অশান্ত গেইলের ‘শান্ত’ রূপ চমকে দিয়েছে খুলনাকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২৪ পিএম, ২২ জানুয়ারি ২০১৯

পাওয়ার প্লে'র ছয় ওভার শেষে দলের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৫৮ রান। ব্যাটিংয়ে একপ্রান্তে রয়েছেন অ্যালেক্স হেলস, অন্যপ্রান্তে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের রাজা ক্রিস গেইল। যে কেউ হয়তো ভাবতেই পারেন, ৫৮ রানের সিংহভাগই এসেছে গেইলের ব্যাট থেকে। অন্তত ৯৫ শতাংশ ম্যাচেই তাদের অনুমান হবে সঠিক।

কিন্তু আজ (মঙ্গলবার) ছিল বাকি পাঁচ শতাংশ ম্যাচের একদিন। খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ম্যাচের প্রথম ছয় ওভার শেষে গেইল মোকাবেলা করেন মাত্র ১০ বল, নামের পাশে রানসংখ্যা ৪! অথচ অপরপ্রান্তের অ্যালেক্স হেলস ততক্ষণে মাত্র ২৬ বলেই খেলে ফেলেছেন ৫৪ রানের টর্নেডো ইনিংস। অষ্টম ওভারে ব্যক্তিগত ৫৫ রানে ফিরে যান হেলস, ইয়াসির শাহকে পরপর দুই বলে দুই ছক্কা মেরে নিজের স্ট্রাইকরেট খানিক ভদ্রস্থ করেন গেইল।

তিন নম্বরে ব্যাট করতে এসে আরেক দফা ঝড় বইয়ে দেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। ৩ চার ও ৪ ছক্কার মারে ২৪ বলে ৪১ রান করে ইনিংসের ১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বলে সাজঘরে ফেরেন ডি ভিলিয়ার্স। তখনো গেইলের সংগ্রহ ১৯ বল থেকে ২৪ রান। ১৬ ওভার শেষে এটি দাঁড়ায় ২৯ বল থেকে ২৯ রানে। তখন কঠিন হতে শুরু করেছে রংপুরের জয়ের সমীকরণ, শেষের ২৪ বলে প্রয়োজন ছিল আরো ৪৩ রানের।

ঠিক তখনই হয়তো গেইল ভাবলেন, অনেক হয়েছে শান্ত ব্যাটিং, এবার একটু নিজের চেনা অশান্ত ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনী হোক। ১৭তম ওভার করতে আসা খুলনা অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে হাঁকান তিনটি বিশাল ছক্কা, ওভার থেকে নিয়ে নেন ২০ রান, সহজ করেন জয়ের সমীকরণ, পৌঁছে যান ৩৪ বলে ৪৮ রানে। পরের ওভারে ডেভিড উইজকে বাউন্ডারি মেরে পূরণ করেন চলতি বিপিএলে নিজের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। ১৯তম ওভারে ফেরার আগে ২ চার ও ৫ ছক্কার মারে খেলেন ৪০ বলে ৫৫ রানের ইনিংস।

গেইল এমন ধীরেসুস্থে ও রয়েসয়ে খেলবেন, এমনটা ভাবেনি প্রতিপক্ষ খুলনা টাইটান্সের খেলোয়াড়রাও। ম্যাচ শেষে খুলনার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ জানিয়েছেন, ক্যারিবিয়ান দানবের এমন ব্যাটিং দেখে খানিক চমকেই গিয়েছিলেন তারা। তাই গেইলের বিপক্ষে তাদের পরিকল্পনা ছিলো তাকে যতো কম স্ট্রাইক দেয়া যায়।

সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘কিছুটা সারপ্রাইজ ছিলো এটা আমাদের জন্য। কারণ সাধারণত এতো ধৈর্য্য নিয়ে সে (গেইল) ব্যাটিং করে না। তার হয়তো নির্দিষ্ট কোন পরিকল্পনা ছিল। সম্ভবত স্পিনারদের আলাদাভাবে হ্যান্ডেল করার প্লান ছিল। সবাই জানি ওর সামর্থ্যের সম্পর্কে। আমাদের পরিকল্পনা ছিল গেইলকে যতটা কম স্ট্রাইক দেওয়া। বড় খেলোয়াড় তো বড় খেলোয়াড়ের মতোই রান করেছে আর কি!’

এ তো গেলো শান্ত গেইলের ব্যাপারে প্রতিপক্ষ অধিনায়কের মূল্যায়ন। গেইলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা কি ভাবছেন তার এমন ব্যাটিংয়ের ব্যাপারে? নাকি টিম ম্যানেজম্যান্টের পক্ষ থেকেই দেয়া হয়েছিল ধরে খেলার পরামর্শ?

এ ব্যাপারে মাশরাফির ব্যাখ্যা, ‘গেইল ওর নিজের মত করেই ব্যাটিং করেছে। হয়তো সে শেষ কিছু ম্যাচে রান পাচ্ছিল না তাই আজ ধরে খেলেছে। আমার মনে হয় ও বোলার পিক করে খেলতে চেয়েছিল। অ্যালেক্স হেলস কাজটা সহজ করে দিয়েছে, অন্য প্রান্ত থেকে প্রেশারটা অফ করে দিয়েছে। ফর্মে আসার জন্য যেই ইনিংসটা খেলার দরকার ছিল, সেটা খেলতে হেলস অনেক উপকার করে দিয়েছে। আর টিম থেকে তাকে আলাদাভাবে কিছু বলা হয়নি। সে তার নিজের মতো করেই খেলেছে, যেভাবে চেয়েছে।’

এসএএস/এমএমআর/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :