বহাল তবিয়তে ‘বড় শিক্ষকদের’ কোচিং বাণিজ্য

মুরাদ হুসাইন
মুরাদ হুসাইন মুরাদ হুসাইন , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০৩ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা শুরুর আগে থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু সে নির্দেশনা না মেনে কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন ঢাকার শীর্ষপর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা।

সরকারের নির্দেশনা অমান্য করে অনেকে রাজধানীর বিভিন্ন ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে কোচিং ক্লাস চালিয়ে যাচ্ছেন। গতকাল রোববার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন পরিদর্শনে এমন চিত্র দেখা গেছে।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের রসায়ন বিষয়ের শিক্ষক ফরহাদ বিন কামাল। তিনি ১১/৩, নম্বর সিদ্ধেশ্বরী এলাকার একটি ফ্ল্যাট বাড়ির দ্বিতীয় তলা ভাড়া নিয়ে কোচিং সেন্টার চালন। তার কোচিংয়ে অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বেশ কয়েকজন শিক্ষককে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী এখানে কোচিং করেন।

রোববার দুপুর দেড়টায় সরেজমিন ওই কোচিং সেন্টারে গিয়ে দেখা যায়, ভিকারুননিসার সপ্তম শ্রেণির প্রায় ১৫ শিক্ষার্থীকে কোচিং ক্লাস করানো হচ্ছে। স্কুল ছুটির পর ড্রেস পরেই এসব শিক্ষার্থী কোচিংয়ে আসেন। জাগো নিউজের প্রতিবেদক ভেতরে প্রবেশ করেছেন- এমন সংবাদ পেয়েই সব শিক্ষার্থীকে বের করে দেয়া হয়। শিক্ষার্থীদের বলা হয়, ‘সাংবাদিক এসেছে, সমস্যা আছে। আজ আর পড়ানো হবে না।’

ভিকারুননিসার শিক্ষক ফরহাদ বিন কামালের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনিও কিছু না বলে ফ্ল্যাটের লাইট-ফ্যানের সুইচ অফ করে সেখান থেকে সটকে পড়েন। পরে ফ্ল্যাটের ভাড়াটিয়াদের কাছে জানা যায়, প্রায় ১৪ বছর ধরে তিনি এ বাসায় কোচিং সেন্টার পরিচালনা করে আসছেন। তার সঙ্গে অন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তপন ও ডা. মঞ্জু নামে আরও দুই শিক্ষক রয়েছেন।

১১/৩, নম্বর সিদ্ধেশ্বরীর ওই ফ্ল্যাটের ঠিক পাশের ৪৩, খন্দকার গলিতে ভিকারুননিসার শামসুল হুদা ও গণি স্যারের কোচিং সেন্টার। ওই বাড়ির নিচ তলায় কয়েকজন শিক্ষক মিলে ফ্ল্যাট ভাড়া করে কোচিং সেন্টার চালান। সেখানে ঢুকতেই চোখে পড়ে, ভিকারুননিসাসহ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ড্রেস পরা আট-দশ শিক্ষার্থী বের হয়ে যাচ্ছেন।

এছাড়া সিদ্ধেশ্বরী এলাকার মনোয়ার হাসাপাতালের পাশে বই বিচিত্রা লাইব্রেরির ওপরে ভিকারুননিসার গণিতের শিক্ষক নাসরীন আক্তার, বই ঘরের গলিতে নটর ডেম কলেজের গণিতের শিক্ষক রেজাউল করিম, একই প্রতিষ্ঠানের বিপ্লব স্যার, আইসিটি বিষয়ের শিক্ষক ফরহাদ মঞ্জুর, সিদ্ধেশ্বরী কালিমন্দিরের পাশে সকাল-বিকাল বিভিন্ন ব্যাচে রসায়ন, পদার্থ, গণিতসহ বিভিন্ন বিষয়ে কোচিং করান ইঞ্জিনিয়ার নীল, খিলগাঁও স্কুল অ্যান্ড কলেজে মৃদুলসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা।

কোচিংয়ে কী পড়ানো হয়- শিক্ষার্থীদের কাছে জানতে চাইলে তারা কিছুই বলতে রাজি হননি। তবে কোচিং সেন্টারের ভেতরে অবস্থান করা সুজন নামে এক ব্যক্তি জানান, এখন তো কোচিং বন্ধ, অফিসের কাজে আসা। শিক্ষার্থীরা কেন এখানে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ছাত্রীরা বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে স্যারের কাছে আসেন। তাদের তো বাধা দেয়া যায় না।

কারা কোচিং সেন্টারটি পরিচালনা করেন- জবাবে তিনি বলেন, ভিকারুননিসাসহ পাশের কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা এটি দেখভাল করেন।

এদিকে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের পাশের এলাকার কয়েকটি ফ্ল্যাট বাড়িতেও শিক্ষার্থীদের কোচিং করাতে দেখা যায়। মূলত মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলের কয়েকজন শিক্ষক তাদের নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়ে তুলেছেন এসব কোচিং সেন্টার। তবে সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে সেখানেও আসা সব শিক্ষার্থীকে বিদায় করে দেন শিক্ষকরা। তারা নিজেরাও সটকে পড়েন।

সরকারি নির্দেশনার পরও কেন শিক্ষার্থীদের কোচিং সেন্টারে পাঠানো হচ্ছে- এমন প্রশ্ন করা হয় কয়েকজন অভিভাবককে। তারা উল্টো অভিযোগ করে বলেন, স্যাররা ক্লাসে মনোযোগ দিয়ে পড়ান না। এ কারণে কোচিং সেন্টারে সন্তানকে নিয়ে দৌড়াতে হয়। ক্লাস টিচাররাই তার কোচিংয়ে আসতে শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিচ্ছেন। তার কাছে কোচিং না করলে নানাভাবে ভয়ভীতিও দেখানো হয়। এ কারণে বাধ্য হয়ে স্কুলের স্যারদের কাছে সন্তানকে পাঠাই।

তারা আরও বলেন, চলতি বছরের দুই মাস পার হওয়ার পথে, অথচ সিলেবাসের তেমন কিছুই পড়ানো হয়নি। ক্লাসেও ভালোভাবে পড়ানো হচ্ছে না। তাই কোচিংয়ে পাঠানো ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। এজন্য প্রতি মাসে চড়া বেতন দিতে হচ্ছে শিক্ষকদের।

jagonews

সরকারি নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে এভাবে ফার্মগেটের হলিক্রস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মিরপুরের মনিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মিরপুর বাঙলা স্কুল, মিরপুর-২ এ অবস্থিত ন্যাশনাল বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়সহ ঢাকা মহানগরীর স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা চলমান এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার মধ্যে কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন।

কোচিং খোলা রাখার বিষয়ে খন্দকার গলির কোচিং সেন্টারের পরিচালক ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষক শামসুল হুদা বলেন, গত ২৭ ডিসেম্বর থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ। কিছু শিক্ষার্থী সমস্যা নিয়ে আমার কাছে আসে। আমি তাদের একটু দেখিয়ে দেই। সরকারি নির্দেশনা মেনে কোনো শিক্ষার্থীকে পড়ানো হচ্ছে না।

‘তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের নিয়ে এসে অনুরোধ জানালে তাদের একটু দেখিয়ে দেই মাত্র। আপনারা পারলে অভিভাবকদের আসতে নিষেধ করেন। তারা তাদের সন্তানদের না নিয়ে আসলে কোনো শিক্ষক আর কোচিং করাবেন না।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হক জাগো নিউজকে বলেন, ‘এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন সব কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কেউ কোচিং সেন্টার খোলা রেখেছেন- এমন তথ্য পেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমরা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়ে থাকি।’

‘সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক যদি কোচিং করান, সেটা অন্যায় বলে গণ্য হবে। এমন তথ্য পেলে সঙ্গে সঙ্গে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নেই।’

ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘পাশাপাশি দুটি পরীক্ষার সময় পিছিয়ে যাওয়ায় ২৭ ফেব্রুয়ারির পরিবর্তে আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারি এসএসসি পরীক্ষা শেষ হবে। এ কারণে ২৯ ফেব্রুয়ারির আগে কেউ যদি কোচিং সেন্টার খোলা রাখেন তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমান পরীক্ষা। এ পরীক্ষা সামনে রেখে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রশ্নপত্র ফাঁস ও নিরাপত্তাজনিত কারণে ২৭ জানুয়ারি থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশনা দেয়।

সরকারি ওই নির্দেশনা অনুযায়ী রাজধানীর নামিদামি কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। অনেকে প্রতিষ্ঠানের সামনে কোচিং সেন্টার বন্ধের বিজ্ঞপ্তি লাগিয়ে দিয়েছেন। কেউ আবার কালো ব্যানারে বন্ধের নোটিস ঝুলিয়ে রেখেছেন। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখা হয়েছে।

এমএইচএম/এমএআর/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :