বছরের শেষ তিন মাসে কোনো ক্রিকেটই নেই!

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩৮ পিএম, ০২ জানুয়ারি ২০১৮

নতুন বছরের বয়স হয়ে গেলো একদিন। ২০১৭ সালের শুরুটাও হয়েছিল এভাবে। এরপর একে একে ৩৬৫দিন পেরিয়ে কালের গর্বে মাত্র একদিন আগেই হারিয়ে গেলো ২০১৭ সাল। ২০১৮ সালের শুরুতেই পুরনো সব হিসাব চুকে নতুন করে পথ চলার বার্তা বিশ্বব্যাপি। ক্রীড়াঙ্গনেও বাজছে সেই সুর। নতুন বছরে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গন কী কী পসরা সাজিয়ে বসছে তার খানিক ফিরিস্তি দেয়া হয়েছে জাগো নিউজের পাঠকদের জন্য। (আরও পড়ুন : বিশ্বকাপে বুঁদ হয়ে থাকবে ক্রীড়াপ্রেমীরা)

তবে বিশেষ করে ক্রিকেট ভক্তদের জন্য আলাদাকরে নতুন আরেকিট নিবন্ধের অবতারনা। বছরব্যাপি বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের কার্যক্রম কী, পুরো বছরে তাদের সূচি নিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে আরও একটি নিউজে। (আরও পড়ুন : ২০১৮ সালে মাশরাফি-সাকিবদের পূর্ণাঙ্গ সূচি)। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নতুন বছরে দর্শক-সমর্থকদের জন্য কী পসরা সাজিয়ে বসেছে সে সব নিয়েই হাজির হয়েছি এখানে।

jagonews24

সবচেয়ে মজার বিষয় হলো- সারা বছরই ক্রিকেট নিয়ে মেতে থাকার সুযোগ পাচ্ছে ক্রিকেটপ্রেমীরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নানা সিরিজের সঙ্গে থাকছে ঘরোয়া আসর- ফ্রাঞ্জাইজি লিগগুলো। ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা আইসিসিই নির্ধারণ করে দিয়েছে, এই বছরে কে কার বিপক্ষে কোন সিরিজে খেলবে। কিন্তু সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হলো, আন্তর্জাতিক (আইসিসি) ক্রিকেটের সূচিতে বছরের শেষ তিন মাসে কোনো খেলাই নেই। অক্টোবর, নভেম্বর এবং ডিসেম্বরে পুরো ফাঁকা আইসিসির ক্রিকেট ক্যালেন্ডার।

যদিও দর্শকদের ক্রিকেট নিয়ে মেতে না থাকার অবকাশ থাকবে না। কারণ, আইসিসি নির্ধারিত সূচির বাইরেও ক্রিকেট থাকবে। বোর্ডগুলোর পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে দ্বি-পাক্ষিক কিংবা ত্রি-দেশীয় সিরিজ। একই সঙ্গে বছরের শেষ দিকে এসে তো বাংলাদেশের ক্রিকেট দর্শকরা মেতে উঠবে বিপিএল নিয়েই।

নতুন বছরের শুরুটা হচ্ছে অ্যাশেজ সিরিজ চলাকালীন সময়েই। চলতি সিরিজের চার টেস্ট ইতিমধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাকি আছে সিডনি টেস্ট। ৪ জানুয়ারি শুরু হবে অ্যাশেজের শেষ টেস্ট। একদিন পরই শুরু হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত জমজমাট টেস্ট লড়াই। এরই মধ্যে অনুষ্ঠিত হচ্ছে নিউজিল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টি-টোয়েন্টি লড়াই।

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের নিউজিল্যান্ড সফরও শুরু হচ্ছে এ সপ্তাহ থেকেই। ৬ জানুয়ারি শনিবার থেকে শুরু হবে নিউজিল্যান্ড-পাকিস্তান ওয়ানডে সিরিজ। ১৫ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশে শুরু হচ্ছে শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ। শেষ হবে ২৭ জানুয়ারি। ৩১ জানুয়ারি থেকে চট্টগ্রামে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ।

জানুয়ারিতেই শেষ হয়ে যাবে অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। শুরু হবে ১৪ জানুয়ারি। শেষ হবে ২৮ জানুয়ারি। এই মাসেই নিউজিল্যান্ডে বসছে মেগা আইসিসি ইভেন্ট। অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ। ১২ জানুয়ারি শুরু হবে এই বিশ্বকাপের আসর।

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই শেষ হবে যুব বিশ্বকাপের আসর। ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে ফাইনা। ফেব্রুয়ারির ১ তারিখ থেকে শুরু হবে দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত ওয়ানডে সিরিজ। ৬ ম্যাচের এই সিরিজ শেষ হবে ১৬ তারিখ। ১৮ তারিখ থেকে শুরু হবে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। শেষ হবে ২৪ তারিখ। নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের ওয়ানডে সিরিজও ফেব্রুয়ারির ২৫ তারিখ থেকে।

মার্চে শ্রীলঙ্কায় রয়েছে চারজাতি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। যেখানে স্বাগতিকরা ছাড়াও রয়েছে ভারত, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান। ৮ তারিখ শুরু হবে টুর্নামেন্টটি। শেষ হবে ২০ তারিখ। মার্চের ১ তারিখ থেকে শুরু হবে জমজমাট টেস্ট সিরিজ। অ্যাশেজের চেয়েও যেটা বেশি আকর্ষণীয়। প্রতিপক্ষ দুই দল যে অস্ট্রেলিয়ার আর দক্ষিণ আফ্রিকা! ডারবানের কিংসমিডে শুরু হবে সিরিজটি।

মার্চের ২২ তারিখ থেকে অকল্যান্ডে শুরু হবে নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ। এপ্রিল মাসজুড়ে আইসিসির ক্রিকেট সূচিতে কোনো সিরিজ নেই। এর একটাই কারণ, আইপিএল। ৪ এপ্রিল থেকে যে শুরু হবে ভারতের জমজমাট ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ, আইপিএল! প্রায় ২ মাস দীর্ঘ এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ৩১ মে।

এর মধ্যে অবশ্য মে মাসে টেস্ট ক্রিকেটে ১১তম দেশ হিসেবে অভিষিক্ত হবে আয়ারল্যান্ড। ১১ মে ডাবলিনে পাকিস্তানের বিপক্ষে ইতিহাসে প্রথম টেস্ট খেলতে নামবে আইরিশরা। আয়ারল্যান্ড থেকে পাকিস্তান চলে যাবে ইংল্যান্ডে। ২৪ মে থেকে শুরু হবে পাকিস্তান-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ।

jagonews24

জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাবে শ্রীলঙ্কা। ৬ জুন থেকে পোর্ট অব স্পেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট খেলতে নামবে লঙ্কানরা। ১০ জুন স্কটল্যান্ড-ইংল্যান্ড খেলবে মাত্র এক ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। এরপর ১২ এবং ১৩ জুন পাকিস্তান-স্কটল্যান্ড মুখোমুখি হবে ২ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে। ১৩ জুনই শুরু হবে ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়া ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ২৭ জুন অনুষ্ঠিত হবে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।

জুলাইতে রয়েছে ভারতের ইংল্যান্ড সফর। ৩, ৬ এবং ৮ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ। এরপর ১২-১৭ তারিখের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। আগস্টে গিয়ে অনুষ্ঠিত হবে ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ১ আগস্ট থেকে শুরু হয়ে এই সিরিজ চলবে ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। প্রথম টেস্ট শুরু হবে ১ আগস্ট, দ্বিতীয় টেস্ট ৯ আগস্ট, তৃতীয় টেস্ট ১৮ আগস্ট, চতুর্থ টেস্ট ৩০ আগস্ট এবং ৫ম টেস্ট শুরু হবে ৭ সেপ্টেম্বর।

আইসিসি সূচিতে সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ড এবং ভারত ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শেষ হওয়ার পরই আর কোনো খেলা নেই। সাড়ে তিন মাসেরও বেশি সময় অনুষ্ঠিত হবে নির্ধারিত কোনো সূচির খেলা। তবে এই সময়ের মধ্যে প্রতিটি দেশই পারস্পরিক একাধিক সিরিজ খেলার কথা রয়েছে। সেপ্টেম্বরেই এশিয়া কাপ ক্রিকেট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে ভারতে। ওয়ানডে ফরম্যাটে অনুষ্ঠিত হবে এই টুর্নামেন্টটি।

অক্টোবরে ভারতের সূচি রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের। যদিও এই সফরের সূচি এখনও নির্ধারিত নয়। তিন টেস্ট, ৫ ওয়ানডে এবং ১ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে ওই সফরে। নভেম্বরে রয়েছে বাংলাদেশের বিপিএল। ভারতও বসে থাকবে না। অস্ট্রেলিয়া সফরের কথা রয়েছে তাদের। টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটেই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

আইএইচএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :