নারী ক্রিকেটে ভারতের প্রথম সেঞ্চুরি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৪৬ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৮

ছেলেদের ক্রিকেটে ভুরি ভুরি সেঞ্চুরি। কিন্তু নারী ক্রিকেটের টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে এতদিন ভারতীয় কোনো ব্যাটসম্যানের সেঞ্চুরি ছিল না। তবে বিশ্বকাপের মঞ্চে গিয়ে এবার সেই আক্ষেপটি ঘুচিয়ে দিলেন অধিনায়ক হারমানপ্রিত কাউর।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত নারী বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫১ বলে ১০৩ রানের এক বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন হারমানপ্রিত। এতদিন টি-টোয়েন্টিতে ভারতীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ স্কোর ছিল মিতালি রাজের। তার রান ছিল অপরাজিত ৯৭। এবার সেই মিতালি রাজকে পেছনে ফেলে দিলেন হারমানপ্রিত।

হারমানপ্রিতের বিধ্বংসী শতরান সঙ্গে জেমিমা রদ্রিগেজের সময়োপযোগি ব্যাটিংয়ে ভর করে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে রানের চূড়ায় উঠে যায় ভারত। গায়ানার প্রোভিডেন্স স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম ম্যাচে প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ডকে ১৯৫ রানের বিশাল লক্ষ্য বেধে দেয় ভারত। জবাব দিতে নেমে কম যায়নি কিউেইরাও। হারলেও তারা থামে ১৬০ রানে। ফলে প্রথম ম্যাচে ভারতের জয় ৩৪ রানের ব্যবধানে।

southeast

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে এদিন টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় ভারত অধিনায়ক হারমানপ্রিত কাউর। দুই ওপেনার স্মৃতি মন্ধানা এবং তানিয়া ভাটিয়া খুব দ্রুত ফিরে যান। মাত্র ২২ রানে ২ উইকেট হারায় ভারত। এরপর ৭ বলে ১৫ রান করে ফিরে যান দয়ালান হেমলতাও। ৪০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে ভারতের মেয়েরা। সেখান থেকেই চতুর্থ উইকেটে অধিনায়ক হারমানপ্রিত এবং জেমিমার পার্টনারশিপে ভর করে ঘুরে দাঁড়ায় ভারত।

জেমিমাকে সঙ্গে নিয়ে চতুর্থ উইকেটে তার ১৩৪ রানের জুটি ভারতকে ধীরে ধীরে এগিয়ে নিয়ে যায় বড় রানের দিকে। ৩৩ বলে প্রথম পঞ্চাশ পূর্ণ করেন তিনি। এরপর দ্বিতীয় পঞ্চাশ পূর্ণ করতে হারমানপ্রিত খেলেন মাত্র মাত্র ১৬ বল। সব মিলিয়ে ৫১ বলে ৭ চার এবং ৮ ছক্কায় ১০৩ রান করে ফেরেন তিনি। ৪৫ বলে ৫৯ রান করেন জেমিমা রদ্রিগেজ। মূলতঃ এই দুই ব্যাটসম্যানের সৌজন্যে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৯৪ রানের বিরাট স্কোর দাঁড় করায় ভারত।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো ছিল নিউজিল্যান্ডের। তবে ৬.৩ ওভারে প্রথম উইকেটের পতন শুরু হতেই ধস নামে কিউই ব্যাটিং লাইন আপে। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬০ রান করে নিউজিল্যান্ড। ৬৭ রান করেন সুজি বেটস। ৩৯ রান করেন কেটি মার্টিন।

আইএইচএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :