প্রিমিয়ার লিগে থাকছেন না তিন ফরমেটের নিয়মিত কেউ!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:২১ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আগেই জানা, জাতীয় দলের ওপেনার তামিম ইকবাল এবারের প্রিমিয়ার লিগ খেলবেন না। আর ওয়ানডে ক্যাপ্টেন মাশরাফিও পুরো লিগ না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছেন। তিনিও জানিয়ে রেখেছেন, নিউজিল্যান্ডের সাথে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শেষে (২০ ফেব্রুয়ারি ডানেডিনে শেষ ওয়ানডে) দেশে ফিরলেও প্রিমিয়ার লিগের শুরু থেকে খেলবেন না। হয়ত সুপার লিগের আগে মাঠে নাও নামতে পারেন।

বিশ্বকাপের প্রস্তুতির কথা মাথায় রেখে নিজেকে শারীরিকভাবে শতভাগ ফিট ও চাঙা রাখতেই মার্চ-এপ্রিলে অনুষ্ঠেয় ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের এবারের আসর না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দেশের এক নম্বর ওপেনার তামিম।

এদিকে তামিমের সাথে প্রিমিয়ার লিগ না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সব ফরম্যাটে দেশের অন্যতম সফল ও সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমও।

বিসিবি পরিচালক এবং ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি চেয়ারম্যান আকরাম খান জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, তামিমের মত মুশফিকও বিসিবির কাছে লিখিত দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রিমিয়ার লিগ না খেলার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন। এবং তাদের লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতেই আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি যে প্লেয়ার্স ড্রাফট হবে, সেই ড্রাফটের খেলোয়াড় তালিকা থেকে তামিম ও মুশফিকের নাম বাদ দেয়ারও অনুরোধ জানিয়েছেন। আকরাম খানও জানিয়েছেন, সেটা করা হয়েছে।

এদিকে সেটাই শেষ কথা নয়। ভিতরের খবর হলো, জাতীয় দলের বেশ কজন ক্রিকেটারেরই এবারের প্রিমিয়ার লিগ খেলার সম্ভাবনা খুব কম। কম মানে শূন্যের কোঠায়।

ক্রিকেট ক্লাব পাড়া শেরে বাংলার আশপাশে ভাসা গুঞ্জন নয়, আজ মঙ্গলবার সকালে জাগো নিউজের সাথে আলাপে বিসিবি ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি চেয়ারম্যান আকরাম খান স্বয়ং দিয়েছেন এ তথ্য।

আকরাম খান পরিষ্কার জানিয়েছেন, ‘বিশ্বকাপের আগে ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের এবারের আসর না খেলার সিদ্ধান্ত জানিয়ে তামিম আর মুশফিক নিজে থেকেই বোর্ডকে চিঠি দিয়েছে। আর আমরাও বোর্ড এবং ক্রিকেট অপারেশন্স থেকে বিষয়টি নিয়ে ভাবছি। জাতীয় দলের বেশ কজন ক্রিকেটারকে লিগ খেলা থেকে বিরত রাখার চিন্তা আছে আমাদেরও। আমরা এ বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই ভাবছি। এবং বিষয়টি নিয়ে বোর্ড ও জাতীয় দলের টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে বসে কথা বলে ঠিক করবো কাকে কাকে বিশ্রাম দেয়া যায়।’

ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি প্রধান আরও একটি তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ‘যে সব ক্রিকেটার টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে নিয়মিত খেলে এবং নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে এবং তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে, তাদের সবাইকে বিশ্রাম দেওয়ার চিন্তা আছে আমাদের মাথায়। ’

তারা কারা, নাম ও সংখ্যা কি চূড়ান্ত হয়েছে? এ প্রশ্নর জবাবে আকরাম বলেন, ‘নাহ, এখনো আমরা নাম চূড়ান্ত করিনি। সংখ্যাও তাই স্থির নয়। তবে তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, মিরাজ, মোস্তাফিজ ও রুবেল সব ফরম্যাটেই এখন নিয়মিত খেলে। হয়ত নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও ঐ কজন ওয়ানডে আর টেস্ট দুই'ই খেলবে। তারপর আবার লিগ খেলা-বাড়তি শারীরিক ও মানসিক ধকল। একটা বাড়তি ক্লান্তি চলে আসবে। তাই তাদের নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের পর প্রিমিয়ার লিগে বিশ্রাম দেয়ার জোর চিন্তা আছে আমাদের মাথায়।’

আকরাম আরও বলেন, ‘যেহেতু বিশ্বকাপ চার বছর পর পর আসে। প্রতিটি ক্রিকেটার এবং প্রতিযোগি দলের স্বপ্নই থাকে তাতে অংশ নেয়ার। এবং সামর্থ্যের সেরাটা উপহার দেয়ার। তাই আমরা চিন্তা করছি যাতে ক্রিকেটাররা বিশ্বকাপের অাগে শারীরিকভাবে সুস্থ ও সক্ষম থেকে ভালমত টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারে। এমনিতেই সেই অক্টোবর থেকে টানা খেলা চলছে।’

আকরাম খান যোগ করেন, ‘ক্রিকেটারদের ওপর প্রচুর ধকল যাচ্ছে। এরপর আবার যদি প্রিমিয়ার লিগ খেলে, তাহলে বাড়তি লোড পড়বে সবার ওপর। বিশেষ করে যারা সেই অক্টোবর থেকে তিন ফরম্যাটে খেলে আসছে তারা অবশ্যই ক্লান্ত। তাই তাদের কয়েকজনের ওপর চাপ কমাতেই আমরা এমন চিন্তা করছি। আশা করছি নিউজিল্যান্ড সফর চলাকালীনই তা ঠিক করে ফেলবো।’

এদিকে নিউজিল্যান্ড সফরে দুই নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু আর হাবিবুল বাশারের কেউ না গেলেও ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান যাবেন। নিজের যাবার খবর নিশ্চিত করে আকরাম খান জানান, ‘আমি নিউজিল্যান্ডে গিয়েই ঠিক করবো , কাকে কাকে প্রিমিয়ার লিগ খেলা থেকে বিশ্রাম দেয়া যায়।’

তবে আকরাম খানের মুখে একটিবার সাকিব আল হাসানের নাম উচ্চারিত হয়নি। কারণ, বাঁ হাতে অনামিকায় বল লেগে চিড় ধরা সাকিব অনিবার্যভাবেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ মিস করছেন। তারপর আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে হ্যামিল্টনে যে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু হচ্ছে, ধরেই নেয়া হচ্ছে তাতেও সাকিব খেলতে পারবেন না। কারণ তার ইনজুরি কাটতেই ছয় সপ্তাহের বিশ্রাম দরকার। তারপর আবার রিহ্যাব করে মাঠে ফিরতে আরও সময় লাগবে। তাই সাকিবের পক্ষে নিউজিল্যান্ড সফর করা সম্ভব হবে না।

তাই বলে ভাববেন না সাকিবকেও প্রিমিয়ার লিগ খেলা থেকে ছুটি দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। দেশ ও বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার এবার এমনিতেই প্রিমিয়ার লিগ খেলতে পারবেন না। প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়াবে ১ মার্চ, প্রায় আর আইপিএল শুরুর সম্ভাব্য তারিখ হচ্ছে ২৩ মার্চ। কাজেই সাকিবের ঢাকা লিগ খেলার সম্ভাবনা এমনিতেই খুব কম। সে কারণে বিশ্রামে থাকাদের তালিকায় সাকিবের নাম নেই।

এআরবি/এমএমআর/পিআর