প্রকাশিত: ১০:২৩ পিএম, ১৮ এপ্রিল ২০১৭
ওসমান ফারুকের যুদ্ধাপরাধ তদন্তে ধর্মমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ
ফাইল ছবি

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ড. ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে মামলায় আনুষ্ঠানিক তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়ে ময়মনসিংহের মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের লোকদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানকেও ওসমান ফারুকের অপরাধ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মামলা সংশ্লিষ্টরা।

জানা গেছে, গত ৪ জানুয়ারি থেকে ট্রাইব্যুনালের সংস্থা তদন্ত কাজ শুরু করে। এর আগে তার বিরুদ্ধে তদন্ত সংস্থায় অভিযোগ অন্তর্ভুক্ত করা হয়। পাশাপাশি মামলার আইও এবং তদন্ত কাজে সহায়তার জন্য একজন প্রসিকিউটর নিয়োগ দেয়া হয়। ইতোমধ্যে তার বিরুদ্ধে আনা মানবতাবিরোধী অভিযোগের সম্পৃক্ততা মিলেছে বলেও জানা গেছে।

এ বিষয়ে ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা এম সানাউল হক জাগো নিউজকে বলেন, ‘ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে স্বাধীনতাবিরোধী কর্মকাণ্ডের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। এরইমধ্যে অভিযোগের তথ্য সংগ্রহ করার জন্য তদন্ত কর্মকর্তা ও মামলা পরিচালনা করার জন্য প্রসিকিউটর নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

তদন্তে ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে এবং অপরাধের সম্পৃক্ততা মিলছে।’

তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান জাগো নিউজকে জানান, ড. ওসমান ফারুকের মামলা তদন্ত করার জন্য একজন তদন্তকারী এবং প্রসিকিউটর নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তার অপরাধের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক তদন্তও শুরু হয়েছে। আইওর সঙ্গে জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সানাউল হক ময়মনসিংহ গিয়েছিলেন।

ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে প্রাথমিক অনুসন্ধান শুরু করা হয়েছিল ২০১৬ সালের ৪ মে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে একজন তদন্ত (আইও) কর্মকর্তা এবং একজন প্রসিকিউটর নিয়োগ দেয়া হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে সহকারী পুলিশ সুপার হেলাল উদ্দিনকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

তদন্ত কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘মামলার পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরু করেছি। তদন্তের রেকর্ড ও নথিপত্র সংগ্রহের কাজ চলছে।’

তদন্তে নতুন নতুন তথ্য সংগ্রহ করার জন্য মার্চ মাসের শেষ দিকে ময়মনসিংহ শহরের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান ঘুরে মুক্তিযোদ্ধাসহ মামলা সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য পয়েন্ট আকারে নোট নেয়া হয়। সেদিন তদন্ত সংস্থার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সানাউল হক, মামলার আইও মো. হেলাল উদ্দিন ও অপর সদস্য মনোয়ারা বেগম ময়মনসিংহ ঘুরে আসেন বলে জানান হেলাল উদ্দিন।

তবে তথ্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মামলা ও বিচারের স্বার্থে এসব এখনই প্রকাশ করা যাবে না।’

হেলাল উদ্দিন বলেন, ওসমান ফারুকের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত করতে গিয়ে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান স্যার, জেলার মুক্তিযোদ্ধা ও নির্যাতিতদের পরিবার ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ১২-১৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল ময়মনসিংহস্থ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন আশেপাশের এলাকা ও বধ্যভূমি ঘুরে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

এর আগে ২০১৫ সালে ময়মনসিংহ ৭ (ত্রিশাল) আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির এমপি এমএ হান্নানের বিরুদ্ধে একাত্তরে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে ওসমান ফারুকসহ ১১ জনের সংশ্লিষ্টতার তথ্য খোঁজ পায়। অনুসন্ধান শেষে ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত সংস্থার কমপ্লেইন রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগের মধ্যদিয়ে মামলার তদন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়। তদন্ত কাজে সহায়তা করতে প্রসিকিউশন শাখার একজন কর্মকর্তা প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনকে গত ১৬ জানুয়ারি নিয়োগ দেয়া হয়।

সায়েদুল হক সুমন জাগো নিউজকে বলেন, ‘ওসমান ফারুকের বিরুদ্ধে মামলা তদন্তের জন্য আমাকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা তদন্ত শুরু করেছেন। আমার ময়মনসিংহ যাওয়ার কথা ছিল কিন্তু যাওয়া হয়নি।’

২০১৬ সালের ৪ মে ধানমণ্ডিস্থ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আব্দুল হান্নান খান বলেছিলেন, ওসমান ফারুক স্বাধীনতাবিরোধী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন- এর পক্ষে তথ্য-উপাত্ত পাওয়া গেছে। এরপর ওসমান ফারুক পালিয়ে সিলেট সীমান্ত পথে দেশের বাইরে চলে যান। সেই থেকে তিনি লাপাত্তা (পলাতক)। মোবাইল ফোনে একাধিকবার কথা বলার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

ওই সময় জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা এম. সানাউল হক জানিয়েছিলেন, পুরনো কাগজপত্রে দেখা যায়, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় পূর্ব পাকিস্তান (বর্তমানে ময়মনসিংহ) কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ওসমান ফারুকসহ ১১ জন শিক্ষক পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে সহায়তা করেছিলেন এবং স্বাধীনতাবিরোধী কর্মকাণ্ডে অংশ নেন। সেখানে একটি টর্চার সেলও ছিল। ওই তালিকার সূত্র ধরে খোঁজ-খবর নেয়া হয়েছে। তাদের অধিকাংশই সে সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বা কর্মকর্তা ছিলেন। ওসমান ফারুক সে সময় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রিকালচার ইকোনমি অনুষদের লিডার ছিলেন।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকালীন উপাচার্য ওসমান গণির ছেলে ড. ওসমান ফারুক বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের সময়ে শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন। তার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলায়।

এফএইচ/আরএস/বিএ